০৫:৪৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪

লোমহর্ষক হত্যার রহস্য উদঘাটন

পাবনার সাঁথিয়ায় আলেয়া খাতুন (৪৩) নামে এক গৃহবধূকে ধর্ষণ চেষ্টার পর হত্যা করা হয়। গত ১ নভেম্বর এ ঘটনাটি ঘটে উপজেলার পাইকরহাটি গ্রামে। এ ঘটনায় পুলিশ আলেয়ার চাচাতো দেবর টুটুল মল্লিককে (৩৫) আটক করে। তাকে নিয়ে এক সপ্তাহ পর উদ্ধার করা হয় আলেয়ার মরদেহ। অথচ বিষয় এলাকার কেউ টের পায়নি। এমন অপকর্ম করে তিনি ঢাকায় কর্মস্থলে যোগও দিয়েছিলেন। সবই করেছেন ঠান্ডা মাথায়, পরিকল্পিতভাবে। এই ঘটনার পুরো তদন্ত প্রক্রিয়া জানিয়েছেন পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বেড়া-সাঁথিয়া সার্কেল) আশিস বিন হাসান। এ নিয়ে গত ৯ নভেম্বর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বেড়া সার্কেল বেড়া আইডি থেকে একটি পোস্ট দেওয়া হয়। পোস্টটি শেয়ার করেছেন পাবনার পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আশিস বিন হাসান।
পাঠকের জন্য তা হুবুহু তুলে ধরা হলো: উরু পর্যন্ত শাড়ি পেটিকোট উঁচু করে ধানক্ষেতের ভিতর দিয়ে হেঁটে যাচ্ছে মাঝ বয়সী এক নারী। তার নাম আলেয়া। বয়স ৪০ ছুঁই ছুঁই। বয়স বাড়লেও দুই সন্তানের জননী আলেয়ার শরীর ভেঙ্গে পড়েনি। এখনও যৌবনের পূর্ণ রেশ শরীরে রয়েই গেছে। কে জানতো তার সুগঠিত অবয়বই কোন নরপশুর লোলুপ দৃষ্টি কাড়বে; অতঃপর নির্জন বিলে ধর্ষণের শিকার হয়ে লাশ কাটা ঘরে পড়ে থাকবে তার পচা গলা নিথর দেহটি।

ট্যাগ :
জনপ্রিয়

লোমহর্ষক হত্যার রহস্য উদঘাটন

প্রকাশিত : ০১:৩২:৫৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৭

পাবনার সাঁথিয়ায় আলেয়া খাতুন (৪৩) নামে এক গৃহবধূকে ধর্ষণ চেষ্টার পর হত্যা করা হয়। গত ১ নভেম্বর এ ঘটনাটি ঘটে উপজেলার পাইকরহাটি গ্রামে। এ ঘটনায় পুলিশ আলেয়ার চাচাতো দেবর টুটুল মল্লিককে (৩৫) আটক করে। তাকে নিয়ে এক সপ্তাহ পর উদ্ধার করা হয় আলেয়ার মরদেহ। অথচ বিষয় এলাকার কেউ টের পায়নি। এমন অপকর্ম করে তিনি ঢাকায় কর্মস্থলে যোগও দিয়েছিলেন। সবই করেছেন ঠান্ডা মাথায়, পরিকল্পিতভাবে। এই ঘটনার পুরো তদন্ত প্রক্রিয়া জানিয়েছেন পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বেড়া-সাঁথিয়া সার্কেল) আশিস বিন হাসান। এ নিয়ে গত ৯ নভেম্বর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বেড়া সার্কেল বেড়া আইডি থেকে একটি পোস্ট দেওয়া হয়। পোস্টটি শেয়ার করেছেন পাবনার পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আশিস বিন হাসান।
পাঠকের জন্য তা হুবুহু তুলে ধরা হলো: উরু পর্যন্ত শাড়ি পেটিকোট উঁচু করে ধানক্ষেতের ভিতর দিয়ে হেঁটে যাচ্ছে মাঝ বয়সী এক নারী। তার নাম আলেয়া। বয়স ৪০ ছুঁই ছুঁই। বয়স বাড়লেও দুই সন্তানের জননী আলেয়ার শরীর ভেঙ্গে পড়েনি। এখনও যৌবনের পূর্ণ রেশ শরীরে রয়েই গেছে। কে জানতো তার সুগঠিত অবয়বই কোন নরপশুর লোলুপ দৃষ্টি কাড়বে; অতঃপর নির্জন বিলে ধর্ষণের শিকার হয়ে লাশ কাটা ঘরে পড়ে থাকবে তার পচা গলা নিথর দেহটি।