০৩:৫৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪

খালেদা জিয়াই আদালতকে হেনস্তা করছেন-ওবায়দুল কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আদালত প্রাঙ্গণে বিএনপিপন্থি আইনজীবীদের হাতাহাতি বিচারকাজ ব্যাহত করার পায়তারা। এটা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।
শুক্রবার সকালে রাজধানীর গুলশানের ইয়ুথ ক্লাব মাঠে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।
ওবায়দুল কাদের বলেন, খালেদা জিয়াই আদালতকে হেনস্তা করছেন। তিনি আদালতে হাজিরা না দিয়ে একের পর এক তারিখ পিছিয়েছেন।
দেশের গণমাধ্যমকে সত্য বলার আহ্বান জানিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের বিরুদ্ধের বিষয় বলুন, আমরা স্বাগত জানাই। কিন্তু জনদুর্ভোগ আমরা করিনি, সে কথার কেউ প্রশংসা করেনি। জনদুর্ভোগ শেখ হাসিনার জনসভায় হয়নি। কিন্তু পরশু দিন যে জনদুর্ভোগ হলো, সেটা অনেকেই চেপে গেছেন। এটা তো সুবিচার নয়, এটা তো বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা নয়, এটাতে আমার একটু কষ্ট লাগল, সে জন্য বলেছি।’
এর আগে এক অনুষ্ঠানে সকল ভেদাভেদ ভুলে দলীয় নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হবার আহবান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, দলকে ঐক্যবদ্ধ রাখুন আগামী নির্বাচনে বিজয়ী হতে হবে। বিএনপিকে নিয়ে চিন্তা করার কোনো কারণ নেই। বিএনপি এখন এলোমেলো পার্টি। নির্বাচনের মাঠে তারা আওয়ামী লীগ থেকে অনেক পিছিয়ে।
২০১৮ সালের ডিসেম্বরে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘২০১৮ সালের ডিসেম্বর মাসে ফাইনাল খেলা হবে। বিজয়ের মাসে আমরা আর একটি বিজয় লাভ করতে চাই। এজন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।
প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার হাজিরাকে ঘিরে রাজধানীর বকশীবাজারের আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত অস্থায়ী বিশেষ আদালত প্রাঙ্গণে বিপুল সংখ্যক বিএনপিপন্থি আইনজীবী জড়ো হন। এক পর্যায়ে আদালত প্রাঙ্গণে টেলিভিশন ক্যামেরার সামনে দাঁড়ানোকে কেন্দ্র করে বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের মধ্যে হাতাহাতি ও ধাক্কাধাক্কির ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

ট্যাগ :
জনপ্রিয়

ইসরায়েলে আঘাত হেনেছে হিজবুল্লাহর ড্রোন, আহত ১৮

খালেদা জিয়াই আদালতকে হেনস্তা করছেন-ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত : ০৮:০০:৫৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২০ অক্টোবর ২০১৭

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আদালত প্রাঙ্গণে বিএনপিপন্থি আইনজীবীদের হাতাহাতি বিচারকাজ ব্যাহত করার পায়তারা। এটা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।
শুক্রবার সকালে রাজধানীর গুলশানের ইয়ুথ ক্লাব মাঠে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।
ওবায়দুল কাদের বলেন, খালেদা জিয়াই আদালতকে হেনস্তা করছেন। তিনি আদালতে হাজিরা না দিয়ে একের পর এক তারিখ পিছিয়েছেন।
দেশের গণমাধ্যমকে সত্য বলার আহ্বান জানিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের বিরুদ্ধের বিষয় বলুন, আমরা স্বাগত জানাই। কিন্তু জনদুর্ভোগ আমরা করিনি, সে কথার কেউ প্রশংসা করেনি। জনদুর্ভোগ শেখ হাসিনার জনসভায় হয়নি। কিন্তু পরশু দিন যে জনদুর্ভোগ হলো, সেটা অনেকেই চেপে গেছেন। এটা তো সুবিচার নয়, এটা তো বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা নয়, এটাতে আমার একটু কষ্ট লাগল, সে জন্য বলেছি।’
এর আগে এক অনুষ্ঠানে সকল ভেদাভেদ ভুলে দলীয় নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হবার আহবান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, দলকে ঐক্যবদ্ধ রাখুন আগামী নির্বাচনে বিজয়ী হতে হবে। বিএনপিকে নিয়ে চিন্তা করার কোনো কারণ নেই। বিএনপি এখন এলোমেলো পার্টি। নির্বাচনের মাঠে তারা আওয়ামী লীগ থেকে অনেক পিছিয়ে।
২০১৮ সালের ডিসেম্বরে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘২০১৮ সালের ডিসেম্বর মাসে ফাইনাল খেলা হবে। বিজয়ের মাসে আমরা আর একটি বিজয় লাভ করতে চাই। এজন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।
প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার হাজিরাকে ঘিরে রাজধানীর বকশীবাজারের আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত অস্থায়ী বিশেষ আদালত প্রাঙ্গণে বিপুল সংখ্যক বিএনপিপন্থি আইনজীবী জড়ো হন। এক পর্যায়ে আদালত প্রাঙ্গণে টেলিভিশন ক্যামেরার সামনে দাঁড়ানোকে কেন্দ্র করে বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের মধ্যে হাতাহাতি ও ধাক্কাধাক্কির ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।