০৭:৪৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪

কোটা আন্দোলনে উত্তাল শেকৃবি,  সড়ক অবরোধ

ঈদের ছুটি শেষে আবারও কোটা বিরোধী আন্দোলনে উত্তাল হয়ে উঠেছে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (শেকৃবি)। প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে কোটা ব্যবস্থা পুনর্বহালের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল, সমাবেশ ও আগারগাঁও-ফার্মগেট সড়ক অবরোধ করেছে রাজধানীর শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা।‌

মঙ্গলবার (২ জুলাই) বেলা সাড়ে ১২ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে জড়ো হয়ে একটি সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে শিক্ষার্থীরা। এসময় শিক্ষার্থীরা তাদের দাবি উত্থাপন করে।

শিক্ষার্থীরা বলেন, এটা কোন ব্যক্তির আন্দোলন নয়, প্রতিটি শিক্ষার্থীর আন্দোলন, সারা দেশের আন্দোলন। আজকে যদি দেশে যে মেধাগুলো আছে সেই মেধাগুলো কাজে না লাগে, মেধাগুলোর যে যোগ্য স্থানে যাওয়া উচিত সেখানে না যেতে পারে, অযোগ্য লোক যদি দেশের যোগ্য স্থানে চলে যায়, গোটা দেশ তাহলে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। দেশের মেধা যেন কাজে লাগে, দেশ যেন সামনের দিকে এগিয়ে যায়, সেই লক্ষ্যেই আমাদের এ আন্দোলন।

যতদিন না আমরা সফল হয়, ততদিন আমাদের কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।

পরে শিক্ষার্থীরা একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি প্রশাসনিক ভবন থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রদক্ষিণ করে সেকেন্ড গেট সংলগ্ন আগারগাঁও-ফার্মগেট সড়কে গিয়ে শেষ হয়। মিছিল শেষে ১০ মিনিট আগারগাঁও-ফার্মগেট সড়ক প্রতীকি অবরোধ করে শিক্ষার্থীরা। এতে আগারগাঁও থেকে বিজয় স্মরণী পর্যন্ত দীর্ঘ জটের সৃষ্টি হয়। এসময় শিক্ষার্থীরা “উড়ছে পাখি দিচ্ছে ডাক, কোটা প্রথা নিপাত যাক”, “যুদ্ধ হবে আরেকবার, করবো কোটা সংস্কার”, “কোটা বৈষম্য দূর কর, নইলে বুকে গুলি কর”, “আমার দেশ আমার মা, বৈষম্য মানি না” সহ বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকে।

বিজনেস বাংলাদেশ/ ডিএস

ট্যাগ :

বাংলাদেশ সরকারের উচিত শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদের অধিকার নিশ্চিত করা: জাতিসংঘ

কোটা আন্দোলনে উত্তাল শেকৃবি,  সড়ক অবরোধ

প্রকাশিত : ০৪:০২:০৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ জুলাই ২০২৪

ঈদের ছুটি শেষে আবারও কোটা বিরোধী আন্দোলনে উত্তাল হয়ে উঠেছে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (শেকৃবি)। প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে কোটা ব্যবস্থা পুনর্বহালের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল, সমাবেশ ও আগারগাঁও-ফার্মগেট সড়ক অবরোধ করেছে রাজধানীর শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা।‌

মঙ্গলবার (২ জুলাই) বেলা সাড়ে ১২ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে জড়ো হয়ে একটি সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে শিক্ষার্থীরা। এসময় শিক্ষার্থীরা তাদের দাবি উত্থাপন করে।

শিক্ষার্থীরা বলেন, এটা কোন ব্যক্তির আন্দোলন নয়, প্রতিটি শিক্ষার্থীর আন্দোলন, সারা দেশের আন্দোলন। আজকে যদি দেশে যে মেধাগুলো আছে সেই মেধাগুলো কাজে না লাগে, মেধাগুলোর যে যোগ্য স্থানে যাওয়া উচিত সেখানে না যেতে পারে, অযোগ্য লোক যদি দেশের যোগ্য স্থানে চলে যায়, গোটা দেশ তাহলে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। দেশের মেধা যেন কাজে লাগে, দেশ যেন সামনের দিকে এগিয়ে যায়, সেই লক্ষ্যেই আমাদের এ আন্দোলন।

যতদিন না আমরা সফল হয়, ততদিন আমাদের কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।

পরে শিক্ষার্থীরা একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি প্রশাসনিক ভবন থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রদক্ষিণ করে সেকেন্ড গেট সংলগ্ন আগারগাঁও-ফার্মগেট সড়কে গিয়ে শেষ হয়। মিছিল শেষে ১০ মিনিট আগারগাঁও-ফার্মগেট সড়ক প্রতীকি অবরোধ করে শিক্ষার্থীরা। এতে আগারগাঁও থেকে বিজয় স্মরণী পর্যন্ত দীর্ঘ জটের সৃষ্টি হয়। এসময় শিক্ষার্থীরা “উড়ছে পাখি দিচ্ছে ডাক, কোটা প্রথা নিপাত যাক”, “যুদ্ধ হবে আরেকবার, করবো কোটা সংস্কার”, “কোটা বৈষম্য দূর কর, নইলে বুকে গুলি কর”, “আমার দেশ আমার মা, বৈষম্য মানি না” সহ বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকে।

বিজনেস বাংলাদেশ/ ডিএস