০৫:১২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪

বিদ্যুৎস্পৃষ্টে হাত-পা হারানো যুবককে জেলা প্রশাসকের সহায়তা

নওগাঁর ধামইরহাটে বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়ে গুরুতর আহত জনি আকতার (২১) কে চিকিৎসার জন্য বিশেষ অনুদান হিসেবে ২৫ হাজার টাকা প্রদান করেছেন নওগাঁর জেলা প্রশাসক গোলাম মওলা।

জানা যায়, আহত জনি আকতার ধামইরহাট উপজেলার আগ্রাদ্বীগুণ ইউনিয়নের চক রামচন্দ্রপুর এলাকার ফেরদাউসের ছেলে। তিনি পেশায় পোশাক শ্রমিক।

গতকাল বুধবার (১০ জুলাই) দুপুরে আগ্রাদ্বীগুণ ইউনিয়নের চক রামচন্দ্রপুর এলাকায় ধামইরহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আসমা খাতুন উপস্থিত থেকে জনির পরিবারের সদস্যদের হাতে জেলা প্রশাসকের পক্ষে নগদ ২৫ হাজার টাকা তুলে দেন। অনুদান প্রদানের সময় স্থানীয় জন প্রতিনিধি ও গন্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

জনি আকতার জানান, বন্ধু রুবেলের কাছে ধারের সাড়ে সাত হাজার টাকা চাইতে গেলে তাকে টিভি ক্যাবলের সংযোগ মেরামতের জন্য বৈদ্যুতিক পিলারে তুলে দেয়। সংযোগ দেয়ার সময় বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়ে মারাত্মক আহত হন তিনি। অনেক চিকিৎসার পর নিরুপায় হয়ে তার বাম হাত ও বাম পা কেটে ফেলতে হয়।

এ ঘটনার পর থেকে চিকিৎসার খরচ মেটাতে গিয়ে বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় হয়েছে। হাত ও পা কেটে ফেলার পরও অর্থের অভাবে তার চিকিৎসা করতে পারছেন না পরিবার। বিষয়টি জেলা প্রশাসক গোলাম মওলা জানতে পেরে তিনি ওই যুবককে আর্থিক অনুদানের উদ্যোগ নেন।

বিজনেস বাংলাদেশ/ডিএস

ট্যাগ :

বিদ্যুৎস্পৃষ্টে হাত-পা হারানো যুবককে জেলা প্রশাসকের সহায়তা

প্রকাশিত : ০৪:৪০:১৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ জুলাই ২০২৪

নওগাঁর ধামইরহাটে বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়ে গুরুতর আহত জনি আকতার (২১) কে চিকিৎসার জন্য বিশেষ অনুদান হিসেবে ২৫ হাজার টাকা প্রদান করেছেন নওগাঁর জেলা প্রশাসক গোলাম মওলা।

জানা যায়, আহত জনি আকতার ধামইরহাট উপজেলার আগ্রাদ্বীগুণ ইউনিয়নের চক রামচন্দ্রপুর এলাকার ফেরদাউসের ছেলে। তিনি পেশায় পোশাক শ্রমিক।

গতকাল বুধবার (১০ জুলাই) দুপুরে আগ্রাদ্বীগুণ ইউনিয়নের চক রামচন্দ্রপুর এলাকায় ধামইরহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আসমা খাতুন উপস্থিত থেকে জনির পরিবারের সদস্যদের হাতে জেলা প্রশাসকের পক্ষে নগদ ২৫ হাজার টাকা তুলে দেন। অনুদান প্রদানের সময় স্থানীয় জন প্রতিনিধি ও গন্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

জনি আকতার জানান, বন্ধু রুবেলের কাছে ধারের সাড়ে সাত হাজার টাকা চাইতে গেলে তাকে টিভি ক্যাবলের সংযোগ মেরামতের জন্য বৈদ্যুতিক পিলারে তুলে দেয়। সংযোগ দেয়ার সময় বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়ে মারাত্মক আহত হন তিনি। অনেক চিকিৎসার পর নিরুপায় হয়ে তার বাম হাত ও বাম পা কেটে ফেলতে হয়।

এ ঘটনার পর থেকে চিকিৎসার খরচ মেটাতে গিয়ে বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় হয়েছে। হাত ও পা কেটে ফেলার পরও অর্থের অভাবে তার চিকিৎসা করতে পারছেন না পরিবার। বিষয়টি জেলা প্রশাসক গোলাম মওলা জানতে পেরে তিনি ওই যুবককে আর্থিক অনুদানের উদ্যোগ নেন।

বিজনেস বাংলাদেশ/ডিএস