০৬:১৪ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪
পল্লী বিদ্যুতের অবহেলা

 বিদ্যাকুটে অগ্নিকান্ডে ৩০ লাখ টাকার মালামালসহ বসতঘর পুরে ছাই

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নবীনগরের বিদ্যাকুটে অগ্নিকান্ডে প্রায় ৩০ লাখ টাকার মালামাল সহ বসতঘর পুরে ছাই হয়ে গেছে।
গেল শুক্রবার দিবাগত রাত, ৮ ঘটিকায় ওয়াহেদ ডিলারের বাড়ির মরহুম আবু তাহেরের বসতঘরে এই অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে।
স্থানীয়রা বলেন, শুক্রবার দিবাগত রাত ৮ ঘটিকায় পল্লী বিদ্যুতের অবহেলার কারণে, বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়, খুঁটি থেকে ঝুলে পড়া তার,দীর্ঘ দিন সঠিক তদারকি না করার কারণেই আগুনের সুএপাত কারণ হতে পারে।
অগ্নিকান্ডে একটি বসতঘরের টিভি, ফ্রিজ, ৪ ডাম চাওল ,নগদ টাকা, আসবাবপত্র ও সর্ণলংকার সহ প্রায় ৩০ লক্ষ টাকার সম্পুর্ণ মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়। আগুন লাগার পরে
মসজিদের মাইকে আগুন লাগার বিষয়টি বলার পর
প্রায় দুই ঘন্টা চেষ্টা করেও এলাকাবাসীর প্রচেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে পারেনি , দাউ দাউ করে তখন আগুন জ্বলতেছিলো ৷ ক্ষয়-ক্ষতি থেকে রক্ষা করা যায়নি পাকা বিটির চৌচালা টিনের ঘরের আধুনিক সব সরঞ্জামাদি সহ আসবাবপত্র।
পরে খবর পেয়ে নবীনগরের ফায়ার সার্ভিসের ১ টি ইউনিট ও স্থানীয়রা এসে প্রায় ২ ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।
মরহুম আবু তাহেরের স্ত্রী বলেন , প্রায় এক বছর পূর্বে আমার জমি বিক্রি করে ২২ লাখ টাকা দিয়ে এ ঘরটি নির্মাণ করেছিলাম। গত রাতে আগুন লেগে আমার বসতঘরের টিভি, ফ্রিজ, ৪ ডাম চাওল ,নগদ টাকা, আসবাবপত্র ও সর্ণলংকার সহ প্রায় ৩০ লক্ষ টাকার সম্পুর্ণ মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়।
আমি আমার ঘরে নামাজ পড়তে ছিলাম। হঠাৎ একটি শব্দ শুনতে পাই, বের হয়ে দেখি আমার ঘরে আগুণ লেগেছে।আমি চিৎকার করতে দেখে গ্রামের লোকজন আগুন নেভানোর জন্য আসে।আগুন নেভানো হলেও আমার ঘরে আর কিছুই নেই সবই আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেল।আমার শরীরে থাকা কাপড় ছাড়া কিছুই রক্ষা করা সম্ভব হয়নি।এ ব্যাপারে স্থানীয় পল্লী বিদ্যুৎ কর্মকর্তার সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করেও তাকে পাওয়া যায় নি।

 

বিজনেস বাংলাদেশ/BH

 

 

ট্যাগ :

পল্লী বিদ্যুতের অবহেলা

 বিদ্যাকুটে অগ্নিকান্ডে ৩০ লাখ টাকার মালামালসহ বসতঘর পুরে ছাই

প্রকাশিত : ০৮:৩৯:৪৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নবীনগরের বিদ্যাকুটে অগ্নিকান্ডে প্রায় ৩০ লাখ টাকার মালামাল সহ বসতঘর পুরে ছাই হয়ে গেছে।
গেল শুক্রবার দিবাগত রাত, ৮ ঘটিকায় ওয়াহেদ ডিলারের বাড়ির মরহুম আবু তাহেরের বসতঘরে এই অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে।
স্থানীয়রা বলেন, শুক্রবার দিবাগত রাত ৮ ঘটিকায় পল্লী বিদ্যুতের অবহেলার কারণে, বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়, খুঁটি থেকে ঝুলে পড়া তার,দীর্ঘ দিন সঠিক তদারকি না করার কারণেই আগুনের সুএপাত কারণ হতে পারে।
অগ্নিকান্ডে একটি বসতঘরের টিভি, ফ্রিজ, ৪ ডাম চাওল ,নগদ টাকা, আসবাবপত্র ও সর্ণলংকার সহ প্রায় ৩০ লক্ষ টাকার সম্পুর্ণ মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়। আগুন লাগার পরে
মসজিদের মাইকে আগুন লাগার বিষয়টি বলার পর
প্রায় দুই ঘন্টা চেষ্টা করেও এলাকাবাসীর প্রচেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে পারেনি , দাউ দাউ করে তখন আগুন জ্বলতেছিলো ৷ ক্ষয়-ক্ষতি থেকে রক্ষা করা যায়নি পাকা বিটির চৌচালা টিনের ঘরের আধুনিক সব সরঞ্জামাদি সহ আসবাবপত্র।
পরে খবর পেয়ে নবীনগরের ফায়ার সার্ভিসের ১ টি ইউনিট ও স্থানীয়রা এসে প্রায় ২ ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।
মরহুম আবু তাহেরের স্ত্রী বলেন , প্রায় এক বছর পূর্বে আমার জমি বিক্রি করে ২২ লাখ টাকা দিয়ে এ ঘরটি নির্মাণ করেছিলাম। গত রাতে আগুন লেগে আমার বসতঘরের টিভি, ফ্রিজ, ৪ ডাম চাওল ,নগদ টাকা, আসবাবপত্র ও সর্ণলংকার সহ প্রায় ৩০ লক্ষ টাকার সম্পুর্ণ মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়।
আমি আমার ঘরে নামাজ পড়তে ছিলাম। হঠাৎ একটি শব্দ শুনতে পাই, বের হয়ে দেখি আমার ঘরে আগুণ লেগেছে।আমি চিৎকার করতে দেখে গ্রামের লোকজন আগুন নেভানোর জন্য আসে।আগুন নেভানো হলেও আমার ঘরে আর কিছুই নেই সবই আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেল।আমার শরীরে থাকা কাপড় ছাড়া কিছুই রক্ষা করা সম্ভব হয়নি।এ ব্যাপারে স্থানীয় পল্লী বিদ্যুৎ কর্মকর্তার সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করেও তাকে পাওয়া যায় নি।

 

বিজনেস বাংলাদেশ/BH