১০:২৭ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

বাবাকে কুপিয়ে হত্যা, ছেলে গ্রেপ্তার

নীলফামারীর ডিমলায় জমি নিয়ে বিরোধে ছেলের কোদালের কোপে বাবা মোঃ আজিজুল ইসলাম (৬০) নিহত হয়েছে। মঙ্গলবার (২৮ নভেম্বর) মধ্য রাতে নিহতের বড় ছেলে প্রধান আসামি মোঃ নূর ইসলামকে (৩৫) আটকের তথ্য নিশ্চিত করেছেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম এন্ড অপস্) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম।
নিহত মোঃ আজিজুল ইসলাম (৬০) উপজেলার উত্তর সোনাখুলী এলাকার মৃত পহর উদ্দিন মাহমুদের ছেলে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল সকাল ৯টায় নিহত তার স্ত্রীকে নিয়ে আবাদি জমিতে কাজ করে। এসময় মোঃ নূর ইসলাম এসে তাদের সাথে বাকবিতন্ডা জড়িয়ে পড়লে তাদের মধ্যে ধস্তাধস্তি হয়। একপর্যায়ে ছেলের কাছে থাকা কোদাল দিয়ে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে জখম করে বাবা আজিজুলকে। নিহতের স্ত্রীর চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে আসলে চিকিৎসার জন্য তাকে ডিমলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। অবস্থার বেগতিক দেখে কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (রমেক) প্রেরণ করলে পথিমধ্যে মারা যায় তিনি।
নিহতের চাচাতো ভাই হাফিজুল ইসলাম জানান, আমার ভাইকে কুপিয়ে জখম করে নূর ইসলাম আমাকে মুঠোফোনে কল দিয়ে বলে “তোর ভাইকে চোটাইছি (কুপিয়েছি) তুই পারলে পুলিশ নিয়ে এসে আমাকে ধর ” বলে ফোন কেটে দেয়।
নীলফামারীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম এন্ড অপস্) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম জানান, ডিমলা ও জলঢাকা থানা পুলিশ যৌথভাবে অভিযান চালিয়ে হত্যাকান্ডের প্রধান আসামি মোঃ নূর ইসলামকে জলঢাকা পৌর এলাকা থেকে গ্রেফতার করে। নিহত আজিজুলের মরাদেহ ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হবে।
ট্যাগ :
জনপ্রিয়

বাবাকে কুপিয়ে হত্যা, ছেলে গ্রেপ্তার

প্রকাশিত : ০৯:৪৩:৫৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৯ নভেম্বর ২০২৩
নীলফামারীর ডিমলায় জমি নিয়ে বিরোধে ছেলের কোদালের কোপে বাবা মোঃ আজিজুল ইসলাম (৬০) নিহত হয়েছে। মঙ্গলবার (২৮ নভেম্বর) মধ্য রাতে নিহতের বড় ছেলে প্রধান আসামি মোঃ নূর ইসলামকে (৩৫) আটকের তথ্য নিশ্চিত করেছেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম এন্ড অপস্) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম।
নিহত মোঃ আজিজুল ইসলাম (৬০) উপজেলার উত্তর সোনাখুলী এলাকার মৃত পহর উদ্দিন মাহমুদের ছেলে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল সকাল ৯টায় নিহত তার স্ত্রীকে নিয়ে আবাদি জমিতে কাজ করে। এসময় মোঃ নূর ইসলাম এসে তাদের সাথে বাকবিতন্ডা জড়িয়ে পড়লে তাদের মধ্যে ধস্তাধস্তি হয়। একপর্যায়ে ছেলের কাছে থাকা কোদাল দিয়ে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে জখম করে বাবা আজিজুলকে। নিহতের স্ত্রীর চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে আসলে চিকিৎসার জন্য তাকে ডিমলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। অবস্থার বেগতিক দেখে কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (রমেক) প্রেরণ করলে পথিমধ্যে মারা যায় তিনি।
নিহতের চাচাতো ভাই হাফিজুল ইসলাম জানান, আমার ভাইকে কুপিয়ে জখম করে নূর ইসলাম আমাকে মুঠোফোনে কল দিয়ে বলে “তোর ভাইকে চোটাইছি (কুপিয়েছি) তুই পারলে পুলিশ নিয়ে এসে আমাকে ধর ” বলে ফোন কেটে দেয়।
নীলফামারীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম এন্ড অপস্) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম জানান, ডিমলা ও জলঢাকা থানা পুলিশ যৌথভাবে অভিযান চালিয়ে হত্যাকান্ডের প্রধান আসামি মোঃ নূর ইসলামকে জলঢাকা পৌর এলাকা থেকে গ্রেফতার করে। নিহত আজিজুলের মরাদেহ ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হবে।