ঢাকা রাত ১০:২৫, শুক্রবার, ৩রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ২০শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সূচক বাড়লেও 

অপরিবর্তিত ৪৯% সিকিউরিটিজের দর

চলতি সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবস গতকাল পুঁজিবাজারে সূচক ও লেনদেনে ঊর্ধ্বমুখিতা পরিলক্ষিত হয়েছে। এদিন প্রধান পুঁজিবাজার ডিএসইর সব সূচক বাড়লেও এক্সচেঞ্জটির লেনদেনে অংশ নেয়া সিকিউরিটিজগুলোর মধ্যে ৪৯ শতাংশেরই দর অপরিবর্তিত রয়েছে। দেশের আরেক পুঁজিবাজার সিএসইতেও গতকাল সূচক বাড়ার পাশাপাশি বেশির ভাগ সিকিউরিটিজের দর অপরিবর্তিত রয়েছে।

বাজার বিশ্লেষকরা বলছেন, শারদীয় দুর্গা পূজা উপলক্ষে কিছু বিনিয়োগকারী গতকাল তাদের ধারণকৃত শেয়ার ছেড়ে দিয়েছেন। পাশাপাশি সুযোগসন্ধানী বিনিয়োগকারীরা দ্রুত মুনাফা লাভের আশায় সুনির্দিষ্ট কিছু খাতের শেয়ারে বিনিয়োগও করেছেন। এছাড়া সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক রেপোর হার কিছুটা বাড়ানো হয়েছে, সামনে সুদের হার সমন্বয় করা হতে পারে বলেও প্রত্যাশা করছেন বিনিয়োগকারীরা। এসব কারণে গতকাল লেনদেনের শেষের দিকে বিক্রয়চাপের কারণে শুরুর উত্থানে যোগ হওয়া কিছু পয়েন্ট পরবর্তী সময়ে হারাতে হয়েছে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, গতকাল সকাল সাড়ে ৯টায় লেনদেন শুরুর পর থেকেই সূচক ঊর্ধ্বমুখী ছিল। বেলা ১১টা ২৭ মিনিট পর্যন্ত সূচক ৪২ পয়েন্টের বেশি বাড়লেও শেষ ঘণ্টার শেয়ার বিক্রির চাপে তা ধরে রাখতে পারেনি। দিন শেষে ডিএসইর সার্বিক সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় ২৬ পয়েন্ট বেড়ে ৬ হাজার ৫৪৪ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। অন্য সূচকগুলোর মধ্যে ডিএসইর ব্লু-চিপ সূচক ডিএস-৩০ গতকাল ১৭ পয়েন্ট বেড়ে ২ হাজার ৩৪৩ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। শরিয়াহ সূচক ডিএসইএস গতকাল দিন শেষে ৮ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৪৩০ পয়েন্টে অবস্থান করছে। গতকাল সূচকের উত্থানে সবচেয়ে বেশি ভূমিকা ছিল বিকন ফার্মাসিউটিক্যালস, বিবিএস কেবলস, জিপিএইচ ইস্পাত, ওরিয়ন ইনফিউশন ও কেয়া কসমেটিকসের শেয়ারের।

ডিএসইতে গতকাল ১ হাজার ২৯০ কোটি টাকার সিকিউরিটিজ লেনদেন হয়েছে। যেখানে আগের কার্যদিবসে লেনদেন ছিল ১ হাজার ২৮৪ কোটি টাকা। গতকাল এক্সচেঞ্জটিতে লেনদেন হওয়া ৩৬৯টি কোম্পানি, মিউচুয়াল ফান্ড ও করপোরেট বন্ডের মধ্যে দিন শেষে দর বেড়েছে ৭৭টির বা ২০ দশমিক ৮৭ শতাংশের, কমেছে ১১২টির বা ৩০ দশমিক ৩৫ শতাংশের, আর অপরিবর্তিত রয়েছে ১৮০টি বা ৪৮ দশমিক ৭৮ শতাংশ সিকিউরিটিজের বাজারদর।

খাতভিত্তিক লেনদেনচিত্রে দেখা যায়, গতকাল ডিএসইর মোট লেনদেনের ২২ দশমিক ৩ শতাংশ দখলে নিয়ে শীর্ষে অবস্থান করছে ওষুধ ও রসায়ন খাত। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৬ দশমিক ৭ শতাংশ দখলে নিয়েছে বিবিধ খাত। ১৪ দশমিক ৩ শতাংশ লেনদেনের ভিত্তিতে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে প্রকৌশল খাত। গতকাল পুঁজিবাজারে পাট খাতে সবচেয়ে বেশি ৩ শতাংশ ইতিবাচক রিটার্ন এসেছে। অন্যদিকে সবচেয়ে বেশি নেতিবাচক রিটার্ন এসেছে সেবা ও আবাসন খাতে, ২ দশমিক ১ শতাংশ।

সিএসইর নির্বাচিত সূচক সিএসসিএক্স গতকাল ৫৫ পয়েন্ট বেড়ে ১১ হাজার ৫৬৩ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। সিএসইর সব শেয়ারের সূচক সিএএসপিআই গতকাল ৮৯ পয়েন্ট বেড়ে ১৯ হাজার ২৮৯ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। এদিন এক্সচেঞ্জটিতে লেনদেন হওয়া ২৩১টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৫৬টির, কমেছে ৮১টির আর অপরিবর্তিত ছিল ৯৪টির বাজারদর। গতকাল সিএসইতে ১৯ কোটি টাকার সিকিউরিটিজ হাতবদল হয়েছে, আগের কার্যদিবসে যা ছিল ২১ কোটি টাকা।

বিজনেস বাংলাদেশ/ হাবিব

এ বিভাগের আরও সংবাদ