০৫:৫১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪

রাজশাহীর মৃত দুই বোন নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত ছিল না: আইইডিসিআরের পরিচালক

রাজশাহীতে মারা যাওয়া দুই বোন মুনতাহা মারিশা (২) ও মুফতাউল মাসিয়া (৫) নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত ছিল না। সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক ডা. তাহমিনা শিরীন আজ রোববার বিকেলে তথ্য নিশ্চিত করেন।

দুই বোনের মধ্যে ছোটটি মারিশা বুধবার বিকেলে হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যায়। বড় বোন মাসিয়ার মৃত্যু হয় গতকাল শনিবার। হঠাৎ করে দুই মেয়ের মৃত্যুর পর মা-বাবাকেও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। দুই শিশুর মৃত্যু নিপাহ ভাইরাসে না অন্য কোনো অজানা ভাইরাসে হয়েছে, তা নিশ্চিত করে চিকিৎসকেরা বলতে পারছিলেন না। এরপর তাদের নমুনা আইইডিসিআরে পাঠানো হয়।

আজ আইইডিসিআরের পরিচালক ডা. তাহমিনা শিরীন বলেন, ‘ওই দুই শিশুর নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। তারা নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত ছিল না।’
দুই শিশুর হঠাৎ মৃত্যু কোনো অজানা ভাইরাসে হয়েছে কি না, তা নিয়েও আলোচনা ছিল। আজ এ বিষয়ে প্রশ্ন করলে ডা. তাহমিনা শিরীন বলেন, ‘শুধু এটুকু বলতে পারি, নিপাহ ভাইরাসে তাদের মৃত্যু হয়নি। অন্য কোনো ভাইরাসে হয়েছে কি না, তা নির্ণয় করা হয়নি।’

দুই মেয়ে গৃহকর্মীর এনে দেওয়া বরই খেয়েছিল। গাছতলা থেকে কুড়িয়ে বরই এনে দিয়েছিলেন গৃহকর্মী।

দুই শিশুর বাবা মঞ্জুর হোসেন রাজশাহী ক্যাডেট কলেজের গণিত বিভাগের শিক্ষক। তাঁরা ক্যাডেট কলেজের কোয়ার্টারেই ছিলেন। ছোট মেয়ের মৃত্যুর পর গ্রামে ফিরে গিয়েছিলেন। তাঁদের বাড়ি রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলার চুনিয়াপাড়া গ্রামে।

গত বুধবার সকালে ছোট মেয়ে মারিশার জ্বর আসে। বিকেলে হাসপাতালে নেওয়ার পথেই মাইক্রোবাসে মারা যায়। মৃত্যুর পর মা-বাবা লক্ষ করেন, মারিশার গায়ে কালো ছোপ ছোপ দাগ উঠেছে। ওই দিন রাতেই তাকে দাফন করা হয়। এক দিন পর শুক্রবার বড় মেয়ে মাসিয়ার একই লক্ষণসহ জ্বর আসে। সে-ও ছোট বোনের মতো বমি করছিল আর ঘন ঘন পানি খাচ্ছিল। লক্ষণ বুঝতে পেরে মা-বাবা দেরি করেননি। রাজশাহীর সিএমএইচে ভর্তি করেন।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের (আইসিইউ) ইনচার্জ আবু হেনা মোস্তফা কামাল বলেন, দুই মেয়ে বরই খেয়েছিল। তিনি বাবাকে জিজ্ঞেস করেছিলেন, বরইগুলো ধুয়ে দেওয়া হয়েছিল কি না। তাদের বাবা বলেছেন, ‘গৃহকর্মী গাছতলা থেকে কুড়িয়ে এনে দিয়েছিল, ধোয়া হয়নি।’

বিজনেস বাংলাদেশ/বিএইচ

জনপ্রিয়

ইসরায়েলকে সতর্ক করল হোয়াইট হাউজ

রাজশাহীর মৃত দুই বোন নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত ছিল না: আইইডিসিআরের পরিচালক

প্রকাশিত : ০৮:০৫:১৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

রাজশাহীতে মারা যাওয়া দুই বোন মুনতাহা মারিশা (২) ও মুফতাউল মাসিয়া (৫) নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত ছিল না। সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক ডা. তাহমিনা শিরীন আজ রোববার বিকেলে তথ্য নিশ্চিত করেন।

দুই বোনের মধ্যে ছোটটি মারিশা বুধবার বিকেলে হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যায়। বড় বোন মাসিয়ার মৃত্যু হয় গতকাল শনিবার। হঠাৎ করে দুই মেয়ের মৃত্যুর পর মা-বাবাকেও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। দুই শিশুর মৃত্যু নিপাহ ভাইরাসে না অন্য কোনো অজানা ভাইরাসে হয়েছে, তা নিশ্চিত করে চিকিৎসকেরা বলতে পারছিলেন না। এরপর তাদের নমুনা আইইডিসিআরে পাঠানো হয়।

আজ আইইডিসিআরের পরিচালক ডা. তাহমিনা শিরীন বলেন, ‘ওই দুই শিশুর নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। তারা নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত ছিল না।’
দুই শিশুর হঠাৎ মৃত্যু কোনো অজানা ভাইরাসে হয়েছে কি না, তা নিয়েও আলোচনা ছিল। আজ এ বিষয়ে প্রশ্ন করলে ডা. তাহমিনা শিরীন বলেন, ‘শুধু এটুকু বলতে পারি, নিপাহ ভাইরাসে তাদের মৃত্যু হয়নি। অন্য কোনো ভাইরাসে হয়েছে কি না, তা নির্ণয় করা হয়নি।’

দুই মেয়ে গৃহকর্মীর এনে দেওয়া বরই খেয়েছিল। গাছতলা থেকে কুড়িয়ে বরই এনে দিয়েছিলেন গৃহকর্মী।

দুই শিশুর বাবা মঞ্জুর হোসেন রাজশাহী ক্যাডেট কলেজের গণিত বিভাগের শিক্ষক। তাঁরা ক্যাডেট কলেজের কোয়ার্টারেই ছিলেন। ছোট মেয়ের মৃত্যুর পর গ্রামে ফিরে গিয়েছিলেন। তাঁদের বাড়ি রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলার চুনিয়াপাড়া গ্রামে।

গত বুধবার সকালে ছোট মেয়ে মারিশার জ্বর আসে। বিকেলে হাসপাতালে নেওয়ার পথেই মাইক্রোবাসে মারা যায়। মৃত্যুর পর মা-বাবা লক্ষ করেন, মারিশার গায়ে কালো ছোপ ছোপ দাগ উঠেছে। ওই দিন রাতেই তাকে দাফন করা হয়। এক দিন পর শুক্রবার বড় মেয়ে মাসিয়ার একই লক্ষণসহ জ্বর আসে। সে-ও ছোট বোনের মতো বমি করছিল আর ঘন ঘন পানি খাচ্ছিল। লক্ষণ বুঝতে পেরে মা-বাবা দেরি করেননি। রাজশাহীর সিএমএইচে ভর্তি করেন।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের (আইসিইউ) ইনচার্জ আবু হেনা মোস্তফা কামাল বলেন, দুই মেয়ে বরই খেয়েছিল। তিনি বাবাকে জিজ্ঞেস করেছিলেন, বরইগুলো ধুয়ে দেওয়া হয়েছিল কি না। তাদের বাবা বলেছেন, ‘গৃহকর্মী গাছতলা থেকে কুড়িয়ে এনে দিয়েছিল, ধোয়া হয়নি।’

বিজনেস বাংলাদেশ/বিএইচ