ঢাকা সকাল ৯:৫২, শুক্রবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আর্জেন্টিনাকে বিশ্বকাপে টিকিয়ে রাখলেন মেসি

আর্জেন্টিনাকে বিশ্বকাপে টিকিয়ে রাখতে হলে তাঁকেই কিছু একটা করতে হবে, এটা নিশ্চয়ই লিওনেল মেসি জানতেন। মেসি করলেনও। মেক্সিকোর রক্ষণ ভাঙ্গা যখন দুঃসাধ্য মনে হচ্ছিল, তখন দুর্দান্ত এক গোল করলেন। পরে ম্যাচের শেষদিকে তাঁর পাস থেকেই দারুণ আরও একটা গোল করলেন এনজো ফার্নান্দেসও। লুসাইল স্টেডিয়ামে ম্যাচটা আর্জেন্টিনা জিতল শেষ পর্যন্ত ২-০ গোলে। যে জয় আর্জেন্টিনা ও মেসিকে টিকিয়ে রাখল বিশ্বকাপেও। পোল্যান্ডের বিপক্ষে গ্রুপের শেষ ম্যাচটা জিতলেই এখন পরের রাউন্ড নিশ্চিত আর্জেন্টিনার। সুযোগ থাকবে ওই ম্যাচটা ড্র করলেও।

পাঁচ পরিবর্তন নিয়ে এদিন মেক্সিকোর বিপক্ষে খেলতে নামে স্কালোনির দল। মেসিদের বিপক্ষে ৫ ডিফেন্ডারের কৌশল নিয়ে দল সাজান মেক্সিকোর আর্জেন্টাইন কোচ টাটা মার্টিনো।

বল দখলে মেসিরা শুরু থেকে এগিয়ে থাকলেও পুরো ম্যাচে একটিও গোলের সুযোগ তৈরি করতে পারেনি আর্জেন্টিনা বরং মেসিদের থেকে উজ্জ্বল ছিল মেক্সিকো। ১৪ মিনিটে মাঝমাঠের বাইরে থেকে নেওয়া মেক্সিকান ভেগার ফ্রি কিক থেকে বল ডিক্সের ভেতরে গেলেও আর্জেন্টাইন গোলরক্ষক সেটি দ্রুত গতিতে লুফে নেন।

আগের ম্যাচে সৌদি আরবের বিপক্ষে পোল্যান্ডের জয়ে এই ম্যাচে তাই জিততেই হবে আর্জেন্টিনাকে। ৩৩ মিনিটে ডি বক্সের বাইরে থেকে নেওয়া মেসির ফ্রি কিক ওচোয়া পাঞ্চ করে ক্লিয়ার করেন। ৪০ মিনিটে কর্নার থেকে ডি মারিয়ার ক্রসে লাউতারো মার্টিনেজের হেড খুজে পায়নি গোলের দেখা। খেলা শেষের এক মিনিট আগে ডি বক্সের বাইরে থেকে ফ্রি কিক পায় মেক্সিকো। ভেগার দুর্দান্ত ফ্রি কিক ডান পাশে লাফিয়ে দুর্দান্তভাবে গ্লাভস বন্দী করেন এমি মার্টিনেজ। গোলশূন্য অবস্থাতেই বিরতিতে যায় দুই দল।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই গোলের জন্য চাপ বাড়াতে থাকে আলবিসেলেস্তারা। ৫৩ মিনিটে ডিবক্সের বাইরে থেকে মেসিকে ফাউল করা হলে ফ্রি কিক পায় আর্জেন্টিনা। মেসির বা পায়ের ফ্রি কিক গোলবারের ওপর দিয়ে চলে যায়। এর ঠিক ১১ মিনিট পরেই আসে মেসির সেই কাঙ্ক্ষিত মুহূর্ত। ডি মারিয়ার পাস থেকে দুর্দান্ত শটে ডিবক্সের বাইরে থেকে দুর্দান্ত শটে গোল করে দলকে এগিয়ে নেন মেসি।

গোল দিয়ে আর্জেন্টিনা কিছুটা রক্ষণাত্মক কৌশল অবলম্বন করে। মেক্সিকোর সুযোগগুলো রক্ষণভাগেই শেষ করে দিচ্ছিল আর্জেন্টিনা। ম্যাচ যখন শেষের দিকে ১-০ ব্যবধানে আগাচ্ছে ঠিক তখনই আবার গোল করে আর্জেন্টিনা।

এবার মেসির বাড়ানো বলে বিশ্বকাপে নিজের প্রথম গোল করলেন বেনফিকার আর্জেন্টাইন মিডফিল্ডার রংধনু শটে অসাধারণ এক গোল করেন এনজো ফার্নান্দেজ। তার অসাধারণ গোলে আর্জেন্টিনা পায় ২-০ গোলের লিড। ম্যাচের শেষে আর কোনো গোল না হওয়ায় আর্জেন্টিনা ২-০ গোলের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে। বিশ্বকাপের নকআউট রাউন্ডে যেতে আর্জেন্টিনাকে পরের ম্যাচে পোল্যান্ডের বিপক্ষেও জিততে হবে।

বিজনেস বাংলাদেশ/ হাবিব

এ বিভাগের আরও সংবাদ