০৩:২৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪

‘বলিউডের ড্রিম গার্ল’ হেমা মালিনীর ৭৫তম জন্মদিন

বলিউডের ড্রিম গার্ল হেমা মালিনীর জন্মদিন আজ। ১৯৪৮ সালের এই দিনে এক তামিল পরিবারে তাঁর জন্ম হয়। বিখ্যাত সিনেমা ‘শোলে’র বাসন্তী তিনি! শুধু সিনেমার পর্দাতেই নয়, পরিচালনাতেও নিজের দক্ষতা প্রমাণ করেছিলেন হেমা মালিনী। আর তারপর বড় পর্দা থেকে সোজা রাজনীতির আঙিনায়। সেখানেও উজ্জ্বল হেমা।

তামিল সিনেমা দিয়ে ক্যারিয়ার শুরু করলেও বলিউডে ‘শোলে’, ‘সীতা ঔর গীতা’, ‘মিরা’, ‘কিনারা’, ‘সন্ন্যাসী’, ‘মেহবুবা’, ‘ড্রিম গার্ল’, ‘প্রেম নগর’, ‘খুশবু’র মতো ছবি দিয়ে তিনি বারবার নিজেকে প্রমাণ করতে থাকেন। অল্প সময়ে হয়ে ওঠেন সবার মনের ‘ড্রিম গার্ল’। মোট ১১ বার ফিল্ম ফেয়ার পুরস্কারে সেরা অভিনেত্রী হিসেবে মনোনয়ন পান হেমা। ২০০০ সালে তিনি লাভ করেন পদ্মশ্রী সম্মাননা।

বেশ কয়েক বছর সিনেমা থেকে বিরতি নেওয়ার পরে মালিনী বাগবানের (২০০৩) মাধ্যমে ফিরে আসেন, যার জন্য তিনি ফিল্মফেয়ারে সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কারের জন্য মনোনীত হন। তিনি ২০০৪ সালে নির্মিত ‘বীর-জারা’ ও ‘লাগা চুনারি মে দাগ’ সিনেমায় অতিথি চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন।

২০১০ সালে তিনি অভিনেত্রী রেখার সঙ্গে সাদিয়ানে অভিনয় করেছিলেন। ২০১১ সালে তিনি তাঁর তৃতীয় ফিচার ফিল্ম ‘টেল মি ও খুদা’ প্রযোজনা ও পরিচালনা করেছিলেন, এতে তাঁর স্বামী ধর্মেন্দ্র এবং তাঁর মেয়ে এশা দেওল উভয়ই অভিনয় করেছিলেন, যা বক্স অফিসে ব্যর্থ হয়েছিল। ২০১৭ সালে তিনি বিজয় রাজে সিন্ধিয়ার ভূমিকায় ‘এক থা রানী আইসি ভি’ সিনেমায় অভিনয় করেন।

বিজনেস বাংলাদেশ/একে

‘বলিউডের ড্রিম গার্ল’ হেমা মালিনীর ৭৫তম জন্মদিন

প্রকাশিত : ১২:৩০:৫৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৬ অক্টোবর ২০২৩

বলিউডের ড্রিম গার্ল হেমা মালিনীর জন্মদিন আজ। ১৯৪৮ সালের এই দিনে এক তামিল পরিবারে তাঁর জন্ম হয়। বিখ্যাত সিনেমা ‘শোলে’র বাসন্তী তিনি! শুধু সিনেমার পর্দাতেই নয়, পরিচালনাতেও নিজের দক্ষতা প্রমাণ করেছিলেন হেমা মালিনী। আর তারপর বড় পর্দা থেকে সোজা রাজনীতির আঙিনায়। সেখানেও উজ্জ্বল হেমা।

তামিল সিনেমা দিয়ে ক্যারিয়ার শুরু করলেও বলিউডে ‘শোলে’, ‘সীতা ঔর গীতা’, ‘মিরা’, ‘কিনারা’, ‘সন্ন্যাসী’, ‘মেহবুবা’, ‘ড্রিম গার্ল’, ‘প্রেম নগর’, ‘খুশবু’র মতো ছবি দিয়ে তিনি বারবার নিজেকে প্রমাণ করতে থাকেন। অল্প সময়ে হয়ে ওঠেন সবার মনের ‘ড্রিম গার্ল’। মোট ১১ বার ফিল্ম ফেয়ার পুরস্কারে সেরা অভিনেত্রী হিসেবে মনোনয়ন পান হেমা। ২০০০ সালে তিনি লাভ করেন পদ্মশ্রী সম্মাননা।

বেশ কয়েক বছর সিনেমা থেকে বিরতি নেওয়ার পরে মালিনী বাগবানের (২০০৩) মাধ্যমে ফিরে আসেন, যার জন্য তিনি ফিল্মফেয়ারে সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কারের জন্য মনোনীত হন। তিনি ২০০৪ সালে নির্মিত ‘বীর-জারা’ ও ‘লাগা চুনারি মে দাগ’ সিনেমায় অতিথি চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন।

২০১০ সালে তিনি অভিনেত্রী রেখার সঙ্গে সাদিয়ানে অভিনয় করেছিলেন। ২০১১ সালে তিনি তাঁর তৃতীয় ফিচার ফিল্ম ‘টেল মি ও খুদা’ প্রযোজনা ও পরিচালনা করেছিলেন, এতে তাঁর স্বামী ধর্মেন্দ্র এবং তাঁর মেয়ে এশা দেওল উভয়ই অভিনয় করেছিলেন, যা বক্স অফিসে ব্যর্থ হয়েছিল। ২০১৭ সালে তিনি বিজয় রাজে সিন্ধিয়ার ভূমিকায় ‘এক থা রানী আইসি ভি’ সিনেমায় অভিনয় করেন।

বিজনেস বাংলাদেশ/একে