০৭:২৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪

তীব্র গরমেও নিয়মিত ক্লাস করতে প্রস্তুত কে বি হাই স্কুলে

চলমান তীব্র তাপদাহে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় হাই স্কুলের (কে.বি) শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় জুরুরি ব্যবস্থা নিয়েছেন কর্তৃপক্ষ। সরেজমিনে দেখা যায়, সশরীরে ক্লাসে আসা শিক্ষার্থীদের জন্য সার্বক্ষণিক ঠান্ডা পানির ব্যবস্থা, ক্লাস রুমে পর্যাপ্ত আলো বাতাসের ব্যবস্থা, ভবনগুলোতে সাদা রং করা, আশেপাশের ময়লা আবর্জনা পরিষ্কারসহ শিক্ষার্থীদের পর্যবেক্ষণে রয়েছে সিসি টিভির ব্যবস্থা। এছাড়া তীব্র গরমে শিক্ষার্থীদের স্বাভাবিক পাঠদানের জন্য ক্লাস শুরুর সময়টি এগিয়ে সকাল ৮ টায় করা হয়েছে।

স্কুলটির ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও বাকৃবির পশু প্রজনন ও কৌলিবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. এম.এ.এম. ইয়াহিয়া খন্দকার বলেন, ‘দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে প্রায় ১৫শ শিক্ষার্থীর এই স্কুলটির পরিবেশ ও শিক্ষার মান উন্নয়নে সবাইকে নিয়ে কাজ করছি। শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি, পাঠদান ও শারীরিক সুস্থ্যতা পর্যবেক্ষণে প্রতিটি ক্লাসরুমে সিসি টিভির আওতাভুক্ত করা হয়েছে। শিক্ষার্থীরা ক্লাসে পানির বোতল ও ছাতা সঙ্গে নিয়ে আসার জুরুরি নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া বৃক্ষের ছায়াতলে অভিভাবকদের বসার ব্যবস্থা করেছেন। ’

স্কুলের শিক্ষার্থীরা জানান, বর্তমান এই তীব্র গরমে স্বস্তিতে রয়েছেন তারা। মনোযোগ দিয়ে ক্লাস করতে পারছেন। অভিভাবক ও প্যারাসাইটোলজি বিভাগের অধ্যাপক ড. সহিদুজ্জামান জানান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটিতে এখন নিয়মিত ক্লাস হচ্ছে এবং গরমেও শিক্ষার্থীরা স্বস্তিতে আছে। প্রথমে সন্তানের শারীরিক সুস্থতা নিয়ে শঙ্কায় ছিলাম। তবে বর্তমান এই ব্যবস্থা দেখে এখন আর ভয় হচ্ছে না।

বিজনেস বাংলাদেশ/DS

ট্যাগ :
জনপ্রিয়

রাসেলস ভাইপার সাপ নিয়ে আতঙ্কিত না হওয়ার আহবান: গোপালগঞ্জ স্বাস্থ্য বিভাগ

তীব্র গরমেও নিয়মিত ক্লাস করতে প্রস্তুত কে বি হাই স্কুলে

প্রকাশিত : ০৫:২৮:২০ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৯ এপ্রিল ২০২৪

চলমান তীব্র তাপদাহে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় হাই স্কুলের (কে.বি) শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় জুরুরি ব্যবস্থা নিয়েছেন কর্তৃপক্ষ। সরেজমিনে দেখা যায়, সশরীরে ক্লাসে আসা শিক্ষার্থীদের জন্য সার্বক্ষণিক ঠান্ডা পানির ব্যবস্থা, ক্লাস রুমে পর্যাপ্ত আলো বাতাসের ব্যবস্থা, ভবনগুলোতে সাদা রং করা, আশেপাশের ময়লা আবর্জনা পরিষ্কারসহ শিক্ষার্থীদের পর্যবেক্ষণে রয়েছে সিসি টিভির ব্যবস্থা। এছাড়া তীব্র গরমে শিক্ষার্থীদের স্বাভাবিক পাঠদানের জন্য ক্লাস শুরুর সময়টি এগিয়ে সকাল ৮ টায় করা হয়েছে।

স্কুলটির ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও বাকৃবির পশু প্রজনন ও কৌলিবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. এম.এ.এম. ইয়াহিয়া খন্দকার বলেন, ‘দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে প্রায় ১৫শ শিক্ষার্থীর এই স্কুলটির পরিবেশ ও শিক্ষার মান উন্নয়নে সবাইকে নিয়ে কাজ করছি। শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি, পাঠদান ও শারীরিক সুস্থ্যতা পর্যবেক্ষণে প্রতিটি ক্লাসরুমে সিসি টিভির আওতাভুক্ত করা হয়েছে। শিক্ষার্থীরা ক্লাসে পানির বোতল ও ছাতা সঙ্গে নিয়ে আসার জুরুরি নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া বৃক্ষের ছায়াতলে অভিভাবকদের বসার ব্যবস্থা করেছেন। ’

স্কুলের শিক্ষার্থীরা জানান, বর্তমান এই তীব্র গরমে স্বস্তিতে রয়েছেন তারা। মনোযোগ দিয়ে ক্লাস করতে পারছেন। অভিভাবক ও প্যারাসাইটোলজি বিভাগের অধ্যাপক ড. সহিদুজ্জামান জানান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটিতে এখন নিয়মিত ক্লাস হচ্ছে এবং গরমেও শিক্ষার্থীরা স্বস্তিতে আছে। প্রথমে সন্তানের শারীরিক সুস্থতা নিয়ে শঙ্কায় ছিলাম। তবে বর্তমান এই ব্যবস্থা দেখে এখন আর ভয় হচ্ছে না।

বিজনেস বাংলাদেশ/DS