০৩:০৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪

চলতি বছর বিদেশে গেছে ৮ লাখ কর্মী

বাংলাদেশ থেকে বিশ্বের ১৬৫টি দেশে কর্মী পাঠানো হচ্ছে বলে জানিয়ে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি বলেছেন, ২০১৭ সালে জানুয়ারি হতে অক্টোবর পর্যন্ত বিদেশগামী কর্মীর সংখ্যা ৮ লাখ ৩৪ হাজার ৭৭৩ জন।

২০১৬ সালে তা বেড়ে ৭ লাখ ৫৭ হাজার ৭৩১ জনে উন্নীত হয়। ২০১৫ সালে বিদেশগামী কর্মীর সংখ্যা ছিল ৫ লাখ ৫৫ হাজার ৮৮১ জন।

সংসদের ১৮তম অধিবেশনে রবিবারের বৈঠকে প্রশ্নোত্তর পর্বে নুরুল ইসলাম ওমরের (বগুড়া-৬) তারকা চিহ্নিত প্রশ্নের জবাবে প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রীর পক্ষে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এসব তথ্য তুলে ধরেন। তিনি বলেন, বৈশ্বিক অর্থনৈতিক মন্দা সত্ত্বেও সরকারের গৃহীত নানামুখী কূটনৈতিক তৎপরতার ফলে মধ্যপ্রাচ্যেসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিদেশীগামী কর্মীর সংখ্যা উত্তরোত্তর বাড়ছে।

এসময় মন্ত্রী জানান, প্রধান প্রধান শ্রম বাজারসমূহ তথা সৌদি আরব, ওমান, কাতার, বাহরাইন, লেবানন, মালয়েশিয়া, সংযুক্ত আরব আমিরাত, হংকং, দক্ষিণ কোরিয়া, জর্ডান প্রভৃতি দেশের সাথে কর্মী পাঠানোর বিষয়ে বাংলাদেশ চূড়ান্ত চুক্তি/সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে। কর্মী পাঠানোর ধারা অব্যাহত রাখতে প্রচলিত শ্রম বাজারের পাশাপাশি সরকার নতুন নতুন শ্রম বাজার অনুসন্ধানের উদ্যোগ নিয়েছে। ফলে নতুন শ্রম বাজার হিসেবে পালাউ, পোলান্ড, সুইডেন, পাপুয়া নিউগিনি, সেশলস, আলজেরিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, কঙ্গো, সুদান, অস্ট্রেলিয়া, নিউজল্যান্ড, কানাডা, রাশিয়া, শ্রীংলকা, এন্ডোরা, বানুয়াতু, স্লোভেনিয়া, সেন্ট কিডস অ্যান্ড নেভিসসহ বিশ্বের অনেক দেশেও কর্মী পাঠানো সম্ভব হচ্ছে।

ট্যাগ :
জনপ্রিয়

চলতি বছর বিদেশে গেছে ৮ লাখ কর্মী

প্রকাশিত : ০৯:১৪:১৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৭

বাংলাদেশ থেকে বিশ্বের ১৬৫টি দেশে কর্মী পাঠানো হচ্ছে বলে জানিয়ে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি বলেছেন, ২০১৭ সালে জানুয়ারি হতে অক্টোবর পর্যন্ত বিদেশগামী কর্মীর সংখ্যা ৮ লাখ ৩৪ হাজার ৭৭৩ জন।

২০১৬ সালে তা বেড়ে ৭ লাখ ৫৭ হাজার ৭৩১ জনে উন্নীত হয়। ২০১৫ সালে বিদেশগামী কর্মীর সংখ্যা ছিল ৫ লাখ ৫৫ হাজার ৮৮১ জন।

সংসদের ১৮তম অধিবেশনে রবিবারের বৈঠকে প্রশ্নোত্তর পর্বে নুরুল ইসলাম ওমরের (বগুড়া-৬) তারকা চিহ্নিত প্রশ্নের জবাবে প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রীর পক্ষে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এসব তথ্য তুলে ধরেন। তিনি বলেন, বৈশ্বিক অর্থনৈতিক মন্দা সত্ত্বেও সরকারের গৃহীত নানামুখী কূটনৈতিক তৎপরতার ফলে মধ্যপ্রাচ্যেসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিদেশীগামী কর্মীর সংখ্যা উত্তরোত্তর বাড়ছে।

এসময় মন্ত্রী জানান, প্রধান প্রধান শ্রম বাজারসমূহ তথা সৌদি আরব, ওমান, কাতার, বাহরাইন, লেবানন, মালয়েশিয়া, সংযুক্ত আরব আমিরাত, হংকং, দক্ষিণ কোরিয়া, জর্ডান প্রভৃতি দেশের সাথে কর্মী পাঠানোর বিষয়ে বাংলাদেশ চূড়ান্ত চুক্তি/সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে। কর্মী পাঠানোর ধারা অব্যাহত রাখতে প্রচলিত শ্রম বাজারের পাশাপাশি সরকার নতুন নতুন শ্রম বাজার অনুসন্ধানের উদ্যোগ নিয়েছে। ফলে নতুন শ্রম বাজার হিসেবে পালাউ, পোলান্ড, সুইডেন, পাপুয়া নিউগিনি, সেশলস, আলজেরিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, কঙ্গো, সুদান, অস্ট্রেলিয়া, নিউজল্যান্ড, কানাডা, রাশিয়া, শ্রীংলকা, এন্ডোরা, বানুয়াতু, স্লোভেনিয়া, সেন্ট কিডস অ্যান্ড নেভিসসহ বিশ্বের অনেক দেশেও কর্মী পাঠানো সম্ভব হচ্ছে।