০৭:৪১ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪

উড়ন্ত হায়দরাবাদকে মাটিতে নামাল মোস্তাফিজের চেন্নাই

চলতি আইপিএলে শুরুটা দুর্দান্ত করলেও সবশেষ দুই ম্যাচে হারের তিতো স্বাদ পায় চেন্নাই সুপার কিংস। তবে নিজেদের নবম ম্যাচে উড়তে থাকা সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদকে ৭৮ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে চেন্নাই।

রোববার (২৮ এপ্রিল) আগে ব্যাট করতে নেমে রুতুরাজের ৯৮ রানের অনবদ্য ইনিংস আর মিচেলের ফিফটিতে ৩ উইকেট হারিয়ে হায়দ্রাবাদকে ২১৩ রানের লক্ষ্য দেয় চেন্নাই। জবাবে ব্যাট করতে নেমে চেন্নাইয়ের পেসারদের আগুনে বোলিং তোপে ৭ বল বাকি থাকতেই ১৩৪ রানেই গুটিয়ে যায় এবারের আইপিএলে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা দলটি।

বড় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুতেই হোঁচট খায় হায়দ্রাবাদ। দলীয় ৪০ রানেই ৩ উইকেট হারিয়ে বসে তারা। ৭ বলে ১৩ রান করে সাজঘরে ফেরেন ওপেনার ট্রাভিস হেড। এদিন ব্যাট হাতে আলো ছড়াতে পারেননি ইমপ্যাক্ট সাবে খেলতে নামা আনমোলপ্রিত সিং। দ্বিতীয় ওভারের শেষ বলে রানের খাতা খোলার আগেই ফেরেন তিনি।

৯ বলে ১৫ রান করে আউট হন আরেক ওপেনার অভিষেক শর্মাও। এরপর নিতিশ কুমারকে সঙ্গে নিয়ে রান তুলতে থাকেন এইডেন মারক্রাম। তবে ইনিংস বড় করতে পারেননি দুজনের কেউই। ১৫ বলে ১৫ রান করে নিতিশ আউট হলে ২৬ বলে ৩৬ রান করে তাকে সঙ্গ দেন মারক্রাম।

এরপর নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে হায়দ্রাবাদকে চেপে ধরেন মোস্তাফিজ-পাথিরানারা। কিন্তু আবদুল সামাদকে সঙ্গে নিয়ে লড়াই করতে থাকেন হেনরিক ক্লাসেন। তবে ইনিংস বড় করতে পারেননি তারা। ২১ বলে ২০ রান করে ক্লাসেন আউট হলে ১৮ বলে ১৯ রান করে তাকে সঙ্গ দেন আব্দুল সামাদ। শেষদিকে সামাদকে নিজের শিকার বানান শার্দুল ঠাকুর। এরপর আর লড়াইয়ে ফেরা হয়নি তাদের।

চেন্নাই সুপার কিংসের হয়ে সর্বোচ্চ তিন উইকেট শিকার করেন তুষার ডিশপান্ডে। এ ছাড়া মোস্তাফিজ ও পাথিরানা দুটি করে উইকেট পেয়েছেন।

এর আগে, টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি চেন্নাইয়ের। ১২ বলে ৯ রান করে সাজঘরে ফেরেন ওপেনার আজিঙ্কা রাহানে। এরপর ড্যারিল মিচেলকে সঙ্গে নিয়ে রান তুলতে থাকেন রুতুরাজ।

তাদের ব্যাটে ভর করে এগিয়ে যেতে থাকে চেন্নাই। ২৭ বলে ফিফটি তুলে নেন চেন্নাই দলপতি। অপরপ্রান্তে ২৯ বলে ফিফটি তুলে নেন মিচেল। এরপর ক্রিজে বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি কিউই এই ব্যাটার। ৩২ বলে ৫২ রান করে বাউন্ডারি লাইনে ধরা পড়েন তিনি।

অন্যপ্রান্ত আগলে রেখে রান তুলতে থাকেন গায়কোয়াড়। তবে সেঞ্চুরির দ্বারপ্রান্ত থেকে ফেরেন ডানহাতি এই ব্যাটার। ৫৪ বলে ৯৮ রান করে সাজঘরে ফেরেন তিনি।

শেষ পর্যন্ত ধোনির ২ বলে ৫ রান এবং শিভাম ডুবের ২০ বলে ৩৯ রানের ক্যামিওতে ভর করে ৩ উইকেটে ২১২ রানের পুঁজি পায় চেন্নাই।

বিজনেস বাংলাদেশ/একে

জনপ্রিয়

রাসেলস ভাইপার সাপ নিয়ে আতঙ্কিত না হওয়ার আহবান: গোপালগঞ্জ স্বাস্থ্য বিভাগ

উড়ন্ত হায়দরাবাদকে মাটিতে নামাল মোস্তাফিজের চেন্নাই

প্রকাশিত : ১১:৫৭:১৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৯ এপ্রিল ২০২৪

চলতি আইপিএলে শুরুটা দুর্দান্ত করলেও সবশেষ দুই ম্যাচে হারের তিতো স্বাদ পায় চেন্নাই সুপার কিংস। তবে নিজেদের নবম ম্যাচে উড়তে থাকা সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদকে ৭৮ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে চেন্নাই।

রোববার (২৮ এপ্রিল) আগে ব্যাট করতে নেমে রুতুরাজের ৯৮ রানের অনবদ্য ইনিংস আর মিচেলের ফিফটিতে ৩ উইকেট হারিয়ে হায়দ্রাবাদকে ২১৩ রানের লক্ষ্য দেয় চেন্নাই। জবাবে ব্যাট করতে নেমে চেন্নাইয়ের পেসারদের আগুনে বোলিং তোপে ৭ বল বাকি থাকতেই ১৩৪ রানেই গুটিয়ে যায় এবারের আইপিএলে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা দলটি।

বড় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুতেই হোঁচট খায় হায়দ্রাবাদ। দলীয় ৪০ রানেই ৩ উইকেট হারিয়ে বসে তারা। ৭ বলে ১৩ রান করে সাজঘরে ফেরেন ওপেনার ট্রাভিস হেড। এদিন ব্যাট হাতে আলো ছড়াতে পারেননি ইমপ্যাক্ট সাবে খেলতে নামা আনমোলপ্রিত সিং। দ্বিতীয় ওভারের শেষ বলে রানের খাতা খোলার আগেই ফেরেন তিনি।

৯ বলে ১৫ রান করে আউট হন আরেক ওপেনার অভিষেক শর্মাও। এরপর নিতিশ কুমারকে সঙ্গে নিয়ে রান তুলতে থাকেন এইডেন মারক্রাম। তবে ইনিংস বড় করতে পারেননি দুজনের কেউই। ১৫ বলে ১৫ রান করে নিতিশ আউট হলে ২৬ বলে ৩৬ রান করে তাকে সঙ্গ দেন মারক্রাম।

এরপর নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে হায়দ্রাবাদকে চেপে ধরেন মোস্তাফিজ-পাথিরানারা। কিন্তু আবদুল সামাদকে সঙ্গে নিয়ে লড়াই করতে থাকেন হেনরিক ক্লাসেন। তবে ইনিংস বড় করতে পারেননি তারা। ২১ বলে ২০ রান করে ক্লাসেন আউট হলে ১৮ বলে ১৯ রান করে তাকে সঙ্গ দেন আব্দুল সামাদ। শেষদিকে সামাদকে নিজের শিকার বানান শার্দুল ঠাকুর। এরপর আর লড়াইয়ে ফেরা হয়নি তাদের।

চেন্নাই সুপার কিংসের হয়ে সর্বোচ্চ তিন উইকেট শিকার করেন তুষার ডিশপান্ডে। এ ছাড়া মোস্তাফিজ ও পাথিরানা দুটি করে উইকেট পেয়েছেন।

এর আগে, টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি চেন্নাইয়ের। ১২ বলে ৯ রান করে সাজঘরে ফেরেন ওপেনার আজিঙ্কা রাহানে। এরপর ড্যারিল মিচেলকে সঙ্গে নিয়ে রান তুলতে থাকেন রুতুরাজ।

তাদের ব্যাটে ভর করে এগিয়ে যেতে থাকে চেন্নাই। ২৭ বলে ফিফটি তুলে নেন চেন্নাই দলপতি। অপরপ্রান্তে ২৯ বলে ফিফটি তুলে নেন মিচেল। এরপর ক্রিজে বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি কিউই এই ব্যাটার। ৩২ বলে ৫২ রান করে বাউন্ডারি লাইনে ধরা পড়েন তিনি।

অন্যপ্রান্ত আগলে রেখে রান তুলতে থাকেন গায়কোয়াড়। তবে সেঞ্চুরির দ্বারপ্রান্ত থেকে ফেরেন ডানহাতি এই ব্যাটার। ৫৪ বলে ৯৮ রান করে সাজঘরে ফেরেন তিনি।

শেষ পর্যন্ত ধোনির ২ বলে ৫ রান এবং শিভাম ডুবের ২০ বলে ৩৯ রানের ক্যামিওতে ভর করে ৩ উইকেটে ২১২ রানের পুঁজি পায় চেন্নাই।

বিজনেস বাংলাদেশ/একে