০২:১২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪

রাজতন্ত্রের অমর্যাদা, ২৮ বছরের জেল

থাইল্যান্ডের একটি আদালত অনলাইন পোস্টে রাজতন্ত্রকে অবমাননা করার জন্য এক ব্যক্তিকে ২৮ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) ওই ব্যক্তির আইনজীবীর বরাত দিয়ে এ তথ্য জানায় এনডিটিভি।

প্রতিবেদনে বলা হয়, দেশটির রাজতন্ত্রের নিয়মগুলো বিশ্বের সবচেয়ে কঠোর। মানবাধিকার সংগঠনগুলো জানিয়েছে, জনমতকে দমন করার জন্য এসব আইনের অপব্যবহার করা হয়।

দেশটির উত্তরাঞ্চলীয় শহর চিয়াং রাইয়ের একটি আদালত ২৯ বছর বয়সী মনকোল তিরাকোটকে দুইটি পৃথক মানহানির মামলায় দোষী সাব্যস্ত করেছে। মংকোল একজন অনলাইন পোশাক খুচরা বিক্রেতা এবং মানবাধিকার কর্মী।

এএফপিকে তার আইনজীবী জানিয়েছেন, প্রথমে ওই ব্যক্তির সাজা ছিল ৪২ বছর কিন্তু আদালত তা কমিয়ে ২৮ বছর করে। মংকোল আপিল করতে চান এবং আদালত তাকে ৯ হাজার ১০০ জামিনে জামিন দেয়।

থাইল্যান্ডে রাজতন্ত্রের মানহানির অভিযোগে ১৫ বছর পর্যন্ত জেল হতে পারে। মংকোল গত বছরের থেকে অনলাইন পোস্টের জন্য তৃতীয়, পৃথক মানহানির অভিযোগের মুখোমুখি হয়েছে এবং মার্চ মাসে আদালতে ধার্য রয়েছে।

হিউম্যান রাইটস ওয়াচের জ্যেষ্ঠ গবেষক সুনাই ফাসুক জানিয়েছেন, রাজতন্ত্রের মানহানির জন্য থাই আদালত কর্তৃক প্রদত্ত ২৮ বছরের সাজা দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। ২০২১ সালে একটি থাই আদালত রাজতন্ত্রের অবমাননার জন্য একজন নারীকে রেকর্ড ৪৩ বছরের কারাদণ্ড দেয়।

আঞ্চনের শেষ নামটি মানবাধিকার আইনজীবীরা তার আত্মীয়দের সুরক্ষার জন্য গোপন করেছিলেন। তার সাজা ছিল মূলত ৮৭ বছর এবং এখন তিনি কারাগারে রয়েছেন।

দণ্ডবিধির ১১২ ধারাটি রাজতন্ত্রের কোনো সমালোচনা অন্তর্ভুক্ত করার জন্য ব্যাখ্যা করা হয়েছে, দৃশ্যত থাই রাজপরিবারকে মানহানি, অপমান বা হুমকি থেকে রক্ষা করার জন্য। বেশ কয়েক বছর ধরে থাইল্যান্ডের রাজপরিবারের বিরুদ্ধে মানহানির অভিযোগ রয়েছে।

গণতান্ত্রিক পরিবর্তন ও রাজতন্ত্রের সংস্কারের আহ্বান জানিয়ে যুবনেতৃত্বাধীন বিক্ষোভের কারণে ২০২০ সালে মামলার সংখ্যাও বেড়েছে। থাই মানবাধিকার আইনজীবীরা জানিয়েছেন, ২০২০ সালের নভেম্বর থেকে গণতন্ত্রপন্থী কর্মীদের বিরুদ্ধে ২০০টিরও বেশি মামলা হয়েছে।

বিজনেস বাংলাদেশ/ bh

ট্যাগ :
জনপ্রিয়

রাজতন্ত্রের অমর্যাদা, ২৮ বছরের জেল

প্রকাশিত : ০৪:১৮:৩৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২৩

থাইল্যান্ডের একটি আদালত অনলাইন পোস্টে রাজতন্ত্রকে অবমাননা করার জন্য এক ব্যক্তিকে ২৮ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) ওই ব্যক্তির আইনজীবীর বরাত দিয়ে এ তথ্য জানায় এনডিটিভি।

প্রতিবেদনে বলা হয়, দেশটির রাজতন্ত্রের নিয়মগুলো বিশ্বের সবচেয়ে কঠোর। মানবাধিকার সংগঠনগুলো জানিয়েছে, জনমতকে দমন করার জন্য এসব আইনের অপব্যবহার করা হয়।

দেশটির উত্তরাঞ্চলীয় শহর চিয়াং রাইয়ের একটি আদালত ২৯ বছর বয়সী মনকোল তিরাকোটকে দুইটি পৃথক মানহানির মামলায় দোষী সাব্যস্ত করেছে। মংকোল একজন অনলাইন পোশাক খুচরা বিক্রেতা এবং মানবাধিকার কর্মী।

এএফপিকে তার আইনজীবী জানিয়েছেন, প্রথমে ওই ব্যক্তির সাজা ছিল ৪২ বছর কিন্তু আদালত তা কমিয়ে ২৮ বছর করে। মংকোল আপিল করতে চান এবং আদালত তাকে ৯ হাজার ১০০ জামিনে জামিন দেয়।

থাইল্যান্ডে রাজতন্ত্রের মানহানির অভিযোগে ১৫ বছর পর্যন্ত জেল হতে পারে। মংকোল গত বছরের থেকে অনলাইন পোস্টের জন্য তৃতীয়, পৃথক মানহানির অভিযোগের মুখোমুখি হয়েছে এবং মার্চ মাসে আদালতে ধার্য রয়েছে।

হিউম্যান রাইটস ওয়াচের জ্যেষ্ঠ গবেষক সুনাই ফাসুক জানিয়েছেন, রাজতন্ত্রের মানহানির জন্য থাই আদালত কর্তৃক প্রদত্ত ২৮ বছরের সাজা দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। ২০২১ সালে একটি থাই আদালত রাজতন্ত্রের অবমাননার জন্য একজন নারীকে রেকর্ড ৪৩ বছরের কারাদণ্ড দেয়।

আঞ্চনের শেষ নামটি মানবাধিকার আইনজীবীরা তার আত্মীয়দের সুরক্ষার জন্য গোপন করেছিলেন। তার সাজা ছিল মূলত ৮৭ বছর এবং এখন তিনি কারাগারে রয়েছেন।

দণ্ডবিধির ১১২ ধারাটি রাজতন্ত্রের কোনো সমালোচনা অন্তর্ভুক্ত করার জন্য ব্যাখ্যা করা হয়েছে, দৃশ্যত থাই রাজপরিবারকে মানহানি, অপমান বা হুমকি থেকে রক্ষা করার জন্য। বেশ কয়েক বছর ধরে থাইল্যান্ডের রাজপরিবারের বিরুদ্ধে মানহানির অভিযোগ রয়েছে।

গণতান্ত্রিক পরিবর্তন ও রাজতন্ত্রের সংস্কারের আহ্বান জানিয়ে যুবনেতৃত্বাধীন বিক্ষোভের কারণে ২০২০ সালে মামলার সংখ্যাও বেড়েছে। থাই মানবাধিকার আইনজীবীরা জানিয়েছেন, ২০২০ সালের নভেম্বর থেকে গণতন্ত্রপন্থী কর্মীদের বিরুদ্ধে ২০০টিরও বেশি মামলা হয়েছে।

বিজনেস বাংলাদেশ/ bh