০৩:২৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

যুদ্ধাপরাধ: ২৯ তম রায়ের অপেক্ষা

মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধ তথা ৭১’এ যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে আনা ২৯তম মামলার রায় ঘোষণা অপেক্ষমান রয়েছে। জামায়াত নেতা ও গাইবান্ধার প্রাক্তন সংসদ সদস্য আবুসালেহ মুহাম্মদ আব্দুল আজিজ মিয়া ওরফে ঘোড়া মারা আজিজসহ ছয় আসামির বিরুদ্ধে পুনরায় যুক্তিতর্কউপস্থাপন শেষে মামলাটি গত ২৩ অক্টোবর যে কোন দিন রায়ের(সিএভি) জন্য রাখা হয়েছে।

আন্তজার্তিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের নবনিযুক্ত চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বাধীন ৩ সদস্যেরবিচারিক প্যানেল এ আদেশ দেয়। বিচারিক প্যানেলের অপর দুইসদস্য হলেন-বিচারপতি আমির হোসেন ও অবসরোত্তর ছুটিতেথাকা ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৩ এর সাবেক বিশেষ জজ মো.আবু আহমেদ জমাদার। নবগঠিত এ ট্রাইব্যুনালে এটিই হবেপ্রথম রায়।

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের অন্যতম প্রসিকিউটরসৈয়দ হায়দার আলী শিগগিরইএ মামলার রায় ঘোষণা হতে পারে বলে আশাপ্রকাশ করেন। এ মামলার প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন বলেন, এ মামলার আসামীরা মুক্তিযুদ্ধের সময় ভয়ংকরঅপরাধ করেছে। আসামীদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগপ্রসিকিউশন প্রমান করতে সক্ষম হয়েছে দাবী করে তিনিবলেন, আসামীরা তাদের স্থানীয় এলাকাকে নেতৃত্ব শুন্য করতেমুক্তিযুদ্ধের পক্ষের ১৩ জন নির্বাচিত প্রতিনিধিসহ (চেয়ারম্যান-মেম্বার) মোট ১৪ জনকে নির্মমভাবে হত্যাকরাসহ বিভিন্ন মানবতদাবিরোধী অপরাধ সংগঠিত করেছেন।আসামীদের দৃষ্টান্তমূলক সর্বোচ্চ সাজার রায় হবে বলে আশা প্রকাশ করেন এ প্রসিকিউটর।

তিনি বলেন, গত ৯ মে এইমামলায় যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে ট্রাইব্যুনালের তৎকালীনচেয়ারম্যান বিচারপতি আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বাধীনবিচারিক প্যানেল রায়ের জন্য মামলাটি অপেক্ষামাণ রেখেছিলেন।

বিচারপতি আনোয়ারুল হক মৃত্যুবরণ করায় ট্রাইব্যুনালপুনর্গঠন করে গত ১১ অক্টোবর প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।নবগঠিত ট্রাইব্যুনালে মামলাটি পুনরায় যুক্তিতর্কউপস্থাপনের জন্য দিন ধার্য করে আদেশ দেয়। সে অনযায়ি পুনরায় যুক্তিতর্ক অনুষ্টিত হয়। এখন রায় ঘোষণার অপেক্ষা।এর আগে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে আনা আরো ২৮ মামলায় রায়ঘোষণা করেছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। রায়ে অপেক্ষায় থাকা মামলার আসামীদের মধ্যে রয়েছেন-জামায়াতের সাবেক এমপি আবু সালেহ মুহাম্মদ আব্দুল আজিজ মিয়া ওরফেঘোড়ামারা আজিজসহ ছয়জন।

অন্যান্য আসামিরা হলেন- মো.রুহুল আমিন ওরফে মঞ্জু (৬১), মো. আব্দুল লতিফ (৬১), আবুমুসলিম মোহাম্মদ আলী (৫৯), মো. নাজমুল হুদা (৬০) ও মো.আব্দুর রহিম মিঞা (৬২)। এ ছয়জনের মধ্যে মো. আব্দুল লতিফকারাগারে আছে, বাকী পাঁচজন পলাতক রয়েছে। আজিজসহ গাইবান্ধার ছয়জনের বিরুদ্ধে ২০১৫ সালের ২৭ডিসেম্বর আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করা হয়।

আব্দুল আজিজ মিয়া ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পযর্ন্ত বিএনপি নেতৃত্বধীন চারদলীয় জোটের অধীনে জামায়াত থেকে গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ-১ আসনে সংসদ সদস্য ছিলেন।

ট্যাগ :
জনপ্রিয়

যুদ্ধাপরাধ: ২৯ তম রায়ের অপেক্ষা

প্রকাশিত : ০৭:২৮:১১ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৭

মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধ তথা ৭১’এ যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে আনা ২৯তম মামলার রায় ঘোষণা অপেক্ষমান রয়েছে। জামায়াত নেতা ও গাইবান্ধার প্রাক্তন সংসদ সদস্য আবুসালেহ মুহাম্মদ আব্দুল আজিজ মিয়া ওরফে ঘোড়া মারা আজিজসহ ছয় আসামির বিরুদ্ধে পুনরায় যুক্তিতর্কউপস্থাপন শেষে মামলাটি গত ২৩ অক্টোবর যে কোন দিন রায়ের(সিএভি) জন্য রাখা হয়েছে।

আন্তজার্তিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের নবনিযুক্ত চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বাধীন ৩ সদস্যেরবিচারিক প্যানেল এ আদেশ দেয়। বিচারিক প্যানেলের অপর দুইসদস্য হলেন-বিচারপতি আমির হোসেন ও অবসরোত্তর ছুটিতেথাকা ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৩ এর সাবেক বিশেষ জজ মো.আবু আহমেদ জমাদার। নবগঠিত এ ট্রাইব্যুনালে এটিই হবেপ্রথম রায়।

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের অন্যতম প্রসিকিউটরসৈয়দ হায়দার আলী শিগগিরইএ মামলার রায় ঘোষণা হতে পারে বলে আশাপ্রকাশ করেন। এ মামলার প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন বলেন, এ মামলার আসামীরা মুক্তিযুদ্ধের সময় ভয়ংকরঅপরাধ করেছে। আসামীদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগপ্রসিকিউশন প্রমান করতে সক্ষম হয়েছে দাবী করে তিনিবলেন, আসামীরা তাদের স্থানীয় এলাকাকে নেতৃত্ব শুন্য করতেমুক্তিযুদ্ধের পক্ষের ১৩ জন নির্বাচিত প্রতিনিধিসহ (চেয়ারম্যান-মেম্বার) মোট ১৪ জনকে নির্মমভাবে হত্যাকরাসহ বিভিন্ন মানবতদাবিরোধী অপরাধ সংগঠিত করেছেন।আসামীদের দৃষ্টান্তমূলক সর্বোচ্চ সাজার রায় হবে বলে আশা প্রকাশ করেন এ প্রসিকিউটর।

তিনি বলেন, গত ৯ মে এইমামলায় যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে ট্রাইব্যুনালের তৎকালীনচেয়ারম্যান বিচারপতি আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বাধীনবিচারিক প্যানেল রায়ের জন্য মামলাটি অপেক্ষামাণ রেখেছিলেন।

বিচারপতি আনোয়ারুল হক মৃত্যুবরণ করায় ট্রাইব্যুনালপুনর্গঠন করে গত ১১ অক্টোবর প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।নবগঠিত ট্রাইব্যুনালে মামলাটি পুনরায় যুক্তিতর্কউপস্থাপনের জন্য দিন ধার্য করে আদেশ দেয়। সে অনযায়ি পুনরায় যুক্তিতর্ক অনুষ্টিত হয়। এখন রায় ঘোষণার অপেক্ষা।এর আগে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে আনা আরো ২৮ মামলায় রায়ঘোষণা করেছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। রায়ে অপেক্ষায় থাকা মামলার আসামীদের মধ্যে রয়েছেন-জামায়াতের সাবেক এমপি আবু সালেহ মুহাম্মদ আব্দুল আজিজ মিয়া ওরফেঘোড়ামারা আজিজসহ ছয়জন।

অন্যান্য আসামিরা হলেন- মো.রুহুল আমিন ওরফে মঞ্জু (৬১), মো. আব্দুল লতিফ (৬১), আবুমুসলিম মোহাম্মদ আলী (৫৯), মো. নাজমুল হুদা (৬০) ও মো.আব্দুর রহিম মিঞা (৬২)। এ ছয়জনের মধ্যে মো. আব্দুল লতিফকারাগারে আছে, বাকী পাঁচজন পলাতক রয়েছে। আজিজসহ গাইবান্ধার ছয়জনের বিরুদ্ধে ২০১৫ সালের ২৭ডিসেম্বর আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করা হয়।

আব্দুল আজিজ মিয়া ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পযর্ন্ত বিএনপি নেতৃত্বধীন চারদলীয় জোটের অধীনে জামায়াত থেকে গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ-১ আসনে সংসদ সদস্য ছিলেন।