১০:৩২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪

রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে জার্মানীকে হারিয়ে সেমিতে স্পেন

একটা কোয়ার্টার ফাইনাল ঠিক যেরকম হওয়া উচিত ছিল, সব উপকরণই মজুত ছিল স্টুটগার্টে ।

আক্রমণ-প্রতি আক্রমণে জমজমাট ম্যাচ। গোলশূন্য প্রথমার্ধ। কখনও গোলকিপার নিশ্চিত গোল বাঁচাচ্ছেন, তো কখনও পোস্টে ধাক্কা খেয়ে ফিরছে সুযোগ। দ্বিতীয়ার্ধে গোল করে এক দলের এগিয়ে যাওয়া। যখন ঘরের মাঠে আর এক দলের হার কার্যত নিশ্চিত, তখনই নাটকীয় প্রত্যাবর্তন। গোল করে সমতায় ফেরানো। ম্যাচ গড়াল অতিরিক্ত সময়ে। আবার যখন মনে হচ্ছে ম্যাচ গড়াচ্ছে টাইব্রেকারে, ঠিক সেই মাহেন্দ্রক্ষণেই গোলে ম্যাচের ফয়সালা। সঙ্গে ৪২ ফাউল, লাল কার্ড, কী নেই !

স্টুটগার্টে ইউরো কাপের কোয়ার্টার ফাইনালে জার্মানি বনাম স্পেন জমজমাট লড়াইয়ের শেষে সেমিফাইনালের টিকিট নিশ্চিত করল স্পেন। জার্মানিকে তাদের ঘরে মাঠে ২-১ গোলে হারালেন আলভারো মোরাতারা। পৌঁছে গেলেন সেমিফাইনালে।

খেলার ৮ মিনিটের মাথায় বড় ধাক্কা খায় স্পেন। চোট পেয়ে মাঠ ছাড়তে হয় পেদ্রিকে। বাধ্য হয়ে অনেক আগেই অলমোকে নামান স্পেনের কোচ লুইস ডে লা ফুয়েন্তে। তবে তা শাপে বর হয়। অলমো নামায় স্পেনের আক্রমণে অভিজ্ঞতা বাড়ে।

প্রথম থেকেই শারীরিক ফুটবল চলছিল। শুরুতে জার্মানির ফুটবলারেরা বেশ কয়েকটি কড়া ট্যাকল করেন। কিন্তু রেফারি শুরুতে খেলার ছন্দ খারাপ করতে চাননি। তার মাঝেই ২১ মিনিটের মাথায় ভাল সুযোগ পান জার্মানির কাই হাভার্ৎজ়। জোশুয়া কিমিকের ক্রস থেকে তাঁর হেডে বেশি গতি ছিল না। উনাই সিমোনের বাঁচাতে সমস্যা হয়নি।

দ্বিতীয়ার্ধে শুরু হওয়ার দু’মিনিটের মাথায় ভাল সুযোগ পান স্পেনের অধিনায়ক আলভারো মোরাতা। লেমিন ইয়ামালের পাস ধরে গোল করতে পারতেন তিনি। গোলরক্ষককে একা পেয়েও গোল করতে পারেননি তিনি। যদিও ৪ মিনিট পরেই জার্মানিকে ধাক্কা দেন অলমো। আবার ইয়ামাল ডান প্রান্ত ধরে উঠে বক্সে পাস বাড়ান। ডান পায়ের শটে গোল করেন অলমো। এগিয়ে যায় স্পেন।

গোল খাওয়ার পরে বদলে গেল জার্মানির খেলা। খোঁচা খাওয়া বাঘের মতো আক্রমণ শুরু করে তারা। ক্রুজ়কে আক্রমণে এগিয়ে দেন কোচ। নামান নিকলাস ফুলক্রুগ, ফ্লোরিয়ান উইর্ৎজ়দের। ফলে একের পর এক আক্রমণ ভেসে আসছিল স্পেনের বক্সে। কিছুটা রক্ষণাত্মক হয়ে পড়ে স্পেন।

৭০ মিনিটের মাথায় রবার্ট আন্দ্রিচের শট ভাল বাঁচান সিমোন। ৭৭ মিনিটের মাথায় বক্সের ভিতর থেকে ফুলক্রুগের শট পোস্টে লেগে ফেরে। কোনও ভাবেই স্পেনের গোলের মুখ খোলে যাচ্ছিল না। ৮২ মিনিটের মাথায় সিমোনকে এগিয়ে থাকতে সরাসরি গোল লক্ষ্য করে শট মারেন হাভার্ৎজ়। বল বারের একটু উপর দিয়ে বেরিয়ে যায়।

শেষ অস্ত্র হিসাবে টমাস মুলারকেও নামিয়ে দেন জার্মানির কোচ। লাগাতার আক্রমণের ফল পায় জার্মানি। ৮৯ মিনিটের মাথায় মিটেলস্টাডের ক্রস হেডে নামিয়ে দেন হাভার্ৎজ়। চলতি বলে ডান পায়ের শটে গোল করেন উইর্ৎজ়। পোস্টে লেগে বল জালে জড়িয়ে যায়। সমতা ফেরায় জার্মানি। খেলা গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে।

অতিরিক্ত সময়ের প্রথমার্ধেও আক্রমণাত্মক ফুটবল দু’দলের। দেখে বোঝা যাচ্ছিল, কোনও দলই টাইব্রেকারের কথা ভেবে খেলছে না। প্রথমার্ধে কোনও গোল না হলেও দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই বক্সের মধ্যে হাতে বল লাগে স্পেনের কুকুরেয়ার। পেনাল্টির আবেদন করে জার্মানি। কিন্তু কুকুরেয়া ইচ্ছাকৃত ভাবে হাতে বল লাগাননি। তাই রেফারি পেনাল্টি দেননি।

দু’দলের ফুটবলারেরাই নিজেদের ১০০ শতাংশ দেওয়ায় শেষ দিকে ক্লান্ত হয়ে পড়ছিলেন। বাধ্য হয়ে দু’দলের কোচই ছ’জন পরিবর্ত ফুটবলার নামান। আর কোনও তাস বাকি ছিল না তাঁদের হাতে। ১১৫ মিনিটের মাথায় কিমিকের শট ভাল বাঁচান সিমোন। খেলা ধীরে ধীরে টাইব্রেকারের দিকে এগোচ্ছিল। ঠিক তখনই স্পেনের জাদু। বাঁ প্রান্ত থেকে বল তোলেন অলমো। হেডে ন্যুয়েরকে পরাস্ত করেন মিকেল মেরিনো। গোলের ক্ষেত্রে জার্মানির ডিফেন্ডার রুডিগারের দোষ ছিল। নিজের জায়গায় ছিলেন না তিনি। ফলে ফাঁকায় হেড করেন মেরিনো।

আর ফিরতে পারেনি জার্মানি। একেবারে শেষ মুহূর্তে সমতা ফেরানোর সুযোগ পেয়েছিলেন ফুলক্রুগ। তাঁর হেড পোস্টের পাশ দিয়ে বেরিয়ে যায়। শেষ পর্যন্ত ঘরের মাঠে হেরে বিদায় নিতে হয় তাদের। খেলার শেষ মিনিটে লাল কার্ড দেখেন স্পেনের দানি কার্ভাহাল।

বিজনেস বাংলাদেশ/একে

রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে জার্মানীকে হারিয়ে সেমিতে স্পেন

প্রকাশিত : ১২:০৩:১৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ৬ জুলাই ২০২৪

একটা কোয়ার্টার ফাইনাল ঠিক যেরকম হওয়া উচিত ছিল, সব উপকরণই মজুত ছিল স্টুটগার্টে ।

আক্রমণ-প্রতি আক্রমণে জমজমাট ম্যাচ। গোলশূন্য প্রথমার্ধ। কখনও গোলকিপার নিশ্চিত গোল বাঁচাচ্ছেন, তো কখনও পোস্টে ধাক্কা খেয়ে ফিরছে সুযোগ। দ্বিতীয়ার্ধে গোল করে এক দলের এগিয়ে যাওয়া। যখন ঘরের মাঠে আর এক দলের হার কার্যত নিশ্চিত, তখনই নাটকীয় প্রত্যাবর্তন। গোল করে সমতায় ফেরানো। ম্যাচ গড়াল অতিরিক্ত সময়ে। আবার যখন মনে হচ্ছে ম্যাচ গড়াচ্ছে টাইব্রেকারে, ঠিক সেই মাহেন্দ্রক্ষণেই গোলে ম্যাচের ফয়সালা। সঙ্গে ৪২ ফাউল, লাল কার্ড, কী নেই !

স্টুটগার্টে ইউরো কাপের কোয়ার্টার ফাইনালে জার্মানি বনাম স্পেন জমজমাট লড়াইয়ের শেষে সেমিফাইনালের টিকিট নিশ্চিত করল স্পেন। জার্মানিকে তাদের ঘরে মাঠে ২-১ গোলে হারালেন আলভারো মোরাতারা। পৌঁছে গেলেন সেমিফাইনালে।

খেলার ৮ মিনিটের মাথায় বড় ধাক্কা খায় স্পেন। চোট পেয়ে মাঠ ছাড়তে হয় পেদ্রিকে। বাধ্য হয়ে অনেক আগেই অলমোকে নামান স্পেনের কোচ লুইস ডে লা ফুয়েন্তে। তবে তা শাপে বর হয়। অলমো নামায় স্পেনের আক্রমণে অভিজ্ঞতা বাড়ে।

প্রথম থেকেই শারীরিক ফুটবল চলছিল। শুরুতে জার্মানির ফুটবলারেরা বেশ কয়েকটি কড়া ট্যাকল করেন। কিন্তু রেফারি শুরুতে খেলার ছন্দ খারাপ করতে চাননি। তার মাঝেই ২১ মিনিটের মাথায় ভাল সুযোগ পান জার্মানির কাই হাভার্ৎজ়। জোশুয়া কিমিকের ক্রস থেকে তাঁর হেডে বেশি গতি ছিল না। উনাই সিমোনের বাঁচাতে সমস্যা হয়নি।

দ্বিতীয়ার্ধে শুরু হওয়ার দু’মিনিটের মাথায় ভাল সুযোগ পান স্পেনের অধিনায়ক আলভারো মোরাতা। লেমিন ইয়ামালের পাস ধরে গোল করতে পারতেন তিনি। গোলরক্ষককে একা পেয়েও গোল করতে পারেননি তিনি। যদিও ৪ মিনিট পরেই জার্মানিকে ধাক্কা দেন অলমো। আবার ইয়ামাল ডান প্রান্ত ধরে উঠে বক্সে পাস বাড়ান। ডান পায়ের শটে গোল করেন অলমো। এগিয়ে যায় স্পেন।

গোল খাওয়ার পরে বদলে গেল জার্মানির খেলা। খোঁচা খাওয়া বাঘের মতো আক্রমণ শুরু করে তারা। ক্রুজ়কে আক্রমণে এগিয়ে দেন কোচ। নামান নিকলাস ফুলক্রুগ, ফ্লোরিয়ান উইর্ৎজ়দের। ফলে একের পর এক আক্রমণ ভেসে আসছিল স্পেনের বক্সে। কিছুটা রক্ষণাত্মক হয়ে পড়ে স্পেন।

৭০ মিনিটের মাথায় রবার্ট আন্দ্রিচের শট ভাল বাঁচান সিমোন। ৭৭ মিনিটের মাথায় বক্সের ভিতর থেকে ফুলক্রুগের শট পোস্টে লেগে ফেরে। কোনও ভাবেই স্পেনের গোলের মুখ খোলে যাচ্ছিল না। ৮২ মিনিটের মাথায় সিমোনকে এগিয়ে থাকতে সরাসরি গোল লক্ষ্য করে শট মারেন হাভার্ৎজ়। বল বারের একটু উপর দিয়ে বেরিয়ে যায়।

শেষ অস্ত্র হিসাবে টমাস মুলারকেও নামিয়ে দেন জার্মানির কোচ। লাগাতার আক্রমণের ফল পায় জার্মানি। ৮৯ মিনিটের মাথায় মিটেলস্টাডের ক্রস হেডে নামিয়ে দেন হাভার্ৎজ়। চলতি বলে ডান পায়ের শটে গোল করেন উইর্ৎজ়। পোস্টে লেগে বল জালে জড়িয়ে যায়। সমতা ফেরায় জার্মানি। খেলা গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে।

অতিরিক্ত সময়ের প্রথমার্ধেও আক্রমণাত্মক ফুটবল দু’দলের। দেখে বোঝা যাচ্ছিল, কোনও দলই টাইব্রেকারের কথা ভেবে খেলছে না। প্রথমার্ধে কোনও গোল না হলেও দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই বক্সের মধ্যে হাতে বল লাগে স্পেনের কুকুরেয়ার। পেনাল্টির আবেদন করে জার্মানি। কিন্তু কুকুরেয়া ইচ্ছাকৃত ভাবে হাতে বল লাগাননি। তাই রেফারি পেনাল্টি দেননি।

দু’দলের ফুটবলারেরাই নিজেদের ১০০ শতাংশ দেওয়ায় শেষ দিকে ক্লান্ত হয়ে পড়ছিলেন। বাধ্য হয়ে দু’দলের কোচই ছ’জন পরিবর্ত ফুটবলার নামান। আর কোনও তাস বাকি ছিল না তাঁদের হাতে। ১১৫ মিনিটের মাথায় কিমিকের শট ভাল বাঁচান সিমোন। খেলা ধীরে ধীরে টাইব্রেকারের দিকে এগোচ্ছিল। ঠিক তখনই স্পেনের জাদু। বাঁ প্রান্ত থেকে বল তোলেন অলমো। হেডে ন্যুয়েরকে পরাস্ত করেন মিকেল মেরিনো। গোলের ক্ষেত্রে জার্মানির ডিফেন্ডার রুডিগারের দোষ ছিল। নিজের জায়গায় ছিলেন না তিনি। ফলে ফাঁকায় হেড করেন মেরিনো।

আর ফিরতে পারেনি জার্মানি। একেবারে শেষ মুহূর্তে সমতা ফেরানোর সুযোগ পেয়েছিলেন ফুলক্রুগ। তাঁর হেড পোস্টের পাশ দিয়ে বেরিয়ে যায়। শেষ পর্যন্ত ঘরের মাঠে হেরে বিদায় নিতে হয় তাদের। খেলার শেষ মিনিটে লাল কার্ড দেখেন স্পেনের দানি কার্ভাহাল।

বিজনেস বাংলাদেশ/একে