ঢাকা রাত ৩:২৬, শুক্রবার, ২৩শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ৭ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পাহাড়পুর বৌদ্ধ বিহার দেখতে আগ্রহ হারাচ্ছে দর্শনার্থীরা

এশিয়া মহাদেশের মধ্যে উন্নতম প্রাচীন প্রতœ নিদর্শন ঐতিহাসিক পাহাড়পুর বৌদ্ধ বিহার এখন নানা সমস্যায় জর্জরিত হয়ে পড়েছে। নওগাঁর বদলগাছী উপজেলায় অবস্থিত এই পাহাড়পুর বৌদ্ধ বিহার। করোনা সংক্রোমন রোধে দীর্ঘ ৬ মাস বন্ধ থাকার পর গত ১৬ই সেপ্টেম্বর পাহাড়পুর বৌদ্ধ বিহার দর্শনার্থীদের জন্য খুলে দেওয়া হয়। তারপরেও করোনার প্রভাব কেটে উঠতে পারেনি দর্শনার্থীরা। প্রতিদিন সকাল হলেই যেখানে হাজার হাজার দর্শনার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠতো এই বৌদ্ধ বিহার প্রাঙ্গন। এখন আর সেই ভীড় নেই।
কতৃপক্ষ জানায়, শুক্রবার এবং শনিবার পাঁচ থেকে ছয় শত দর্শনার্থী আসে। অনান্য দিন আরো কম। শুক্রবার তথ্য সংগ্রহকালে সকাল ১০টা থেকে ১২টার মধ্যে শতাধিক দর্শনার্থী ভিতরে প্রবেশ করে। তাঁদেও সাথে কথা বললে তারা জানালেন নানা সমস্যার কথা। মাদারীপুর থেকে রোমান ও তার বন্ধু দেখতে আসে পাহাড়পুর। সঙ্গে ছিলেন পাঁচ বিবির বন্ধু মাহমুদুল হাসান ও রূহুল আমীন তারা জানালেন দূর থেকে আসলাম এই বিহার দেখার জন্য এসে মনটা খারাপ হয়ে গেল। বৌদ্ধ বিহার দেখতে পেলাম না। পাহাড়ের উপরে উঠতে পারলাম না। উপরে উঠার জন্য যে সিঁড়ি রয়েছে তা ভাঙ্গা ও তাঁরকাঁটা দিয়ে ঘেড়া। দেখতে পেলামনা এসে লাভ কি।
ঝালকাঠি জেলার রাজপুর থেকে এসেছেন রিয়াজুল ইসলাম, চুয়াডাঙ্গা থেকে এসেছেন মোস্তাফিজুর রহমান। তারা জানান বই পুস্তকে পড়েছি পাহাড়পুর বৌদ্ধ বিহারের কথা এখন স্বচোক্ষে দেখতেছি অনেক ভাল লাগছে।
তবে এই পাহাড়পুরের যেটা মূল আকর্ষন বৌদ্ধ বিহার সেটা দেখতে পেলাম না কষ্ট থেকেই গেল মনে।
সরজমিনে দেখা যায়, পাহাড়পুর বৌদ্ধ বিহার প্রাঙ্গনটি নানা সমস্যায় জর্জরিত হয়ে পড়েছে। বিহার অবকাঠোমোতে পারাপারে যে কাঠের ব্রীজ রয়েছে তা ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। পাহাড়ে উঠতে গিয়ে দর্শনার্থীরা হোঁচট খেয়ে পড়ে যায়। বিহারের উত্তর দিকে ১টি ব্রীজ রয়েছে সেই ব্রীজের কাঠ পচে খুলে পড়ছে। দক্ষিন দিকে ১টি ব্রীজ রয়েছে তার অবস্থা একই রূপ। এছাড়া মেইন সমস্যা বিহার বা মন্দিরের উপরে উঠার জন্য যে কাঠের সিঁড়ি রয়েছে তা পচন ধরে খুলে খুলে পড়েছে জন্যই মারাত্মক ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়ায় সিঁড়ি তাঁরকাঁটা দিয়ে ঘেড়াও করে দুর্ঘটনার আশংকায় দর্শনার্থীদের উপরে উঠা নিষিদ্ধ করে রেখেছে কতৃপক্ষ। এতে ভ্রমন প্রিয়াসী দর্শনার্থীরা পাহাড়পুরে আসার আগ্রহ হারিয়ে ফেলছে।
দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীসহ সংগঠনের লোক জন পাহাড়পুর এসে বিরম্বনার শিকার হচ্ছে। এখানে গাড়ী পার্কিংয়ের জায়গা থাকলেও রান্না করে খাওয়ার জন্য জায়গা নেই। আগে ভিতরে ফাঁকা জায়গায় রান্না করতো দর্শনার্থীরা, এখন তা নিষিদ্ধ করেছে কতৃপক্ষ। ভিতরে দর্শনার্থীদের বসার ছাউনি ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। একটি ক্যানটিন নির্মান করা থাকলেও দীর্ঘদিনেও তা চালু করা হয়নি। বাইরের হোটেলগুলিতে খাবার পেলেও দাম বেশী ধরে। আগ্রহ নিয়ে আসার পরে নানা ভোগান্তির শিকার হয়ে দর্শনর্থীরা পাহাড়পুরে আসার আগ্রহ হারয়ি ফেলেছে।
এ বিষয়ে পাহাড়পুর ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান কিশোর জানায়, পাহাড়পুর সংস্কারের সময় ঠিকাদার যে কাজগুলি করেছে তা খুবই নিম্মমানের এবং অল্প সময়ের মধ্যে তা নষ্ট হয়ে যাওয়ায় দর্শনার্থীদের ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে পাহাড়পুর বৌদ্ধ বিহার কাস্টডিয়ান মোঃ ফজলুল করিম কোন কথা বলতে রাজি হয়নি।
এ বিষয়ে প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) মোঃ আব্দুল হান্নান মিয়া এর সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বললে তিনি জানান, পাহাড়পুরের সমস্যার কথা আমি জেনেছি কিন্তু এ মহুর্তে সমস্যা যদি সমাধান করি তাহলে যে ঠিকাদার এই নিম্মমানের  কাজ করেছে সে ধরাছোঁয়ার বাইরে যাবে। আমি ঠিকাদারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য চিঠি লেখেছি। নিম্মমানের কাজ করার জন্যে তার বিরুদ্ধে যেন একটা দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়। তবে দর্শনার্থীরা পাহাড়পুরে ঘুরতে এসে যদি সমস্যায় পড়ে তাহলে দর্শনার্থীদের সুবিধার্থে বিকল্প কোনো ব্যবস্থা নিতে হবে।

বিজনেস বাংলাদেশ/ইমরান মাসুদ

এ বিভাগের আরও সংবাদ