০২:৫৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪

ইরানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে গ্রেপ্তার করতে চায় আর্জেন্টিনা

ইরানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আহমেদ ওয়াহিদীকে গ্রেপ্তার করতে চায় দক্ষিণ আমেরিকার দেশ আর্জেন্টিনা। ১৯৯৪ সালে একটি বোমা হামলার ঘটনায় পরিকল্পনাকারী হিসেবে তার গ্রেপ্তার চায় দেশটি।

এ লক্ষ্যে ইন্টারপোলকে নোটিশও জারি করতে বলেছে বুয়েনস আইরেস। এমনকি ওয়াহিদীকে গ্রেপ্তার করতে পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কাকেও আহ্বান জানিয়েছে আর্জেন্টিনা।

বুধবার (২৪ এপ্রিল) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আর্জেন্টিনা ইন্টারপোলকে ইরানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আহমেদ ওয়াহিদীর জন্য গ্রেপ্তারের নোটিশ জারি করতে বলেছে। আর্জেন্টিনার একটি আদালত ১৯৯৪ সালে বুয়েনস আইরেসের একটি ইহুদি সম্প্রদায় কেন্দ্রে হামলার জন্য ইরানকে দায়ী করার দুই সপ্তাহেরও কম সময়ের মধ্যে এই অনুরোধ জানানো হলো।

৩০ বছর আগের সেই হামলায় ৮৫ জন নিহত হয়েছিল।

বিবিসি বলছে, ইরানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আহমেদ ওয়াহিদী এই সপ্তাহের শুরুতে ইরানি প্রতিনিধি দলের অংশ হিসাবে পাকিস্তান সফরে গিয়েছিলেন। তিনদিনের সফর শেষ করে পরে তারা সেখান থেকে শ্রীলঙ্কায় গেছেন এবং ইরানি প্রতিনিধি দল এখন সেখানেই অবস্থান করছে।

আর্জেন্টিনা বলেছে, তারা এই দুই দেশকেও (পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কা) আহমেদ ওয়াহিদীকে আটক করতে বলেছে।

আর্জেন্টিনার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, ইন্টারপোল তথাকথিত ‘রেড নোটিশ’ জারি করেছে। যদিও রেড নোটিশ জারি করার অর্থ হচ্ছে সদস্য দেশগুলোর পুলিশকে আন্তর্জাতিকভাবে ওয়ান্টেড পলাতকদের সম্পর্কে সতর্ক করা। এটি কোনও গ্রেপ্তারি পরোয়ানা নয়।

এছাড়া যার জন্য রেড নোটিশ জারি করা হয়েছে তাকে গ্রেপ্তার করতে ইন্টারপোল কোনও দেশের পুলিশকে বাধ্যও করতে পারে না। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হবে কিনা তা সদস্য দেশের সিদ্ধান্তের ওপর নির্ভর করে।

বিবিসি বলছে, প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি-সহ ইরানি প্রতিনিধিদল বুধবার শ্রীলঙ্কায় পৌঁছেছেন। তবে, বার্তাসংস্থা এএফপি জানিয়েছে, শ্রীলঙ্কায় পৌঁছানোর পর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আহমেদ ওয়াহিদীকে প্রেসিডেন্টের সাথে যেতে দেখা যায়নি।

ইরানের সরকারি বার্তাসংস্থা জানিয়েছে, আহমেদ ওয়াহিদী মঙ্গলবার ইরানে ফিরে এসেছেন। তবে তাদের প্রতিবেদনে রেড নোটিশের কোনও উল্লেখ করা হয়নি।

আর্জেন্টিনার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, তারা ‘(ইসরায়েলি-আর্জেন্টিনা মিউচুয়াল অ্যাসোসিয়েশন কালচারাল সেন্টারে) হামলার জন্য দায়ীদের একজন’ হিসেবে আহমেদ ওয়াহিদীকে হাতে পেতে চায়।

আর্জেন্টিনা অবশ্য অতীতে ওয়াহিদীকে বোমা হামলার মূল পরিকল্পনাকারী হিসেবে অভিযুক্ত করেছে। ইরানের বর্তমান এই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হামলার সময় ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ড কর্পসের (আইআরজিসি) বিদেশি অপারেশন শাখার নেতৃত্বে ছিলেন।

বিবিসি বলছে, ১৯৯৪ সালে সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে বোমা হামলাটি ছিল আর্জেন্টিনার ইতিহাসে সবচেয়ে প্রাণঘাতী হামলা। বিস্ফোরণে ৮৫ জন নিহত এবং তিন শতাধিক মানুষ আহত হয়েছিল। ইরান অবশ্য সবসময়ই এই হামলার সঙ্গে কোনো সম্পৃক্ততা থাকার কথা অস্বীকার করেছে।

তবে গত ১১ এপ্রিল আর্জেন্টিনার কোর্ট অব ক্যাসেশন – দেশের সর্বোচ্চ ফৌজদারি আদালত – রায় দেয়, ইরান এই হামলার পরিকল্পনা করেছিল এবং ইরান-সমর্থিত গোষ্ঠী হিজবুল্লাহ হামলাটি চালিয়েছিল।

আদালত এই হামলাকে ‘মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ’ বলেও অভিহিত করেছেন। তবে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এই রায় প্রত্যাখ্যান করে বলেছে, আদালত ‘রাজনৈতিক লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যের’ জন্য ‘ভিত্তিহীন এবং অপ্রমাণিত দাবি’ করছে।

বিজনেস বাংলাদেশ/একে

ইরানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে গ্রেপ্তার করতে চায় আর্জেন্টিনা

প্রকাশিত : ০৯:১৬:৫৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪

ইরানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আহমেদ ওয়াহিদীকে গ্রেপ্তার করতে চায় দক্ষিণ আমেরিকার দেশ আর্জেন্টিনা। ১৯৯৪ সালে একটি বোমা হামলার ঘটনায় পরিকল্পনাকারী হিসেবে তার গ্রেপ্তার চায় দেশটি।

এ লক্ষ্যে ইন্টারপোলকে নোটিশও জারি করতে বলেছে বুয়েনস আইরেস। এমনকি ওয়াহিদীকে গ্রেপ্তার করতে পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কাকেও আহ্বান জানিয়েছে আর্জেন্টিনা।

বুধবার (২৪ এপ্রিল) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আর্জেন্টিনা ইন্টারপোলকে ইরানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আহমেদ ওয়াহিদীর জন্য গ্রেপ্তারের নোটিশ জারি করতে বলেছে। আর্জেন্টিনার একটি আদালত ১৯৯৪ সালে বুয়েনস আইরেসের একটি ইহুদি সম্প্রদায় কেন্দ্রে হামলার জন্য ইরানকে দায়ী করার দুই সপ্তাহেরও কম সময়ের মধ্যে এই অনুরোধ জানানো হলো।

৩০ বছর আগের সেই হামলায় ৮৫ জন নিহত হয়েছিল।

বিবিসি বলছে, ইরানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আহমেদ ওয়াহিদী এই সপ্তাহের শুরুতে ইরানি প্রতিনিধি দলের অংশ হিসাবে পাকিস্তান সফরে গিয়েছিলেন। তিনদিনের সফর শেষ করে পরে তারা সেখান থেকে শ্রীলঙ্কায় গেছেন এবং ইরানি প্রতিনিধি দল এখন সেখানেই অবস্থান করছে।

আর্জেন্টিনা বলেছে, তারা এই দুই দেশকেও (পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কা) আহমেদ ওয়াহিদীকে আটক করতে বলেছে।

আর্জেন্টিনার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, ইন্টারপোল তথাকথিত ‘রেড নোটিশ’ জারি করেছে। যদিও রেড নোটিশ জারি করার অর্থ হচ্ছে সদস্য দেশগুলোর পুলিশকে আন্তর্জাতিকভাবে ওয়ান্টেড পলাতকদের সম্পর্কে সতর্ক করা। এটি কোনও গ্রেপ্তারি পরোয়ানা নয়।

এছাড়া যার জন্য রেড নোটিশ জারি করা হয়েছে তাকে গ্রেপ্তার করতে ইন্টারপোল কোনও দেশের পুলিশকে বাধ্যও করতে পারে না। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হবে কিনা তা সদস্য দেশের সিদ্ধান্তের ওপর নির্ভর করে।

বিবিসি বলছে, প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি-সহ ইরানি প্রতিনিধিদল বুধবার শ্রীলঙ্কায় পৌঁছেছেন। তবে, বার্তাসংস্থা এএফপি জানিয়েছে, শ্রীলঙ্কায় পৌঁছানোর পর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আহমেদ ওয়াহিদীকে প্রেসিডেন্টের সাথে যেতে দেখা যায়নি।

ইরানের সরকারি বার্তাসংস্থা জানিয়েছে, আহমেদ ওয়াহিদী মঙ্গলবার ইরানে ফিরে এসেছেন। তবে তাদের প্রতিবেদনে রেড নোটিশের কোনও উল্লেখ করা হয়নি।

আর্জেন্টিনার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, তারা ‘(ইসরায়েলি-আর্জেন্টিনা মিউচুয়াল অ্যাসোসিয়েশন কালচারাল সেন্টারে) হামলার জন্য দায়ীদের একজন’ হিসেবে আহমেদ ওয়াহিদীকে হাতে পেতে চায়।

আর্জেন্টিনা অবশ্য অতীতে ওয়াহিদীকে বোমা হামলার মূল পরিকল্পনাকারী হিসেবে অভিযুক্ত করেছে। ইরানের বর্তমান এই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হামলার সময় ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ড কর্পসের (আইআরজিসি) বিদেশি অপারেশন শাখার নেতৃত্বে ছিলেন।

বিবিসি বলছে, ১৯৯৪ সালে সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে বোমা হামলাটি ছিল আর্জেন্টিনার ইতিহাসে সবচেয়ে প্রাণঘাতী হামলা। বিস্ফোরণে ৮৫ জন নিহত এবং তিন শতাধিক মানুষ আহত হয়েছিল। ইরান অবশ্য সবসময়ই এই হামলার সঙ্গে কোনো সম্পৃক্ততা থাকার কথা অস্বীকার করেছে।

তবে গত ১১ এপ্রিল আর্জেন্টিনার কোর্ট অব ক্যাসেশন – দেশের সর্বোচ্চ ফৌজদারি আদালত – রায় দেয়, ইরান এই হামলার পরিকল্পনা করেছিল এবং ইরান-সমর্থিত গোষ্ঠী হিজবুল্লাহ হামলাটি চালিয়েছিল।

আদালত এই হামলাকে ‘মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ’ বলেও অভিহিত করেছেন। তবে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এই রায় প্রত্যাখ্যান করে বলেছে, আদালত ‘রাজনৈতিক লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যের’ জন্য ‘ভিত্তিহীন এবং অপ্রমাণিত দাবি’ করছে।

বিজনেস বাংলাদেশ/একে