০১:৩৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪

জবাইয়ের সময় পশুর যে রগগুলো কাটতে হয়

  • ধর্ম ডেস্ক
  • প্রকাশিত : ০১:১৭:২২ অপরাহ্ন, রবিবার, ৯ জুন ২০২৪
  • 25

গোশত মানুষের প্রিয় খাবার। ইসলামে প্রাণীর গোশত খাওয়া হালাল। তবে এক্ষেত্রে কিছু বিধি-নিষেধ রয়েছে ইসলামে। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তায়ালা বলেন,

حُرِّمَتْ عَلَيْكُمُ الْمَيْتَةُ وَالْدَّمُ وَلَحْمُ الْخِنْزِيرِ وَمَا أُهِلَّ لِغَيْرِ اللّهِ بِهِ وَالْمُنْخَنِقَةُ وَالْمَوْقُوذَةُ وَالْمُتَرَدِّيَةُ وَالنَّطِيحَةُ وَمَا أَكَلَ السَّبُعُ إِلاَّ مَا ذَكَّيْتُمْ وَمَا ذُبِحَ عَلَى النُّصُبِ وَأَن تَسْتَقْسِمُواْ بِالأَزْلاَمِ

অর্থ : তোমাদের জন্য হারাম করা হয়েছে, মৃত জন্তু গোশত, প্রবাহমান রক্ত, শুকুরের গোশত, আল্লাহ ভিন্ন অন্যের নামে জবাইকৃত প্রাণীর গোশত, শ্বাসরোধে মৃত জন্তু, আঘাতে মৃত জন্তু, পড়ে গিয়ে মৃত জন্তু, অন্য পশুর শিংয়ের আঘাতে মৃত জন্তু, হিংস্র পশুর খাওয়া জন্তু, তবে এ রকম প্রাণীকে যদি তোমরা মরার আগে জবাহ করে থাক এবং হারাম করা হয়েছে ওই পশু, যা পূজার বস্তুর কাছে জবাহ করা হয়। (সূরা মায়েদা, আয়াত : ৩)

এজন্য গোশত খাওয়ার ক্ষেত্রে মুসলমানদের অবশ্যই হালাল প্রাণীর গোশত খেতে হবে।

ইসলামে প্রাণীর গোশত খাওয়ার স্পষ্ট বিধান রয়েছে। তাই কোনো প্রাণীর গোশত খেতে চাইলে তা অবশ্যই ইসলামী বিধান অনুযায়ী হালাল পন্থায় জবাই করতে হবে।

প্রাণী জবাইয়ের আগে বিসমিল্লাহ পড়ে নিতে হবে। অন্যথায় সেই প্রাণীর গোশত খাওয়া বৈধ হবে না।

পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে,

وَلَا تَأْكُلُوا مِمَّا لَمْ يُذْكَرِ اسْمُ اللَّهِ عَلَيْهِ وَإِنَّهُ لَفِسْقٌ وَإِنَّ الشَّيَاطِينَ لَيُوحُونَ إِلَى أَوْلِيَائِهِمْ لِيُجَادِلُوكُمْ وَإِنْ أَطَعْتُمُوهُمْ إِنَّكُمْ لَمُشْرِكُونَ

অর্থ: আর তোমরা সেই পশু থেকে খেয়ো না যার ওপর আল্লাহর নাম নেয়া হয়নি, তা খাওয়া গুনাহ। নিশ্চয় শয়তানরা নিজ বন্ধুদের প্ররোচনা দেয়, যাতে ওরা তোমাদের সঙ্গে বিতর্ক করে। তোমরা যদি ওদের কথা মেনে নাও, তবে নিশ্চয় তোমরাও মুশরিক হয়ে যাবে। (সূরা আনআম, আয়াত : ১২১)

জবাইয়ের সময় প্রাণীর চারটি রগ ভালোভাবে কাটতে হবে। রগ চারটি হচ্ছে, শ্বাস নালী, খাদ্যনালী এবং শ্বাস নালীর দুই পার্শ্বের দুটি মোটা রগ।

ফিকাহবিদদের ঐকমত্যে জবাই করার সময় পশুর গলার এই চারটি রগ কাটতে হয়। তবে যদি চার রগের মধ্যে যেকোনো তিনটি রগ কাটা হয় তাহলেও সে পশু হালাল এবং তা খাওয়াও বৈধ বলে বিবেচিত হবে। এর কম কাটলে তা খাওয়া বৈধ হবে না। (ফতোয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত, ১১/১৮১, ফতোয়ায়ে কাজিখান, ৪/৩৪৬, বেহেশতি জেওর, ৩৭৫)

বিজনেস বাংলাদেশ/একে

জনপ্রিয়

জবাইয়ের সময় পশুর যে রগগুলো কাটতে হয়

প্রকাশিত : ০১:১৭:২২ অপরাহ্ন, রবিবার, ৯ জুন ২০২৪

গোশত মানুষের প্রিয় খাবার। ইসলামে প্রাণীর গোশত খাওয়া হালাল। তবে এক্ষেত্রে কিছু বিধি-নিষেধ রয়েছে ইসলামে। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তায়ালা বলেন,

حُرِّمَتْ عَلَيْكُمُ الْمَيْتَةُ وَالْدَّمُ وَلَحْمُ الْخِنْزِيرِ وَمَا أُهِلَّ لِغَيْرِ اللّهِ بِهِ وَالْمُنْخَنِقَةُ وَالْمَوْقُوذَةُ وَالْمُتَرَدِّيَةُ وَالنَّطِيحَةُ وَمَا أَكَلَ السَّبُعُ إِلاَّ مَا ذَكَّيْتُمْ وَمَا ذُبِحَ عَلَى النُّصُبِ وَأَن تَسْتَقْسِمُواْ بِالأَزْلاَمِ

অর্থ : তোমাদের জন্য হারাম করা হয়েছে, মৃত জন্তু গোশত, প্রবাহমান রক্ত, শুকুরের গোশত, আল্লাহ ভিন্ন অন্যের নামে জবাইকৃত প্রাণীর গোশত, শ্বাসরোধে মৃত জন্তু, আঘাতে মৃত জন্তু, পড়ে গিয়ে মৃত জন্তু, অন্য পশুর শিংয়ের আঘাতে মৃত জন্তু, হিংস্র পশুর খাওয়া জন্তু, তবে এ রকম প্রাণীকে যদি তোমরা মরার আগে জবাহ করে থাক এবং হারাম করা হয়েছে ওই পশু, যা পূজার বস্তুর কাছে জবাহ করা হয়। (সূরা মায়েদা, আয়াত : ৩)

এজন্য গোশত খাওয়ার ক্ষেত্রে মুসলমানদের অবশ্যই হালাল প্রাণীর গোশত খেতে হবে।

ইসলামে প্রাণীর গোশত খাওয়ার স্পষ্ট বিধান রয়েছে। তাই কোনো প্রাণীর গোশত খেতে চাইলে তা অবশ্যই ইসলামী বিধান অনুযায়ী হালাল পন্থায় জবাই করতে হবে।

প্রাণী জবাইয়ের আগে বিসমিল্লাহ পড়ে নিতে হবে। অন্যথায় সেই প্রাণীর গোশত খাওয়া বৈধ হবে না।

পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে,

وَلَا تَأْكُلُوا مِمَّا لَمْ يُذْكَرِ اسْمُ اللَّهِ عَلَيْهِ وَإِنَّهُ لَفِسْقٌ وَإِنَّ الشَّيَاطِينَ لَيُوحُونَ إِلَى أَوْلِيَائِهِمْ لِيُجَادِلُوكُمْ وَإِنْ أَطَعْتُمُوهُمْ إِنَّكُمْ لَمُشْرِكُونَ

অর্থ: আর তোমরা সেই পশু থেকে খেয়ো না যার ওপর আল্লাহর নাম নেয়া হয়নি, তা খাওয়া গুনাহ। নিশ্চয় শয়তানরা নিজ বন্ধুদের প্ররোচনা দেয়, যাতে ওরা তোমাদের সঙ্গে বিতর্ক করে। তোমরা যদি ওদের কথা মেনে নাও, তবে নিশ্চয় তোমরাও মুশরিক হয়ে যাবে। (সূরা আনআম, আয়াত : ১২১)

জবাইয়ের সময় প্রাণীর চারটি রগ ভালোভাবে কাটতে হবে। রগ চারটি হচ্ছে, শ্বাস নালী, খাদ্যনালী এবং শ্বাস নালীর দুই পার্শ্বের দুটি মোটা রগ।

ফিকাহবিদদের ঐকমত্যে জবাই করার সময় পশুর গলার এই চারটি রগ কাটতে হয়। তবে যদি চার রগের মধ্যে যেকোনো তিনটি রগ কাটা হয় তাহলেও সে পশু হালাল এবং তা খাওয়াও বৈধ বলে বিবেচিত হবে। এর কম কাটলে তা খাওয়া বৈধ হবে না। (ফতোয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত, ১১/১৮১, ফতোয়ায়ে কাজিখান, ৪/৩৪৬, বেহেশতি জেওর, ৩৭৫)

বিজনেস বাংলাদেশ/একে