ঢাকা দুপুর ১২:১০, মঙ্গলবার, ৭ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রাম বন্দরের বে-টার্মিনাল প্রকল্প বাস্তবায়নে জরুরি সভা

চট্টগ্রাম বন্দরের বে-টার্মিনাল প্রকল্প বাস্তবায়নে জরুরি এক সভার আয়োজন করা হয়েছে। এ সভায় কুনওয়া ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড কনসালটিং কোম্পানি লিমিটেড এবং ডিয়েনইয়াং ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি লিমিটেডের প্রতিনিধিরা অংশগ্রহণ করেন। বুধবার (২১ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টায় চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের শেখ ফজলুর রহমান মিলনায়তনে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় জানানো হয়, অর্থনীতির প্রবৃদ্ধির সাথে বাংলাদেশের জন্য আমদানি-রপ্তানির সুযোগ বিস্তৃত হচ্ছে। দেশের প্রধান সমুদ্রবন্দর হিসেবে চট্টগ্রাম বন্দর এ কারণে অগ্রণী ভূমিকা রাখছে। দেশের জিডিপি প্রায় ৭ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পেলেও চট্টগ্রাম বন্দরের কার্যক্রম, যা কার্গো, কন্টেইনার এবং জাহাজ পরিচালনা করে, ১৩ শতাংশের বেশি হারে বাড়ছে। বর্তমান প্রবৃদ্ধির হারের ভিত্তিতে চট্টগ্রাম বন্দরকে ২০২৬ সালের মধ্যে প্রায় ৪ দশমিক ৮ মিলিয়ন এবং ২০৪৩ সালের মধ্যে প্রায় ৭ দশমিক ৬ মিলিয়ন কনটেইনার পরিচালনা করতে হবে। ফলে টেকসই অর্থনৈতিক উন্নয়ন বজায় রাখতে চট্টগ্রাম বন্দরের সক্ষমতা প্রতিনিয়ত বাড়ানো হচ্ছে।

আরও জানানো হয়, বন্দরগুলোকে সংস্কার করে, দ্রুত বিকল্প বন্দর সুবিধা সম্প্রসারণ এবং গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামো নির্মাণের মাধ্যমে দেশের ক্রমবর্ধমান চাহিদা পূরণ করা অনুমেয়। বে টার্মিনাল প্রকল্পটি ভবিষ্যতের চাহিদা, সাইটের সুবিধা, যোগাযোগ ব্যবস্থা এবং সম্প্রসারণ ক্ষমতার উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে বাস্তবায়িত হয়।

প্রকল্পে তিনটি টার্মিনাল নির্মাণ অন্তর্ভুক্ত থাকবে। তিনটি টার্মিনালের মধ্যে একটি বন্দরের নিজস্ব খরচে নির্মাণ ও পরিচালনা করা হবে। প্রকল্পের অবশিষ্ট দুটি টার্মিনাল দক্ষ ও অভিজ্ঞ আন্তর্জাতিক টার্মিনাল অপারেটরদের অর্থায়নে নির্মাণ ও পরিচালনা করা হবে। এ সভায় চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল এম শাহজাহান, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনসহ বন্দর সংশ্লিষ্ট সংস্থার প্রতিনিধিদের নিরাপদ নগর গড়ার লক্ষ্যে নানা প্রশ্নের উত্তর দেন।

 

বিজনেস বাংলাদেশ/ হাবিব

এ বিভাগের আরও সংবাদ