ঢাকা রাত ১১:৩৯, শুক্রবার, ৩রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ২০শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

করোনার টিকার চতুর্থ ডোজ ২০ ডিসেম্বর থেকে

আগামী ২০ ডিসেম্বর প্রথমবারের মতো শুরু হচ্ছে করোনাভাইরাসের টিকার চতুর্থ ডোজ দেওয়ার কার্যক্রম। কোনো ধরনের জটিলতা দেখা না দিলে নতুন বছরের প্রথম দিন (১ জানুয়ারি) থেকে সারা দেশে এ কার্যক্রম চালু হবে।

মঙ্গলবার (৬ ডিসেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সম্মেলন কক্ষে জরুরি সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানিয়েছেন অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আহমেদুর কবির।

 

তিনি বলেন, ষাটোর্ধ্ব ব্যক্তি, সম্মুখযোদ্ধা ও যাদের একাধিক জটিল রোগ আছে, তাদেরকে প্রথমে করোনার টিকার চতুর্থ ডোজ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বুধবার (৭ নভেম্বর) টিকার চলমান ক্যাম্পেইন শেষ হচ্ছে। তাই, এবার চতুর্থ ডোজ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমরা।

আহমেদুল কবির বলেন, ‘চতুর্থ ডোজ টিকা দেওয়ার জন্য স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নির্দেশনায় রাজধানীর সাতটি কেন্দ্র নির্ধারণ করা হয়েছে। এই সাতটি কেন্দ্র হচ্ছে—ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, মুগদা জেনারেল হাসপাতাল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ), শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতাল, সরকারি কর্মচারী হাসপাতাল, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল ও সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল।

পরীক্ষামূলকভাবে প্রতিটি কেন্দ্রে ১০০ জনকে চতুর্থ ডোজ টিকা দেওয়া হবে। এসএমএসের মাধ্যমে আগের দিন নির্দিষ্ট ব্যক্তিদের জানিয়ে দেওয়া হবে। পরীক্ষামূলকভাবে যাদেরকে টিকা দেওয়া হবে, তাদের দুই সপ্তাহ পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। কোনো ধরনের জটিলতা দেখা না দিলে ১ জানুয়ারি থেকে সারা দেশে এ কার্যক্রম শুরু হবে।

চতুর্থ ডোজ দেওয়ার কারণ উল্লেখ করে আহমেদুল কবির বলেন, টিকা নেওয়ার চার মাস পর সাধারণত অ্যান্টিবডির মাত্রা কমে যেতে থাকে। এছাড়া, সম্প্রতি বিভিন্ন দেশে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এ বিভাগের আরও সংবাদ