ঢাকা সকাল ১১:৩২, শুক্রবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বগুড়ায় ধর্ষণের অভিযোগে পরীক্ষার্থী আটক

বগুড়ার শেরপুরে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে সাকলাইন খান ওরফে মাহমুদুল(১৯) কে আটক করেছে পুলিশ। ২৯ নভেম্বর মঙ্গলবার দুপুরে এইচএসসি পরীক্ষা শেষ হলে শেরপুর সরকারি কলেজ গেট থেকে তাকে আটক করা হয়। পরে ওই রাতেই ধর্ষিতার মা বাদি হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছে।

৩০ নভেম্বর সকালে এ বিষয়টি শেরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) আতাউর রহমান খোন্দকার নিশ্চিত করেছেন। আটক সাকলাইন খান উপজেলার সুঘাট ইউনিয়নের জয়লা আলাদী গ্রামের আব্দুর রাজ্জাক খানের ছেলে।
অভিযোগে জানা যায়, সাকলাইন খান ওরফে মাহমুদুল সামিট স্কুল এ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী গত আগস্ট মাসে খানপুর ইউনিয়নের শালফা টেকনিক্যাল স্কুল এ্যান্ড বিএম কলেজের নবম শ্রেণির ছাত্রীর পরিচয় হয়। এরপর তারা উভয়ে উপজেলার রনবীরবালা ঘাটপার এলাকার একটি রেস্টুরেন্টে নাস্তা করে। এক পর্যায়ে সাকলাইন মোবাইলে কথা বলার এক পর্যায়ে ওই ছাত্রী বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে আসতো।

উভয়ের মাঝে প্রেমের সম্পর্কের ফলে গত দুই মাস সাকলাইন কৌশলে ওই ছাত্রীর বাড়িতে যায় এবং আবারও বিয়ের প্রলোভন দিয়ে তাকে ধর্ষণ করে। পরে বিষয়টি জানাজানি হলে ওই ছাত্রীর মা থানায় একটি ধর্ষণের অভিযোগ দেয়। এ ঘটনার প্রেক্ষিতে শেরপুর থানা পুলিশের উপ-পুলিশ পরিদর্শক(এসআই) আব্দুস সালাম ২৯ নভেম্বর মঙ্গলবার দুপুরে শেরপুর সরকারি কলেজ কেন্দ্রের গেট থেকে অভিযুক্ত সাকলাইন খান ওরফে মাহমুদুল আটক করে থানা আনেন। তবে ওই সাকলাইন চলতি বছরে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করেছিল। এবং পরীক্ষা শেষে আটক করা হয়েছে বলে পুলিশের ওই এসআই দাবী করেন।

শেরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) মো. আতাউর রহমান খোন্দকার বলেন, মামলার প্রেক্ষিতে সাকলাইনকে আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। এছাড়াও ভিকটিমের মেডিকেল রিপোর্টের জন্য শজিমেক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

বিজনেস বাংলাদেশ/ হাবিব

 

এ বিভাগের আরও সংবাদ