০৯:৩২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪

অঘূর্ণিঝড় রিমাল: চট্টগ্রাম বন্দরে পণ্য ওঠানামা বন্ধ

ঘূর্ণিঝড় রিমালের ক্ষতি কমাতে ব্যাপক সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিয়েছে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ। বন্দরের নিজস্ব অ্যালার্ট-৪ জারি করা হয়েছে। বন্দরের জেটিতে থাকা সব জাহাজের পণ্য ওঠানামা বন্ধ রাখা হয়েছে।

নিরাপত্তার স্বার্থে জেটিতে বার্থিং থাকা বড় জাহাজগুলোকে আজ রোববার সকালে জোয়ারের সঙ্গে বহির্নোঙরে (গভীর সমুদ্রে) পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। এ সময় জাহাজগুলোর ইঞ্জিন সার্বক্ষণিক চালু রাখাসহ প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

গতকাল শনিবার রাত থেকেই বহির্নোঙরে পণ্য ওঠানামা (লাইটারিং) কার্যক্রম বন্ধ রাখা হয়েছে। এ ছাড়া মেরিন, ট্রাফিক, সচিব এবং নিরাপত্তা বিভাগের চারটি কন্ট্রোলরুম স্থাপন করা হয়েছে।

ক্রেনসহ সব হ্যান্ডলিং ইকুইপমেন্ট প্যাক করা হচ্ছে, যাতে বাতাসে বা জলোচ্ছ্বাসে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। বন্দর থেকে সব ধরনের পণ্য ডেলিভারি কার্যক্রম বন্ধ করা হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের সতর্কসংকেতের ভিত্তিতে বন্দর কর্তৃপক্ষ বন্দর চ্যানেল, জাহাজ, জেটি, ইয়ার্ড, শেড, হ্যান্ডলিং ইকুইপমেন্ট নিরাপদ রাখতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়েছে বলে জানিয়েছেন বন্দর সচিব মো. ওমর ফারুক।

গতকাল বন্দরের সব বিভাগের কর্মকর্তাদের নিয়ে সভা করা হয়েছে। আবহাওয়া অধিদপ্তরের সতর্কসংকেতের ওপর ভিত্তি করে বিভিন্ন বিভাগের করণীয় জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

বন্দরসচিব ওমর ফারুক বলেন, বন্দর চ্যানেলের সব লাইটার জাহাজ শাহ আমানত সেতুর উজানে পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

বিজনেস বাংলাদেশ/একে

জনপ্রিয়

অঘূর্ণিঝড় রিমাল: চট্টগ্রাম বন্দরে পণ্য ওঠানামা বন্ধ

প্রকাশিত : ০২:৪৪:১৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪

ঘূর্ণিঝড় রিমালের ক্ষতি কমাতে ব্যাপক সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিয়েছে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ। বন্দরের নিজস্ব অ্যালার্ট-৪ জারি করা হয়েছে। বন্দরের জেটিতে থাকা সব জাহাজের পণ্য ওঠানামা বন্ধ রাখা হয়েছে।

নিরাপত্তার স্বার্থে জেটিতে বার্থিং থাকা বড় জাহাজগুলোকে আজ রোববার সকালে জোয়ারের সঙ্গে বহির্নোঙরে (গভীর সমুদ্রে) পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। এ সময় জাহাজগুলোর ইঞ্জিন সার্বক্ষণিক চালু রাখাসহ প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

গতকাল শনিবার রাত থেকেই বহির্নোঙরে পণ্য ওঠানামা (লাইটারিং) কার্যক্রম বন্ধ রাখা হয়েছে। এ ছাড়া মেরিন, ট্রাফিক, সচিব এবং নিরাপত্তা বিভাগের চারটি কন্ট্রোলরুম স্থাপন করা হয়েছে।

ক্রেনসহ সব হ্যান্ডলিং ইকুইপমেন্ট প্যাক করা হচ্ছে, যাতে বাতাসে বা জলোচ্ছ্বাসে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। বন্দর থেকে সব ধরনের পণ্য ডেলিভারি কার্যক্রম বন্ধ করা হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের সতর্কসংকেতের ভিত্তিতে বন্দর কর্তৃপক্ষ বন্দর চ্যানেল, জাহাজ, জেটি, ইয়ার্ড, শেড, হ্যান্ডলিং ইকুইপমেন্ট নিরাপদ রাখতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়েছে বলে জানিয়েছেন বন্দর সচিব মো. ওমর ফারুক।

গতকাল বন্দরের সব বিভাগের কর্মকর্তাদের নিয়ে সভা করা হয়েছে। আবহাওয়া অধিদপ্তরের সতর্কসংকেতের ওপর ভিত্তি করে বিভিন্ন বিভাগের করণীয় জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

বন্দরসচিব ওমর ফারুক বলেন, বন্দর চ্যানেলের সব লাইটার জাহাজ শাহ আমানত সেতুর উজানে পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

বিজনেস বাংলাদেশ/একে