০৮:৪২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশীসহ ৪৪০ জন আটক

  • নিউজ ডেস্ক
  • প্রকাশিত : ১১:০৬:১৩ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৭
  • 177

মালয়েশিয়ার ৪৪০ জন অবৈধ অভিবাসীকে আটক করা হয়েছে। এদের মধ্যে বেশিরভাগই বাংলাদেশ, ভিয়েতনাম ও ইন্দোনেশিয়ার নাগরিক বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে।

মঙ্গলবার বিকেলে ইমিগ্রেশন বিভাগের নেতৃত্বে দেশটির কুয়ালালামপুরের জনপ্রিয় দুটি রাস্তায় ওই অভিযান চালানো হয়। অভিযানে এক হাজার অভিবাসীকে তল্লাশি করা হয়। তাদের মধ্যে ৪৪০ জন অবৈধ। তারা কাজের অনুমতির অপব্যবহার করেছেন এবং ভ্রমণ নথির মেয়াদও ছিল না। খবর নিউ স্ট্রেইট টাইমস’র।

ইমিগ্রেশন বিভাগের মহাপরিচালক দাতুক সেরি মুসতাফার আলি বলেছেন, জালান অ্যালোর ও জালান চ্যাংকটে অভিযানে ইমিগ্রেশন বিভাগ, পুলিশ জেনারেল অপারেশন ফোর্স ও কোম্পানি কমিশনের মোট ২৬৭ জন সদস্য অংশ নেন। তারা নয়শ ১৫ জন বিদেশিকে তল্লাশি করেন। তাদের মধ্যে চারশ ৪০ জন দেশটির ১৯৬৩ সালের অভিবাসন আইনের অপরাধ করেছেন।

আটকদের মধ্যে ৩৮৯ জন পুরুষ, ৪৭ জন নারী ও চারটি শিশু রয়েছে। তাদের মধ্যে বেশিরভাগই বাংলাদেশ, ভিয়েতনাম ও ইন্দোনেশিয়ার নাগরিক।

তারা যেসব অপরাধ করেছেন এর মধ্যে রয়েছে সময় শেষ হয়ে যাওয়ার পরও সেদেশে অবস্থান, কোনো বৈধ নথি না থাকা এবং কাজের অনুমতির অপব্যবহার।

মুসতাফার আলি বলেন, হয় কিছু স্থানীয় লোক অবৈধ অভিবাসীদের কাছে জায়গা ভাড়া দিয়েছে অথবা স্থানীয়রা অভিবাসীদের ভাড়া করেছে। এটাও অপরাধ। এজন্য যৌথ অভিযান চালানো হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, কিছু জায়গায় অভিবাসীদের প্রয়োজন পড়ে। কিন্তু বৈধভাবে যেতে হবে।

ট্যাগ :
জনপ্রিয়

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশীসহ ৪৪০ জন আটক

প্রকাশিত : ১১:০৬:১৩ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৭

মালয়েশিয়ার ৪৪০ জন অবৈধ অভিবাসীকে আটক করা হয়েছে। এদের মধ্যে বেশিরভাগই বাংলাদেশ, ভিয়েতনাম ও ইন্দোনেশিয়ার নাগরিক বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে।

মঙ্গলবার বিকেলে ইমিগ্রেশন বিভাগের নেতৃত্বে দেশটির কুয়ালালামপুরের জনপ্রিয় দুটি রাস্তায় ওই অভিযান চালানো হয়। অভিযানে এক হাজার অভিবাসীকে তল্লাশি করা হয়। তাদের মধ্যে ৪৪০ জন অবৈধ। তারা কাজের অনুমতির অপব্যবহার করেছেন এবং ভ্রমণ নথির মেয়াদও ছিল না। খবর নিউ স্ট্রেইট টাইমস’র।

ইমিগ্রেশন বিভাগের মহাপরিচালক দাতুক সেরি মুসতাফার আলি বলেছেন, জালান অ্যালোর ও জালান চ্যাংকটে অভিযানে ইমিগ্রেশন বিভাগ, পুলিশ জেনারেল অপারেশন ফোর্স ও কোম্পানি কমিশনের মোট ২৬৭ জন সদস্য অংশ নেন। তারা নয়শ ১৫ জন বিদেশিকে তল্লাশি করেন। তাদের মধ্যে চারশ ৪০ জন দেশটির ১৯৬৩ সালের অভিবাসন আইনের অপরাধ করেছেন।

আটকদের মধ্যে ৩৮৯ জন পুরুষ, ৪৭ জন নারী ও চারটি শিশু রয়েছে। তাদের মধ্যে বেশিরভাগই বাংলাদেশ, ভিয়েতনাম ও ইন্দোনেশিয়ার নাগরিক।

তারা যেসব অপরাধ করেছেন এর মধ্যে রয়েছে সময় শেষ হয়ে যাওয়ার পরও সেদেশে অবস্থান, কোনো বৈধ নথি না থাকা এবং কাজের অনুমতির অপব্যবহার।

মুসতাফার আলি বলেন, হয় কিছু স্থানীয় লোক অবৈধ অভিবাসীদের কাছে জায়গা ভাড়া দিয়েছে অথবা স্থানীয়রা অভিবাসীদের ভাড়া করেছে। এটাও অপরাধ। এজন্য যৌথ অভিযান চালানো হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, কিছু জায়গায় অভিবাসীদের প্রয়োজন পড়ে। কিন্তু বৈধভাবে যেতে হবে।