০১:২১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪

ইরানে হামলা, ইসফাহানকে কেন টার্গেট করল ইসরায়েল?

সিরিয়ার ইরানের কনস্যুলেট ভবনে ইসরায়েলের হামলায় বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা নিহত হয়েছিল (ফাইল ছবি)

ইরানে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল। পশ্চিম এশিয়ার এই দেশটির ইসফাহান শহরে বিস্ফোরণের শব্দও শোনা গেছে। প্রশ্ন উঠছে- ইসফাহান শহরটিকে কেন টার্গেট করল ইসরায়েল।

মূলত ইসফাহান শহরটি ইরানের ঠিক কেন্দ্রে অবস্থিত। এই শহরে পারমাণবিক স্থাপনাসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা রয়েছে।

শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) ভোরে ইরানে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইসরায়েল। এর আগে গত শনিবার রাতে ইসরায়েলে হামলা চালায় ইরান। ইরানের সেই হামলার জবাব দেওয়ার ঘোষণা ইসরায়েল আগেই দিয়েছিল এবং এরপর থেকে ইরান উচ্চ সতর্কতায় ছিল।

ইরানের আধা-সরকারি ফারস নিউজ এজেন্সি জানিয়েছে, শুক্রবার ভোরে ইরানের ইসফাহান শহরের উত্তর-পশ্চিমে একটি বিস্ফোরণের শব্দ শোনা গেছে। ফারস জানিয়েছে, শহরের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছে বিস্ফোরণটি ঘটেছে। তবে বিস্ফোরণের সম্ভাব্য কারণ সম্পর্কে কোনও ব্যাখ্যা দেয়নি এই নিউজ এজেন্সি।

প্রশ্ন উঠেছে, ইসরায়েল কেন ইসফাহানকে টার্গেট করতে চাইবে? সংবাদমাধ্যম বিবিসি বলছে, ইরানের এই শহরটিকে একটি কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ শহর হিসাবে বিবেচনা করা হয় এবং এখানে সামরিক গবেষণা ও উন্নয়নের স্থাপনা এবং সামরিক ঘাঁটিসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামো রয়েছে।

এছাড়া ইরানের ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ কর্মসূচির কেন্দ্রস্থল নাতাঞ্জসহ ইসফাহান প্রদেশে বেশ কয়েকটি ইরানি পারমাণবিক স্থাপনা অবস্থিত। এটি ইরানের সর্ববৃহৎ ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ কেন্দ্র।

আল জাজিরা বলছে, ইরানের রাজধানী তেহরানের দক্ষিণে প্রায় চার ঘণ্টার পথ বা ৩৫০ কিলোমিটার (২১৭ মাইল) দূরে অবস্থিত ইসফাহান শহরটি পারমাণবিক স্থাপনা এবং সামরিক বিমানঘাঁটির আবাসস্থল। এছাড়া এখানে ক্ষেপণাস্ত্র উৎপাদনের বিশাল কমপ্লেক্সও রয়েছে।

এদিকে ইসরায়েলের হামলার খবরের মধ্যে ইরান তাদের আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা সক্রিয় করেছে। ইরানের রাষ্ট্রীয় বার্তাসংস্থা বলছে, ইরান বেশ কয়েকটি প্রদেশে আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যাটারি নিক্ষেপ করেছে।

এদিকে ইরানের মহাকাশ সংস্থার একজন মুখপাত্রকে উদ্ধৃত করে আল জাজিরা আরবিতে বলা হয়েছে, ‘বেশ কয়েকটি ছোট ড্রোন’ নামিয়ে আনা হয়েছে। তবে এ বিষয়ে তিনি বিস্তারিত বলেননি।

উল্লেখ্য, গত শনিবার ইরান ইসরায়েলের ভূখণ্ড লক্ষ্য করে তিনশোর বেশি ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের পর থেকে ইসরায়েলের সরকার ইরানের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নেয়ার কথা বলে আসছিল।

ইরানের সেই হামলার জবাবেই ইসরায়েল এই ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালাল বলে মনে করা হচ্ছে।

বিজনেস বাংলাদেশ/একে

মেঘনা ধনাগোদা সেচ প্রকল্প বেড়ীবাঁধ সড়কে আবারও ছোট বড় গর্তের সৃষ্টি

ইরানে হামলা, ইসফাহানকে কেন টার্গেট করল ইসরায়েল?

প্রকাশিত : ১০:২৩:২৫ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪

ইরানে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল। পশ্চিম এশিয়ার এই দেশটির ইসফাহান শহরে বিস্ফোরণের শব্দও শোনা গেছে। প্রশ্ন উঠছে- ইসফাহান শহরটিকে কেন টার্গেট করল ইসরায়েল।

মূলত ইসফাহান শহরটি ইরানের ঠিক কেন্দ্রে অবস্থিত। এই শহরে পারমাণবিক স্থাপনাসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা রয়েছে।

শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) ভোরে ইরানে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইসরায়েল। এর আগে গত শনিবার রাতে ইসরায়েলে হামলা চালায় ইরান। ইরানের সেই হামলার জবাব দেওয়ার ঘোষণা ইসরায়েল আগেই দিয়েছিল এবং এরপর থেকে ইরান উচ্চ সতর্কতায় ছিল।

ইরানের আধা-সরকারি ফারস নিউজ এজেন্সি জানিয়েছে, শুক্রবার ভোরে ইরানের ইসফাহান শহরের উত্তর-পশ্চিমে একটি বিস্ফোরণের শব্দ শোনা গেছে। ফারস জানিয়েছে, শহরের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছে বিস্ফোরণটি ঘটেছে। তবে বিস্ফোরণের সম্ভাব্য কারণ সম্পর্কে কোনও ব্যাখ্যা দেয়নি এই নিউজ এজেন্সি।

প্রশ্ন উঠেছে, ইসরায়েল কেন ইসফাহানকে টার্গেট করতে চাইবে? সংবাদমাধ্যম বিবিসি বলছে, ইরানের এই শহরটিকে একটি কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ শহর হিসাবে বিবেচনা করা হয় এবং এখানে সামরিক গবেষণা ও উন্নয়নের স্থাপনা এবং সামরিক ঘাঁটিসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামো রয়েছে।

এছাড়া ইরানের ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ কর্মসূচির কেন্দ্রস্থল নাতাঞ্জসহ ইসফাহান প্রদেশে বেশ কয়েকটি ইরানি পারমাণবিক স্থাপনা অবস্থিত। এটি ইরানের সর্ববৃহৎ ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ কেন্দ্র।

আল জাজিরা বলছে, ইরানের রাজধানী তেহরানের দক্ষিণে প্রায় চার ঘণ্টার পথ বা ৩৫০ কিলোমিটার (২১৭ মাইল) দূরে অবস্থিত ইসফাহান শহরটি পারমাণবিক স্থাপনা এবং সামরিক বিমানঘাঁটির আবাসস্থল। এছাড়া এখানে ক্ষেপণাস্ত্র উৎপাদনের বিশাল কমপ্লেক্সও রয়েছে।

এদিকে ইসরায়েলের হামলার খবরের মধ্যে ইরান তাদের আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা সক্রিয় করেছে। ইরানের রাষ্ট্রীয় বার্তাসংস্থা বলছে, ইরান বেশ কয়েকটি প্রদেশে আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যাটারি নিক্ষেপ করেছে।

এদিকে ইরানের মহাকাশ সংস্থার একজন মুখপাত্রকে উদ্ধৃত করে আল জাজিরা আরবিতে বলা হয়েছে, ‘বেশ কয়েকটি ছোট ড্রোন’ নামিয়ে আনা হয়েছে। তবে এ বিষয়ে তিনি বিস্তারিত বলেননি।

উল্লেখ্য, গত শনিবার ইরান ইসরায়েলের ভূখণ্ড লক্ষ্য করে তিনশোর বেশি ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের পর থেকে ইসরায়েলের সরকার ইরানের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নেয়ার কথা বলে আসছিল।

ইরানের সেই হামলার জবাবেই ইসরায়েল এই ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালাল বলে মনে করা হচ্ছে।

বিজনেস বাংলাদেশ/একে