১০:০৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪

বাঁশ দিয়ে শহিদ মিনার তৈরি করে রেংমিটচ্য শিশুদের শ্রদ্ধা

পুরো পাড়ায় নেই কোনও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। নেই শহিদ মিনারও। তবু ভাষা শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে বিরত থাকেনি রেংমিটচ্য শিশু, কিশোর ও তরুণরা। বাঁশ দিয়ে নিজেরাই তৈরি করেছে একটি শহিদ মিনার। আর তাতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছে তারা।

 

 

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে ব্যতিক্রমধর্মী বাঁশের এই শহিদ মিনারটি তৈরি হয়েছে বান্দরবান আলীকদম উপজেলার দুসরি তৈনফা মৌজার দুর্গম পাহাড়ের ক্রাংসি পাড়ায়।

মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যার পর অস্থায়ী শহিদ মিনারটি তৈরি করে ক্রাংসি পাড়ার কয়েকজন কিশোর ও তরুণ। রাত ১১টার দিকে শহিদ মিনার তৈরির কাজ শেষ হয়।

বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) সকালে নিজেদের তৈরি শহিদ মিনারে ফুল দিয়ে ভাষা শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানায় তারা।

রেংমিটচ্য ভাষার শিক্ষক চিংরা ম্রো বলেন, গতকাল সন্ধ্যা থেকে কুনওয়াই ম্রো, সামপু ম্রো ও মেলিং ম্রোসহ চারজন মিলে বাঁশ দিয়ে শহিদ মিনার তৈরি করেছে।

তিনি আরও বলেন, আজ সকালে পাড়াবাসীসহ রেংমিটচ্য ভাষী ২০ শিশু ও কিশোর শহিদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছে। বিভিন্ন পাহাড় থেকে ফুল সংগ্রহ করে মায়ের ভাষাকে শ্রদ্ধা জানাতে সকালে লাইন ধরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছে তারা।

ম্রো ভাষার লেখক ও গবেষক ইয়াংঙান ম্রো বলেন, পৃথিবীর প্রতিটি ভাষা বেঁচে থাকুক। ক্রাংসি পাড়ার বিলুপ্তপ্রায় রেংমিটচ্য ভাষী শিশুরা শহিদ মিনারে ফুল দিয়ে ভাষা শহিদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছে। প্রতিটি মায়ের ভাষার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে এই বাঁশের শহিদ মিনার তৈরি করা হয়েছে।

ট্যাগ :
জনপ্রিয়

ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে কর্মসংস্থান ব্যাংকের নবনিযুক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালকের শ্রদ্ধা জ্ঞাপন

বাঁশ দিয়ে শহিদ মিনার তৈরি করে রেংমিটচ্য শিশুদের শ্রদ্ধা

প্রকাশিত : ০২:০৫:৫৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

পুরো পাড়ায় নেই কোনও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। নেই শহিদ মিনারও। তবু ভাষা শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে বিরত থাকেনি রেংমিটচ্য শিশু, কিশোর ও তরুণরা। বাঁশ দিয়ে নিজেরাই তৈরি করেছে একটি শহিদ মিনার। আর তাতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছে তারা।

 

 

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে ব্যতিক্রমধর্মী বাঁশের এই শহিদ মিনারটি তৈরি হয়েছে বান্দরবান আলীকদম উপজেলার দুসরি তৈনফা মৌজার দুর্গম পাহাড়ের ক্রাংসি পাড়ায়।

মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যার পর অস্থায়ী শহিদ মিনারটি তৈরি করে ক্রাংসি পাড়ার কয়েকজন কিশোর ও তরুণ। রাত ১১টার দিকে শহিদ মিনার তৈরির কাজ শেষ হয়।

বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) সকালে নিজেদের তৈরি শহিদ মিনারে ফুল দিয়ে ভাষা শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানায় তারা।

রেংমিটচ্য ভাষার শিক্ষক চিংরা ম্রো বলেন, গতকাল সন্ধ্যা থেকে কুনওয়াই ম্রো, সামপু ম্রো ও মেলিং ম্রোসহ চারজন মিলে বাঁশ দিয়ে শহিদ মিনার তৈরি করেছে।

তিনি আরও বলেন, আজ সকালে পাড়াবাসীসহ রেংমিটচ্য ভাষী ২০ শিশু ও কিশোর শহিদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছে। বিভিন্ন পাহাড় থেকে ফুল সংগ্রহ করে মায়ের ভাষাকে শ্রদ্ধা জানাতে সকালে লাইন ধরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছে তারা।

ম্রো ভাষার লেখক ও গবেষক ইয়াংঙান ম্রো বলেন, পৃথিবীর প্রতিটি ভাষা বেঁচে থাকুক। ক্রাংসি পাড়ার বিলুপ্তপ্রায় রেংমিটচ্য ভাষী শিশুরা শহিদ মিনারে ফুল দিয়ে ভাষা শহিদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছে। প্রতিটি মায়ের ভাষার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে এই বাঁশের শহিদ মিনার তৈরি করা হয়েছে।