ঢাকা রাত ২:৪১, সোমবার, ৮ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২৩শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

রায়পুরের অন্ধ মান্নানের অন্যরকম এক পেশা

অন্ধ আবদুল মান্নান (৩৫)। লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার কাজেরদিঘিরপাড়ের বাসিন্দা। বসবাস করেন ঝরাজীর্ণ। তবুও কারো বোঝা না হয়ে অন্যরকম এক পেশা তার। অন্ধ হলেও ভিক্ষা না করে হাত ও পা’কে কাজে লাগিয়ে শ্রম দিয়ে কাজ করেন তিনি। রায়পুর বাসটার্মিনাল এলাকায় সারারাত পরিবহন ধৌত করে উপার্জিত অর্থ দিয়ে চলছে তার সংসার। প্রতিবন্ধকতা তাকে আটকাতে পারেনি। এই ঘটনাকে সমাজের দৃষ্টান্ত হিসেবে দেখছেন সাধারণ মানুষ। সমাজসেবা অধিদপ্তর থেকে মান্নানকে অন্ধ ভাতা সহযোগিতা করেছেন। তার একটি ঘর ও চলার জন্য ডিজিটাল একটি লাঠি ও চিকিৎসার খরচের সহযোগিতা চান তিনি।

জানা গেছে, জন্ম থেকেই অন্ধ আবদুল মান্নান। পিতা ও মাতা নেই তার। বর্তমানে বামনী ও হামছাদি ইউপির কাজেরদিঘিরপাড় এলাকার আবদুল মান্নান। অন্ধের কারনে পড়াশোনা করা সম্ভব হয়নি। অভাব-অনটনের সংসারে বড় হয়েছেন মান্নান। কিন্তু তাতেও তিনি দমে যাননি। পিতার জায়গা-জমি না থাকায় পৈতৃিক বসতভিটাতেই ঝড়াজীর্ণ টিনের ঘরে বসবাস করে থাকেন তিনি। স্ত্রী, মাদরাসা পড়ুয়া এক ছেলে ও এক মেয়েকে নিয়ে সংসার তার।

নিজের দুই চোখ অন্ধ থাকলেও হাত ও পা’কে কাজে লাগিয়ে গত ৩০ বছর রায়পুর বাসটার্মিনাল এলাকায় বিভিন্ন পরিবহন ধৌত করে জীবিকা নির্বাহ করছেন। জীবিকার টানে বাড়ী থেকে ১০ কিঃমিঃ গাড়ি করে প্রতি সন্ধায় রায়পুর বাসটার্মিনাল এসে থেকে সকাল পর্যন্ত চলে পরিবহন ধৌতের কাজ। রাতে ঘুম আসলে এক চায়ের দোকানে ঘুমিয়ে পড়েন। অনেক ডাক্তার দেখিয়েছেন। অন্ধ চোখটিকেও ভালো করতে পারেনি। সরকারের সহযোগিতায় ভালো চিকিৎসা ও একটি ঘর পেলে তার পরিবার নিয়ে সুন্দর জীবন পার করার ইচ্ছা তার।

তিনি বলেন, আমার অন্ধ দুটি চোখের চিকিৎসা ও ঘর হলে সুবিধা হতো। ভিক্ষাবৃত্তিকে আমি ঘৃনা করি। কষ্ট হলেও সম্মান নিয়েই বেঁচে থাকবো।

রায়পুর বাসটার্মিনাল এলাকার মাইক্রো চালক নজির আহম্মদ বাবুল বলেন, প্রতিবন্ধী মান্নান চাইলে ভিক্ষা করতে পারতো। তিনি সেটা না করে সৎভাবে জীবন যাপন করছে। তিনি বেকার যুব সমাজের কাছে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

লক্ষ্মীপুর জেলা প্রশাসক মোঃ আনোয়ার হোসাইন আকন্দ বলেন, অন্ধ আবদুল মান্নান সম্পর্কে জানা নেই। তা মেধাকে সরকারী কাজে লাগানো হবে। প্রতিবন্ধী হিসেবে ভাতা পাচ্ছেন। এছাড়াও তাকে সরকার প্রদত্ত সব সুযোগ সুবিধা দেয়ার চেষ্টা করা হবে।

রায়পুর সমাজ সেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ শরিফ হোসেন বলেন, অন্ধ আবদুল মান্নান চাইলে জেলা সমাজসেব অধিদপ্তর তাকে স্বল্প সুদে ঋণের ব্যবস্থা করা হবে।

বিজনেস বাংলাদেশ/ এ আর

এ বিভাগের আরও সংবাদ