১০:৪০ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

সামরিক সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে বাংলাদেশ-তুরস্ক

বাংলাদেশ ও তুরস্কের মধ্যে সামরিক সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন তুরস্কের বিমান বাহিনীর চিফ অব স্টাফ লে. জেনারেল রাফেত ডালকিরান। মঙ্গলবার (২১ নভেম্বর) তুরস্কের রাজধানী আঙ্কাকারায় বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

দূতাবাস থেকে পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি রাফেত ডালকিরান তার বক্তব্যে সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষ্যে অভিনন্দন জানিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে তুরস্কের সামরিক সম্পর্কের বিষয়ে আলোচনা করেন ও বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর অগ্রযাত্রায় তুরস্কের সামরিক সহযোগিতা অব্যাহত থাকার বিষয়টি ব্যক্ত করেন।

তুরস্কে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এম আমানুল হক, দেশটিতে কর্মরত বিভিন্ন দেশের প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা, তুরস্ক সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা, কূটনৈতিক কোরের সদস্যরা, প্রতিরক্ষা শিল্পের প্রতিনিধি, শিক্ষাবিদ, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সদস্যরা, বাংলাদেশ দূতাবাসের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং উল্লেখযোগ্য সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশি উক্ত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন।

রাষ্ট্রদূত এম আমানুল হক তার বক্তব্যে ফোর্সেস গোল ২০৩০ এর আওতায় বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর আধুনিকায়নের বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে তুলে ধরেন। এর পর তিনি বৈশ্বিক শান্তি প্রতিষ্ঠায় জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর গুরুত্বপূর্ণ অবদান এবং তুরস্কের সঙ্গে বাংলাদেশের চলমান দ্বি-পাক্ষিক সামরিক গুরুত্বপূর্ণ সম্পর্কের বিষয়ে বিশদ আলোচনা করেন।

বিজনেস বাংলাদেশ/এস/আর

ট্যাগ :
জনপ্রিয়

সামরিক সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে বাংলাদেশ-তুরস্ক

প্রকাশিত : ১২:৪৯:৩৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ নভেম্বর ২০২৩

বাংলাদেশ ও তুরস্কের মধ্যে সামরিক সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন তুরস্কের বিমান বাহিনীর চিফ অব স্টাফ লে. জেনারেল রাফেত ডালকিরান। মঙ্গলবার (২১ নভেম্বর) তুরস্কের রাজধানী আঙ্কাকারায় বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

দূতাবাস থেকে পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি রাফেত ডালকিরান তার বক্তব্যে সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষ্যে অভিনন্দন জানিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে তুরস্কের সামরিক সম্পর্কের বিষয়ে আলোচনা করেন ও বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর অগ্রযাত্রায় তুরস্কের সামরিক সহযোগিতা অব্যাহত থাকার বিষয়টি ব্যক্ত করেন।

তুরস্কে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এম আমানুল হক, দেশটিতে কর্মরত বিভিন্ন দেশের প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা, তুরস্ক সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা, কূটনৈতিক কোরের সদস্যরা, প্রতিরক্ষা শিল্পের প্রতিনিধি, শিক্ষাবিদ, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সদস্যরা, বাংলাদেশ দূতাবাসের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং উল্লেখযোগ্য সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশি উক্ত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন।

রাষ্ট্রদূত এম আমানুল হক তার বক্তব্যে ফোর্সেস গোল ২০৩০ এর আওতায় বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর আধুনিকায়নের বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে তুলে ধরেন। এর পর তিনি বৈশ্বিক শান্তি প্রতিষ্ঠায় জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর গুরুত্বপূর্ণ অবদান এবং তুরস্কের সঙ্গে বাংলাদেশের চলমান দ্বি-পাক্ষিক সামরিক গুরুত্বপূর্ণ সম্পর্কের বিষয়ে বিশদ আলোচনা করেন।

বিজনেস বাংলাদেশ/এস/আর