০৪:৩৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪

মোদিকে লাল গোলাপ উপহার কঙ্গনার!

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ‘রাম ও বিষ্ণু’র অংশ, এই স্তুতি আগেই শোনা গিয়েছে বিজেপি প্রার্থী কঙ্গনা রানাওয়াতের মুখে। নায়িকার মোদিভক্তি অবশ্য নতুন নয়, বিজেপির সঙ্গে আনুষ্ঠানিক গাঁটছড়া বাঁধার আগে থেকেই গেরুয়া শিবিরের প্রতি নিজের আনুগত্য জাহির করে এসেছেন অভিনেত্রী।

এবার লোকসভা নির্বাচনে ফ্রন্টফুটে খেলছেন অভিনেত্রী। তার হয়ে প্রচারে শুক্রবার মান্ডি সফরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। মোদির মান্ডি সফরের একাধিক ছবি ইনস্টাগ্রামে শেয়ার করেছেন কঙ্গনা রানাওয়াত। এদিন একমঞ্চে পাওয়া গেল মোদি ও কঙ্গনাকে। প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে লাল গোলাপ দিয়ে মান্ডিতে স্বাগত জানালেন কঙ্গনা।

এদিন হিমাচলি টুপি ও অফ হোয়াইট শাড়িতে দেখা মিলল পাহাড়ি কন্যার। প্রধানমন্ত্রীর মাথাতেও ছিল হিমাচলি টুপি। ছবির কঙ্গনা ক্যাপশনে লিখেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রীজি আমরা আপনাকে মান্ডিতে স্বাগত জানাই।

এদিন মোদি-কঙ্গনার যুগলবন্দি দেখতে জনসভায় ভিড় উপচে পড়েছিল। নির্বাচনে জয় নিয়ে আশাবাদী অভিনেত্রী।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মান্ডি সফরের আগে কঙ্গনা একটি জনসভায় ভাষণ দিয়েছিলেন, যেখানে তিনি প্রধানমন্ত্রী মোদির নেতৃত্বে কাজ করার সুযোগ দেওয়ার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছিলেন। দেশের উন্নয়নে মোদির কাজের প্রশংসাও করেন তিনি।

কঙ্গনা বলেন, ‘বলিউড যখন আমাকে বহিরাগত মনে করত এবং আমার ইংরেজি নিয়ে ঠাট্টা করত। তারপরে, বিশ্বের বৃহত্তম দল, ভারতীয় জনতা পার্টি এবং বিশ্বের বৃহত্তম নেতা, প্রধানমন্ত্রী মোদি মান্ডির মানুষের সেবা করার জন্য এবং তাদের কল্যাণে কাজ করার জন্য আমাকে বেছে নিয়েছেন। এই কাজের জন্য তারা বেছে নিয়েছেন এই পাহাড়ি কন্যাকে। এটা আমাকে গর্ব ও গৌরবে ভরিয়ে দেয়। হিমাচলের সমস্ত মহিলা ও নাগরিকদের পক্ষ থেকে আমাদের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সামনে শ্রদ্ধা নিবেদন করছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী মোদির নির্দেশনায় কাজ করার দিন এসেছে। মোদির প্রশংসা করা ঠিক যেন সূর্যকে মোমবাতি দেখানোর মতো। তিনি যে কারিগরি ও আধুনিক উন্নয়নমূলক কাজ করেছেন তা অসাধারণ। এখন আমি তার দলের অংশ এবং দলীয় কর্মী হিসেবে মান্ডির উন্নয়নমূলক কাজে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’

বক্তব্য শেষ করার সময় কঙ্গনা বছরের সেরা সাংসদ পুরস্কার জয়ের উচ্চাকাঙ্ক্ষা প্রকাশ করে বলেন, ‘বিজেপি এবং কংগ্রেস উভয় আমলে আমি আমার দক্ষতার ভিত্তিতে চারটি জাতীয় পুরস্কার জিতেছি। আমি আপনাদের আশ্বস্ত করছি, যদি আমি এই নির্বাচনে জয়ী হই, তাহলে প্রথম বছরেই আমি মান্ডিবাসীর জন্য বছরের সেরা সংসদ পুরস্কার নিয়ে আসব।’

কঙ্গনা আগেই ইঙ্গিত দিয়েছেন নির্বাচনে জয় পেলে অভিনয় কেরিয়ারে ইতি টানতে পারেন তিনি। আগামীতে কঙ্গনাকে পর্দায় দেখা যাবে ইন্দিরা গান্ধী রূপে। ইমার্জেন্সি ছবিতে দেশের একমাত্র মহিলা প্রধানমন্ত্রীর চরিত্রে অভিনয় করবেন কঙ্গনা, এই ছবির পরিচালকও তিনি। নির্বাচনের জন্যই মুক্তি পিছিয়েছে ইমার্জেন্সির।

বিজনেস বাংলাদেশ/একে

মোদিকে লাল গোলাপ উপহার কঙ্গনার!

প্রকাশিত : ১১:০৭:১৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ‘রাম ও বিষ্ণু’র অংশ, এই স্তুতি আগেই শোনা গিয়েছে বিজেপি প্রার্থী কঙ্গনা রানাওয়াতের মুখে। নায়িকার মোদিভক্তি অবশ্য নতুন নয়, বিজেপির সঙ্গে আনুষ্ঠানিক গাঁটছড়া বাঁধার আগে থেকেই গেরুয়া শিবিরের প্রতি নিজের আনুগত্য জাহির করে এসেছেন অভিনেত্রী।

এবার লোকসভা নির্বাচনে ফ্রন্টফুটে খেলছেন অভিনেত্রী। তার হয়ে প্রচারে শুক্রবার মান্ডি সফরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। মোদির মান্ডি সফরের একাধিক ছবি ইনস্টাগ্রামে শেয়ার করেছেন কঙ্গনা রানাওয়াত। এদিন একমঞ্চে পাওয়া গেল মোদি ও কঙ্গনাকে। প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে লাল গোলাপ দিয়ে মান্ডিতে স্বাগত জানালেন কঙ্গনা।

এদিন হিমাচলি টুপি ও অফ হোয়াইট শাড়িতে দেখা মিলল পাহাড়ি কন্যার। প্রধানমন্ত্রীর মাথাতেও ছিল হিমাচলি টুপি। ছবির কঙ্গনা ক্যাপশনে লিখেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রীজি আমরা আপনাকে মান্ডিতে স্বাগত জানাই।

এদিন মোদি-কঙ্গনার যুগলবন্দি দেখতে জনসভায় ভিড় উপচে পড়েছিল। নির্বাচনে জয় নিয়ে আশাবাদী অভিনেত্রী।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মান্ডি সফরের আগে কঙ্গনা একটি জনসভায় ভাষণ দিয়েছিলেন, যেখানে তিনি প্রধানমন্ত্রী মোদির নেতৃত্বে কাজ করার সুযোগ দেওয়ার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছিলেন। দেশের উন্নয়নে মোদির কাজের প্রশংসাও করেন তিনি।

কঙ্গনা বলেন, ‘বলিউড যখন আমাকে বহিরাগত মনে করত এবং আমার ইংরেজি নিয়ে ঠাট্টা করত। তারপরে, বিশ্বের বৃহত্তম দল, ভারতীয় জনতা পার্টি এবং বিশ্বের বৃহত্তম নেতা, প্রধানমন্ত্রী মোদি মান্ডির মানুষের সেবা করার জন্য এবং তাদের কল্যাণে কাজ করার জন্য আমাকে বেছে নিয়েছেন। এই কাজের জন্য তারা বেছে নিয়েছেন এই পাহাড়ি কন্যাকে। এটা আমাকে গর্ব ও গৌরবে ভরিয়ে দেয়। হিমাচলের সমস্ত মহিলা ও নাগরিকদের পক্ষ থেকে আমাদের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সামনে শ্রদ্ধা নিবেদন করছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী মোদির নির্দেশনায় কাজ করার দিন এসেছে। মোদির প্রশংসা করা ঠিক যেন সূর্যকে মোমবাতি দেখানোর মতো। তিনি যে কারিগরি ও আধুনিক উন্নয়নমূলক কাজ করেছেন তা অসাধারণ। এখন আমি তার দলের অংশ এবং দলীয় কর্মী হিসেবে মান্ডির উন্নয়নমূলক কাজে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’

বক্তব্য শেষ করার সময় কঙ্গনা বছরের সেরা সাংসদ পুরস্কার জয়ের উচ্চাকাঙ্ক্ষা প্রকাশ করে বলেন, ‘বিজেপি এবং কংগ্রেস উভয় আমলে আমি আমার দক্ষতার ভিত্তিতে চারটি জাতীয় পুরস্কার জিতেছি। আমি আপনাদের আশ্বস্ত করছি, যদি আমি এই নির্বাচনে জয়ী হই, তাহলে প্রথম বছরেই আমি মান্ডিবাসীর জন্য বছরের সেরা সংসদ পুরস্কার নিয়ে আসব।’

কঙ্গনা আগেই ইঙ্গিত দিয়েছেন নির্বাচনে জয় পেলে অভিনয় কেরিয়ারে ইতি টানতে পারেন তিনি। আগামীতে কঙ্গনাকে পর্দায় দেখা যাবে ইন্দিরা গান্ধী রূপে। ইমার্জেন্সি ছবিতে দেশের একমাত্র মহিলা প্রধানমন্ত্রীর চরিত্রে অভিনয় করবেন কঙ্গনা, এই ছবির পরিচালকও তিনি। নির্বাচনের জন্যই মুক্তি পিছিয়েছে ইমার্জেন্সির।

বিজনেস বাংলাদেশ/একে