ঢাকা সকাল ১১:৫২, মঙ্গলবার, ৭ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ময়মনসিংহে আওয়ামী লীগের সম্মেলন শনিবার

ময়মনসিংহ জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের শনিবারের সম্মেলনকে ঘিরে কমতি নেই আয়োজনের। থানা-উপজেলা, ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন থেকে শুরু করে সর্বত্র প্রচারণা শেষে এখন জনগণকে স্বতস্ফুর্তভাবে জনসভায় আনার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। প্রায় এক সপ্তাহ ধরে দিনরাত সমানতালে চলা মঞ্চ তৈরির কাজও শেষ হচ্ছে আজ।

জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা প্রায় প্রতিদিনই মাঠ পরিদর্শন করছেন। শেষ মুহুর্তের খুঁটিনাটি ভুলগুলো শুধরানোর চেষ্টা করছেন।  জনসভার জন্য এরই মধ্যে প্রায় প্রস্তুত নৌকার আদলে বিশাল মঞ্চ। ১২০ ফুট দৈর্ঘ্য ও ৮০ ফুট প্রস্থের মঞ্চ এখন দৃশ্যমান। যেখানে একসঙ্গে বসতে পারবেন দুই’শ অতিথি।

সবশেষ ২০১৬ সালের ৩০ এপ্রিল জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন হয়। পরে একই বছরের ১০ অক্টোবর অ্যাড. জহিরুল হক খোকাকে সভাপতি এবং অ্যাড. মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুলকে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক করা হয়। অপরদিকে মহানগর কমিটিতে এহতেশামুল আলম সভাপতি এবং মোহিত উর রহমান শান্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নাম ঘোষণা করা হয়।

বৃহস্পতিবার বিকালে সরেজমিনে সার্কিট হাউজ মাঠে গিয়ে দেখা যায়, সম্মেলনের জন্য জন্য মাঠের উত্তর পাশে নৌকার আদলে তৈরি করা হচ্ছে নান্দনিক ও দৃষ্টিনন্দন মঞ্চ। এটি তৈরিতে ব্যবহার করা হয়েছে মানসম্পন্ন উপকরণ। গত ২৬ নভেম্বর থেকে প্রায় অর্ধশত শ্রমিক এ মঞ্চ তৈরিতে কাজ করছেন।

মঞ্চের উপরে বিশাল আকৃতির একটি প্যানা টানানো হয়েছে। যেখানে ডানপাশে বঙ্গবন্ধুর ও বামপাশে দলীয় সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি রয়েছে। যেখানে শোভা পাচ্ছে বর্তমান সরকারের মেগাপ্রকল্পের উন্নয়নযজ্ঞের ফিরিস্তি।

 

এদিকে, সম্মেলনকে ঘিরে মাঠের চারপাশের গাছ-গাছালি ছাড়াও নগরের প্রতিটি সড়ক ব্যানার, ফেস্টুন ও পোস্টারে ছেয়ে গেছে। দলীয় সাধারণ সম্পাদকসহ ওবায়দুল কাদের ও কেন্দ্রীয় নেতাদের স্বাগত জানিয়ে এসব ব্যানার-ফেস্টুন-তোরণ টাঙানো হয়েছে। অনুসারীরাও নেতাদের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে ‘দেখতে চাই’ লেখাসংবলিত তোরণ-ফেস্টুন-পোস্টার সাঁটিয়েছেন।

জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আবু সাঈদ দীন ইসলাম ফখরুল বলেন, এই সম্মেলন সফল করতে আওয়ামীসহ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলো ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করে যাচ্ছে। নগরীতে এখন সাজসাজ রব উঠেছে। ইতিমধ্যে আমরা সব প্রস্তুতি আমরা সম্পন্ন করেছি। সম্মেলনস্থল সাজানোর কাজও শেষ পর্যায়ে। আশা করছি কয়েক লক্ষ লোকের সমাগম ঘটবে।

দলীয় সূত্র জানান, শনিবারের সম্মেলনে প্রধান অতিথি থাকবেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। সম্মেলন উদ্বোধন করবেন দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী। সম্মানিত অতিথি থাকবেন কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আবদুর রাজ্জাক। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য দেওয়ার কথা রয়েছে।

এদিকে সম্মেলনকে ঘিরে চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থায় সাড়ে ৫শ পুলিশ সদস্য থাকবে বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার মাছুম আহাম্মদ ভুঁঞা। তিনি আরও জানান, পুলিশের পাশাপাশি এপিবিএন সদস্যরাও থাকবে। ইতিমধ্যে পুলিশ হেডকোয়াটার্স থেকে এপিবিএন’র সদস্যদের নিয়ে আসা হয়েছে। গোটা সম্মেলনস্থলকে সিসি ক্যামেরার আওয়তায় আনা হয়েছে। থাকবে ওয়াচ টাওয়ার।

এ বিভাগের আরও সংবাদ