০৮:১৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪

পুষ্পা-২’ সিনেমার প্রথম বাংলা গানেই বাজিমাত

আসছে ১৫ আগস্ট মুক্তি পাচ্ছে আলোড়ন সৃষ্টি করা ‘পুষ্পা’ সিনেমার সিক্যুয়াল ‘পুষ্পা-২’। এটি মোট ছয়টি ভাষায় মুক্তি দেওয়া হবে বলে জানা গেছে। এরমধ্যে অন্যতম বাংলা ভাষা।

এবার সে সিনেমার প্রথম গান মুক্তি পেয়েছে। হিন্দির পাশাপাশি বাকি ভাষাগুলোতেও মুক্তি পেয়েছে গানটি। মুক্তির কিছুক্ষণের মধ্যেই ঝড়ের গতিতে নেটপাড়ায় ভাইরাল হয়েছে গানটি।

বাংলা ভার্সনটি গেয়েছেন ভারতের বাঙালি সংগীতশিল্পী তিমির বিশ্বাস। গানটি লিখেছেন শ্রীজাত। ‘পুষ্পা-২’ সিনেমার টাইটেল ট্র্যাক বাংলা ভার্সন করল বাজিমাত। হিন্দিতে গানটি গেয়েছেন মিকা সিং, নাকাশ আজিজ।

ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিমির বলেন, “পুষ্পার প্রোডাকশন হাউজ থেকে কল এসেছিল। তারা বলেন, ‘পুষ্পা-২’ মোট ছয়টি ভাষায় মুক্তি দিচ্ছে। বাংলা টাইটেল গানটি আমাকে দিয়ে করাতে চান। গানটি লিখেছেন শ্রীজাত দা। গানটি লেখার জন্য দু-তিনবার ওখানে গিয়েছিলেন। তখন শ্রীজাত দাকে ওনারা জিজ্ঞাসা করেন এই গানটি যদি বাংলায় কেউ গায় তাহলে আপনি কাকে সাজেস্ট করবেন। তখন উনি আমার কথা বলেন। তারপর ওনারা আমার গানগুলো নিয়ে রীতিমতো রিসার্চ করেন। আমার গলা কেমন সেটা ভালো করে পরখ করে নেন। রিসার্চের পর ওনাদের মনে হয় এই গানটার জন্য আমি পারফেক্ট চয়েজ হতে পারি। এরপর গানটা রেকর্ড করি”।

তিমির বলেন আরও বলেন, ‘আমাকে মুম্বাই গিয়ে গানটা রেকর্ড করতে বলা হয়েছিল। কিন্তু আমি সেই সময় একটা অ্যালবাম নিয়ে খুব ব্যস্ত ছিলাম। এপ্রিল মাসে আমার সমস্যা রয়েছে সেটা জানিয়েছিলাম। তখন ওনারাই কলকাতায় আসতে রাজি হন। মিউজিক ডিরেক্টরের সঙ্গে ভয়েস রেকর্ড করার যে অ্যাসিসটেন্ট থাকেন তারা এলেন। তারপর এখানে গানটা রেকর্ড হয়েছে। গানটা গাওয়ার পর বেশ ভালোই লাগছে। আমার পরিচিতির সীমাটা যেন আরও বেশ খানিকটা বেড়ে গিয়েছে।’।

গানটির শ্রোতা-দর্শক প্রত্যাশা নিয়ে তিমিরের ভাষ্য, ‘আমার গলা থেকে ঠিক কোন ভয়েস বা সুর চাইছেন সেই বিষয়ে একেবারে নিশ্চিত। কোনোরকম ট্রায়ালের বিষয় নেই। স্টুডিওতে এসে ওনারা আমাকে ভীষণ ভালোভাবে বুঝিয়ে ছিয়েছিলেন গানটাকে ঠিক কীভাবে পরিবেশন করতে চান। টেকনিক্যালি ভীষণ পারফেক্ট। আমার কোনো সমস্যা হয়নি গানটা রেকর্ড করতে। আমি যখন কোনো ডিরেক্টরের কথা শুনে কাজ করি তখন আমি তার দাস হয়ে যাই। অনেক কিছু শেখার সুযোগ থাকে। ‘পুষ্পা-২’ সিনেমার গানটি যদি মানুষ সত্যিই ভালোবাসে তাহলে খুব আনন্দ হবে। দেখা যাক শেষ পর্যন্ত কী হয়’।

বিজনেস বাংলাদেশ/DS

জনপ্রিয়

রাসেলস ভাইপার সাপ নিয়ে আতঙ্কিত না হওয়ার আহবান: গোপালগঞ্জ স্বাস্থ্য বিভাগ

পুষ্পা-২’ সিনেমার প্রথম বাংলা গানেই বাজিমাত

প্রকাশিত : ০৬:৫৯:৪৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩ মে ২০২৪

আসছে ১৫ আগস্ট মুক্তি পাচ্ছে আলোড়ন সৃষ্টি করা ‘পুষ্পা’ সিনেমার সিক্যুয়াল ‘পুষ্পা-২’। এটি মোট ছয়টি ভাষায় মুক্তি দেওয়া হবে বলে জানা গেছে। এরমধ্যে অন্যতম বাংলা ভাষা।

এবার সে সিনেমার প্রথম গান মুক্তি পেয়েছে। হিন্দির পাশাপাশি বাকি ভাষাগুলোতেও মুক্তি পেয়েছে গানটি। মুক্তির কিছুক্ষণের মধ্যেই ঝড়ের গতিতে নেটপাড়ায় ভাইরাল হয়েছে গানটি।

বাংলা ভার্সনটি গেয়েছেন ভারতের বাঙালি সংগীতশিল্পী তিমির বিশ্বাস। গানটি লিখেছেন শ্রীজাত। ‘পুষ্পা-২’ সিনেমার টাইটেল ট্র্যাক বাংলা ভার্সন করল বাজিমাত। হিন্দিতে গানটি গেয়েছেন মিকা সিং, নাকাশ আজিজ।

ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিমির বলেন, “পুষ্পার প্রোডাকশন হাউজ থেকে কল এসেছিল। তারা বলেন, ‘পুষ্পা-২’ মোট ছয়টি ভাষায় মুক্তি দিচ্ছে। বাংলা টাইটেল গানটি আমাকে দিয়ে করাতে চান। গানটি লিখেছেন শ্রীজাত দা। গানটি লেখার জন্য দু-তিনবার ওখানে গিয়েছিলেন। তখন শ্রীজাত দাকে ওনারা জিজ্ঞাসা করেন এই গানটি যদি বাংলায় কেউ গায় তাহলে আপনি কাকে সাজেস্ট করবেন। তখন উনি আমার কথা বলেন। তারপর ওনারা আমার গানগুলো নিয়ে রীতিমতো রিসার্চ করেন। আমার গলা কেমন সেটা ভালো করে পরখ করে নেন। রিসার্চের পর ওনাদের মনে হয় এই গানটার জন্য আমি পারফেক্ট চয়েজ হতে পারি। এরপর গানটা রেকর্ড করি”।

তিমির বলেন আরও বলেন, ‘আমাকে মুম্বাই গিয়ে গানটা রেকর্ড করতে বলা হয়েছিল। কিন্তু আমি সেই সময় একটা অ্যালবাম নিয়ে খুব ব্যস্ত ছিলাম। এপ্রিল মাসে আমার সমস্যা রয়েছে সেটা জানিয়েছিলাম। তখন ওনারাই কলকাতায় আসতে রাজি হন। মিউজিক ডিরেক্টরের সঙ্গে ভয়েস রেকর্ড করার যে অ্যাসিসটেন্ট থাকেন তারা এলেন। তারপর এখানে গানটা রেকর্ড হয়েছে। গানটা গাওয়ার পর বেশ ভালোই লাগছে। আমার পরিচিতির সীমাটা যেন আরও বেশ খানিকটা বেড়ে গিয়েছে।’।

গানটির শ্রোতা-দর্শক প্রত্যাশা নিয়ে তিমিরের ভাষ্য, ‘আমার গলা থেকে ঠিক কোন ভয়েস বা সুর চাইছেন সেই বিষয়ে একেবারে নিশ্চিত। কোনোরকম ট্রায়ালের বিষয় নেই। স্টুডিওতে এসে ওনারা আমাকে ভীষণ ভালোভাবে বুঝিয়ে ছিয়েছিলেন গানটাকে ঠিক কীভাবে পরিবেশন করতে চান। টেকনিক্যালি ভীষণ পারফেক্ট। আমার কোনো সমস্যা হয়নি গানটা রেকর্ড করতে। আমি যখন কোনো ডিরেক্টরের কথা শুনে কাজ করি তখন আমি তার দাস হয়ে যাই। অনেক কিছু শেখার সুযোগ থাকে। ‘পুষ্পা-২’ সিনেমার গানটি যদি মানুষ সত্যিই ভালোবাসে তাহলে খুব আনন্দ হবে। দেখা যাক শেষ পর্যন্ত কী হয়’।

বিজনেস বাংলাদেশ/DS