০৪:০৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

তাঁতিবাজার স্বর্ণ মার্কেট এলাকায় চুরির ঘটনায় চোরাইকৃত স্বর্ণ ও নগদ টাকা উদ্ধারে গ্রেফতার: ২

সাম্প্রতিক সময়ে ডিএমপি কোতয়ালী থানাধীন তাতিবাজারের নিউজিএস ম্যানুফ্যাকচারিং এর ম্যানেজার জয়ধর (৩৫)থানায় লিখিত অভিযোগ করেন যে, তার দোকানের কর্মচারী কমলেশ কীর্তনীয়া (২৩) গত ২৮ ফেব্রুয়ারি ২৪ ইং ৩৯.৯৯ ভরি স্বর্ণ নিযে পালিয়ে গিয়েছে। বাদীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে থানায় মামলা রুজু হলে কোতয়ালী থানার সাব-ইন্সপেক্টর (নিরস্ত্র) রাশিদুল হাসান তার সঙ্গীয় কোতয়ালী থানার অফিসার ও ফোর্সসহ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দিক নির্দেশনায় তথ্যপ্রযুক্তি সহায়তায় দেশের বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করিয়া আসামীদের অবস্থান সনাক্ত করে গত ২ এপ্রিল ২৪ ইং আসামী কমলেশ কীর্তনীয়া (২৩)’কে গ্রেফতার করেন এবং তাহার হেফাজত হইতে বাদীর চোরাইকৃত স্বর্ণের মধ্যে হইতে মোট ২২ ভরি স্বর্ণ উদ্ধার হয়। এছাড়া কোতয়ালী থানাধীন তাঁতী বাজার এলাকার জনৈক নাহিদুর রহমান কাকন অভিযোগ করেন যে, তার মালিকের দোকানের কর্মচারী সুজন আলী (৩৫) গত ২ মার্চ ২৪ ইং তার দোকান হতে নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার চুরি করে পালিয়ে গেছে। বর্ণিত বিষয়ে থানায় পৃথক একটি মামলা রুজু করা হলে উক্ত অফিসার ও ফোর্স একই প্রক্রিয়ায় স্বল্প সমযের মধ্যে উল্লেখিত আসামিদের গ্রেফতার করে এবং আসামিদের নিকট হতে বাদীর চোরই যাওয়া স্বর্ণ-বিক্রির নগদ টাকাসহ সর্বমোট ৪২,৬০,০০০/- টাকা উদ্ধার করেন। কোতয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) মাহফুজুর রহমান এর সার্বিক দিক নির্দেশনায় কোতয়ালী থানার ফোর্সের বিচক্ষণতায় ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সরাসরি তত্ত্বাবধানে স্বল্প সময়ের মধ্যে আসামীদের গ্রেফতার করা ও তাদের নিকট হতে স্বর্ণ ও টাকা উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে।

ট্যাগ :

তাঁতিবাজার স্বর্ণ মার্কেট এলাকায় চুরির ঘটনায় চোরাইকৃত স্বর্ণ ও নগদ টাকা উদ্ধারে গ্রেফতার: ২

প্রকাশিত : ০৭:৩৯:৩১ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪

সাম্প্রতিক সময়ে ডিএমপি কোতয়ালী থানাধীন তাতিবাজারের নিউজিএস ম্যানুফ্যাকচারিং এর ম্যানেজার জয়ধর (৩৫)থানায় লিখিত অভিযোগ করেন যে, তার দোকানের কর্মচারী কমলেশ কীর্তনীয়া (২৩) গত ২৮ ফেব্রুয়ারি ২৪ ইং ৩৯.৯৯ ভরি স্বর্ণ নিযে পালিয়ে গিয়েছে। বাদীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে থানায় মামলা রুজু হলে কোতয়ালী থানার সাব-ইন্সপেক্টর (নিরস্ত্র) রাশিদুল হাসান তার সঙ্গীয় কোতয়ালী থানার অফিসার ও ফোর্সসহ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দিক নির্দেশনায় তথ্যপ্রযুক্তি সহায়তায় দেশের বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করিয়া আসামীদের অবস্থান সনাক্ত করে গত ২ এপ্রিল ২৪ ইং আসামী কমলেশ কীর্তনীয়া (২৩)’কে গ্রেফতার করেন এবং তাহার হেফাজত হইতে বাদীর চোরাইকৃত স্বর্ণের মধ্যে হইতে মোট ২২ ভরি স্বর্ণ উদ্ধার হয়। এছাড়া কোতয়ালী থানাধীন তাঁতী বাজার এলাকার জনৈক নাহিদুর রহমান কাকন অভিযোগ করেন যে, তার মালিকের দোকানের কর্মচারী সুজন আলী (৩৫) গত ২ মার্চ ২৪ ইং তার দোকান হতে নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার চুরি করে পালিয়ে গেছে। বর্ণিত বিষয়ে থানায় পৃথক একটি মামলা রুজু করা হলে উক্ত অফিসার ও ফোর্স একই প্রক্রিয়ায় স্বল্প সমযের মধ্যে উল্লেখিত আসামিদের গ্রেফতার করে এবং আসামিদের নিকট হতে বাদীর চোরই যাওয়া স্বর্ণ-বিক্রির নগদ টাকাসহ সর্বমোট ৪২,৬০,০০০/- টাকা উদ্ধার করেন। কোতয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) মাহফুজুর রহমান এর সার্বিক দিক নির্দেশনায় কোতয়ালী থানার ফোর্সের বিচক্ষণতায় ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সরাসরি তত্ত্বাবধানে স্বল্প সময়ের মধ্যে আসামীদের গ্রেফতার করা ও তাদের নিকট হতে স্বর্ণ ও টাকা উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে।