০৪:৪৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪

বকেয়া বেতনের দাবিতে শ্রমিকদের সড়ক অবরোধ, পুলিশের লাঠিচার্জ

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে বেঙ্গল স্যু ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের শ্রমিকেরা বকেয়া বেতন ও বোনাসের দাবিতে বিক্ষোভ করেছেন। শনিবার (৩০ মার্চ) সকাল ৮টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত শ্রমিকরা উপজেলার রাখালিয়া বাজার কারখানার সামনে রায়পুর-ঢাকা আঞ্চলিক মহাসড়কে অবস্থান নেন। এতে প্রায় ৩ ঘণ্টা রাস্তার দুপাশে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

এদিকে খবর পেয়ে রায়পুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. ইমরান খান ও থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইয়াছিন ফারুক মজুমদার ঘটনাস্থল পৌঁছে পরিস্থিতি শান্ত করার চেষ্টা করে। শ্রমিকদেরকে সড়ক থেকে সরে যেতে বললেও রাজি হচ্ছিল না। এতে পুলিশ লাঠিচার্জ করে শ্রমিকদের সড়ক থেকে সরিয়ে যান চলাচল স্বাভাবিক করে। পরে ইউএনও এবং ওসি মালিকপক্ষের সঙ্গে কথা বলার পর সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিলে শ্রমিকরা বিক্ষোভ তুলে নেন।

আন্দোলনকারী শ্রমিকরা জানান, শনিবার সকালে তাদের ৩ মাসের বকেয়া বেতন, ২ মাসের ওভারটাইম ও ঈদ বোনাস দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কারখানা মালিকপক্ষ তা দেয়নি। এতে কর্মবিরতি রেখে শ্রমিকরা আন্দোলনে নামতে বাধ্য হয়। এছাড়া চুক্তি অনুুযায়ী মালিকপক্ষ শ্রমিকদের কোনো সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছে না।

এ ব্যাপারে মালিক পক্ষের কেউ গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে রাজি হয়নি ।

রায়পুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইয়াছিন মজুমদার বলেন, শ্রমিকরা অবরোধ তুলে নিয়েছে। যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। বেতন-বোনাস যেন শ্রমিকরা যেন যথাসময়ে পায়, তা নিয়ে মালিকপক্ষের সঙ্গে কথা হয়েছে। আশা করি সমস্যা সমাধান হবে।

বিজনেস বাংলাদেশ/একে

ট্যাগ :
জনপ্রিয়

ইসরায়েলকে সতর্ক করল হোয়াইট হাউজ

বকেয়া বেতনের দাবিতে শ্রমিকদের সড়ক অবরোধ, পুলিশের লাঠিচার্জ

প্রকাশিত : ০৩:৫৫:২২ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩০ মার্চ ২০২৪

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে বেঙ্গল স্যু ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের শ্রমিকেরা বকেয়া বেতন ও বোনাসের দাবিতে বিক্ষোভ করেছেন। শনিবার (৩০ মার্চ) সকাল ৮টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত শ্রমিকরা উপজেলার রাখালিয়া বাজার কারখানার সামনে রায়পুর-ঢাকা আঞ্চলিক মহাসড়কে অবস্থান নেন। এতে প্রায় ৩ ঘণ্টা রাস্তার দুপাশে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

এদিকে খবর পেয়ে রায়পুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. ইমরান খান ও থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইয়াছিন ফারুক মজুমদার ঘটনাস্থল পৌঁছে পরিস্থিতি শান্ত করার চেষ্টা করে। শ্রমিকদেরকে সড়ক থেকে সরে যেতে বললেও রাজি হচ্ছিল না। এতে পুলিশ লাঠিচার্জ করে শ্রমিকদের সড়ক থেকে সরিয়ে যান চলাচল স্বাভাবিক করে। পরে ইউএনও এবং ওসি মালিকপক্ষের সঙ্গে কথা বলার পর সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিলে শ্রমিকরা বিক্ষোভ তুলে নেন।

আন্দোলনকারী শ্রমিকরা জানান, শনিবার সকালে তাদের ৩ মাসের বকেয়া বেতন, ২ মাসের ওভারটাইম ও ঈদ বোনাস দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কারখানা মালিকপক্ষ তা দেয়নি। এতে কর্মবিরতি রেখে শ্রমিকরা আন্দোলনে নামতে বাধ্য হয়। এছাড়া চুক্তি অনুুযায়ী মালিকপক্ষ শ্রমিকদের কোনো সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছে না।

এ ব্যাপারে মালিক পক্ষের কেউ গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে রাজি হয়নি ।

রায়পুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইয়াছিন মজুমদার বলেন, শ্রমিকরা অবরোধ তুলে নিয়েছে। যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। বেতন-বোনাস যেন শ্রমিকরা যেন যথাসময়ে পায়, তা নিয়ে মালিকপক্ষের সঙ্গে কথা হয়েছে। আশা করি সমস্যা সমাধান হবে।

বিজনেস বাংলাদেশ/একে