১০:১৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪

অবশেষে ভেঙেই গেল আর্টসেল

  • বিনোদন ডেস্ক
  • প্রকাশিত : ১১:৫০:০২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০১৮
  • 174

আর্টসেল হলো বাংদেশের রক ধারার অন্যতম জনপ্রিয় ব্যান্ড। অনেক আগে আগে থেকেই আশঙ্কা করা হয়েছিল এই ব্যান্ড ভেঙে যাবে। আর তারই ধারাবাহিকতায় গতকাল সোমবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ব্যান্ডের অন্যতম সদস্য লিংকন এ কথা জানায়। ব্যান্ডের সদস্যদের মধ্যে দ্বন্দ্ব, প্রায় সব বিষয়েই মতের অমিল, নিজেদের মধ্যে শ্রদ্ধার অভাব, একজনের প্রতি অন্যজনের অবিশ্বাস ও আস্থাহীনতা এর জন্য দায়ী।

লিংকন জানায়, ‘প্রিয় ভক্তবৃন্দ, আমরা (লিংকন, সাজু, সেজান) আর আর্টসেল ব্যান্ডে এরশাদের সঙ্গে কাজ করতে চাই না। আমরা আমাদের এই মতামত তাকে অফিশিয়ালি জানিয়ে দিয়েছি।’

তিনি আরও লিখেছেন, ‘এরশাদ আর্টসেলের ফেসবুক পেজ অবৈধভাবে তার দখলে রেখেছে এবং এই পেজের মাধ্যমে ক্রমাগত ভ্রান্তিমূলক ও মিথ্যা তথ্য দিয়ে সবাইকে বিভ্রান্ত এবং প্রতারিত করছে। তাই আমরা অনুরোধ করছি, আপনারা এই পেজের যেকোনো তথ্য প্রত্যাখ্যান করুন।’

এরশাদের ব্যাপারে ব্যান্ডের অন্য তিনজন সদস্যের অভিযোগ, ‘ব্যান্ডের প্রতি এরশাদের প্রতিশ্রুতির যথেষ্ট অভাব রয়েছে। সে ব্যান্ডের অন্য সদস্যদের ওপর নিজের আধিপত্য বিস্তার করে। এখানে কোনো ব্যান্ড লিডার নেই। আলোচনা করে সবাই সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু তার একচ্ছত্র আধিপত্যের কারণে আর্টসেলের স্বাভাবিক কার্যক্রম যথাযথভাবে পরিচালনা করা সম্ভব হয়নি।’

উল্লেখ্য, আর্টসেল তাদের তৃতীয় অ্যালবামের জন্য গ্রামীণফোন ও জি-সিরিজের সঙ্গে চুক্তি করেছে। কিন্তু এরশাদের কারণেই নাকি এই অ্যালবামের কাজ শেষ করা সম্ভব হয়নি।

চারদিকে কি হচ্ছে,সেইদিকে নজর না রেখে নিজের লক্ষ্যে পৌঁছাতে হবে

অবশেষে ভেঙেই গেল আর্টসেল

প্রকাশিত : ১১:৫০:০২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০১৮

আর্টসেল হলো বাংদেশের রক ধারার অন্যতম জনপ্রিয় ব্যান্ড। অনেক আগে আগে থেকেই আশঙ্কা করা হয়েছিল এই ব্যান্ড ভেঙে যাবে। আর তারই ধারাবাহিকতায় গতকাল সোমবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ব্যান্ডের অন্যতম সদস্য লিংকন এ কথা জানায়। ব্যান্ডের সদস্যদের মধ্যে দ্বন্দ্ব, প্রায় সব বিষয়েই মতের অমিল, নিজেদের মধ্যে শ্রদ্ধার অভাব, একজনের প্রতি অন্যজনের অবিশ্বাস ও আস্থাহীনতা এর জন্য দায়ী।

লিংকন জানায়, ‘প্রিয় ভক্তবৃন্দ, আমরা (লিংকন, সাজু, সেজান) আর আর্টসেল ব্যান্ডে এরশাদের সঙ্গে কাজ করতে চাই না। আমরা আমাদের এই মতামত তাকে অফিশিয়ালি জানিয়ে দিয়েছি।’

তিনি আরও লিখেছেন, ‘এরশাদ আর্টসেলের ফেসবুক পেজ অবৈধভাবে তার দখলে রেখেছে এবং এই পেজের মাধ্যমে ক্রমাগত ভ্রান্তিমূলক ও মিথ্যা তথ্য দিয়ে সবাইকে বিভ্রান্ত এবং প্রতারিত করছে। তাই আমরা অনুরোধ করছি, আপনারা এই পেজের যেকোনো তথ্য প্রত্যাখ্যান করুন।’

এরশাদের ব্যাপারে ব্যান্ডের অন্য তিনজন সদস্যের অভিযোগ, ‘ব্যান্ডের প্রতি এরশাদের প্রতিশ্রুতির যথেষ্ট অভাব রয়েছে। সে ব্যান্ডের অন্য সদস্যদের ওপর নিজের আধিপত্য বিস্তার করে। এখানে কোনো ব্যান্ড লিডার নেই। আলোচনা করে সবাই সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু তার একচ্ছত্র আধিপত্যের কারণে আর্টসেলের স্বাভাবিক কার্যক্রম যথাযথভাবে পরিচালনা করা সম্ভব হয়নি।’

উল্লেখ্য, আর্টসেল তাদের তৃতীয় অ্যালবামের জন্য গ্রামীণফোন ও জি-সিরিজের সঙ্গে চুক্তি করেছে। কিন্তু এরশাদের কারণেই নাকি এই অ্যালবামের কাজ শেষ করা সম্ভব হয়নি।