০৭:৩০ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪

ক্যারিয়ার নিয়ে যা বললেন ফারিণ

ঈদের ইত্যাদিতে তাহসানের সঙ্গে ‘রঙে রঙে রঙিন হব’ গানটি পরিবেশন করে ব্যাপক প্রশংসিত হন জনপ্রিয় অভিনয় শিল্পী তাসনিয়া ফারিণ। নন্দিত অভিনয় দিয়ে অল্প সময়েই আলোচনায় আসেন এই অভিনেত্রী।ফারিণ শুরু থেকেই তিনি চেষ্টা করেছেন গল্প ও চরিত্র বাছবিচার করে অভিনয়ে নাম লেখাতে। সেই ধারাবাহিকতা রক্ষা করার চেষ্টা চালাচ্ছেন এই অভিনেত্রী।

তবে ক্যারিয়ারের এ সুসময়ে মাঝেমধ্যে বাধারও সম্মুখীন হতে হয় তাকে। কারণ ভালো গল্প বাছাই করতে গিয়ে পরিচিত অনেককেই ‘না’ বলতে হয়। আর এই ‘না’ বলার কারণে নাকি মিডিয়ায় তার শত্রু দিন দিন বাড়ছে।
২০২০ সালের দিকে টেলিভিশন নাটক দিয়ে আলোচনায় আসেন ফারিণ। সেবার পবিত্র ঈদুল ফিতরের পর এই অভিনেত্রীকে আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি। শিহাব শাহীন, মিজানুর রহমান আরিয়ানসহ জনপ্রিয় নির্মাতাদের সঙ্গে কাজ করেছেন তিনি। টেলিভিশনে দারুণ সূচনার পর তিনি নাম লেখান ওটিটি ও সিনেমায়। সেখানেও ছিল চমক। শুরুতেই মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর ওয়েব সিরিজ ‘লেডিজ অ্যান্ড জেন্টলমেন’ দিয়ে ওটিটি–দুনিয়ায় পা রাখেন। সেখানেও এই অভিনেত্রী সফল।
ফারিণ পরে কলকাতার সিনেমা ‘আরও এক পৃথিবী’তে নাম লিখিয়ে দুই বাংলার দর্শকের আলোচনায় আসেন। সিনেমাটিতে তিনি পরিচালক হিসেবে পেয়েছিলেন নন্দিত নির্মাতা অতনু ঘোষকে। ছবিতে তার সহশিল্পী ছিলেন কৌশিক গাঙ্গুলি, অনিন্দিতা বোসরা। সিনেমায় অভিনয় তাকে এ বছর এনে দিয়েছে ভারতের ফিল্মফেয়ারের পুরস্কার। সেখানে সেরা নবাগত অভিনেত্রীর পুরস্কার জয় করেন ফারিণ।

এজন্য ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে ফারিণকে। দর্শকের ভালোবাসা পাওয়ার পর থেকেই শিখতে হয়েছে ‘না’ বলা। তিনি চাননি গড়পড়তা কোনো কাজ করতে বা নিজের ইচ্ছার বিরুদ্ধে বাধ্য হয়ে কোনো কাজে নাম লেখাতে। যে কারণে নিজের সিদ্ধান্ত নিজেকেই বুঝেশুনে নিতে হয়েছে। এমনকি এজন্য দিনের পর দিন ধৈর্য ধরতে হয়েছে।

ফারিণ বলেন, ‘আমি অনেক ভেবেচিন্তে সিদ্ধান্ত নিই। চরিত্র ও গল্পে এমন কী নতুনত্ব আছে, যা আমার জন্য নতুন, আমার ক্যারিয়ারে কী প্রভাব ফেলবে, এসব লক্ষ করতে হয়।
অনেক সময় কোনো চিত্রনাট্য পছন্দ না হলে কাজটি করতে রাজি হন না ফারিণ। ঠিক তখন অনেকেই তাকে ভুল বোঝেন। এই ‘না’ নিয়ে কারও কারও সঙ্গে মনোমালিন্য হয়।

এ প্রসঙ্গে ফারিণ জানিয়েছেন, ‘না তো করতেই হবে। ‘হ্যাঁ’ বলার চেয়ে ‘না’ বেশি বলতে হয়। আমার কোনো প্রজেক্ট পছন্দ না হলে সেটা তাদের বলি। শিল্পী হিসেবে বলতে হয়। এটা নিয়ে আমি স্ট্রেট কাট। সরাসরি কথা বলার কারণে আমার শত্রু বেশি। কারণ, অনেকেই মন খারাপ করেন। কেউ কেউ মাঝে-মধ্যে অন্যভাবে নেন। এগুলো তো আমার ক্যারিয়ারের জন্য বলতে হয়। কিছু করার নেই।
ফারিণ আরও বলেন, আজ যদি আমার ক্যারিয়ার না থাকে, তখন তারা কেউ তো আমাকে ডাকবেন না। সেজন্য নিজেরটা নিজেকেই বুঝতে হবে।

 

বিজনেস বাংলাদেশ/বিএইচ

 

 

ট্যাগ :
জনপ্রিয়

রাসেলস ভাইপার সাপ নিয়ে আতঙ্কিত না হওয়ার আহবান: গোপালগঞ্জ স্বাস্থ্য বিভাগ

ক্যারিয়ার নিয়ে যা বললেন ফারিণ

প্রকাশিত : ০৬:৩৪:৫৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ৪ মে ২০২৪

ঈদের ইত্যাদিতে তাহসানের সঙ্গে ‘রঙে রঙে রঙিন হব’ গানটি পরিবেশন করে ব্যাপক প্রশংসিত হন জনপ্রিয় অভিনয় শিল্পী তাসনিয়া ফারিণ। নন্দিত অভিনয় দিয়ে অল্প সময়েই আলোচনায় আসেন এই অভিনেত্রী।ফারিণ শুরু থেকেই তিনি চেষ্টা করেছেন গল্প ও চরিত্র বাছবিচার করে অভিনয়ে নাম লেখাতে। সেই ধারাবাহিকতা রক্ষা করার চেষ্টা চালাচ্ছেন এই অভিনেত্রী।

তবে ক্যারিয়ারের এ সুসময়ে মাঝেমধ্যে বাধারও সম্মুখীন হতে হয় তাকে। কারণ ভালো গল্প বাছাই করতে গিয়ে পরিচিত অনেককেই ‘না’ বলতে হয়। আর এই ‘না’ বলার কারণে নাকি মিডিয়ায় তার শত্রু দিন দিন বাড়ছে।
২০২০ সালের দিকে টেলিভিশন নাটক দিয়ে আলোচনায় আসেন ফারিণ। সেবার পবিত্র ঈদুল ফিতরের পর এই অভিনেত্রীকে আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি। শিহাব শাহীন, মিজানুর রহমান আরিয়ানসহ জনপ্রিয় নির্মাতাদের সঙ্গে কাজ করেছেন তিনি। টেলিভিশনে দারুণ সূচনার পর তিনি নাম লেখান ওটিটি ও সিনেমায়। সেখানেও ছিল চমক। শুরুতেই মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর ওয়েব সিরিজ ‘লেডিজ অ্যান্ড জেন্টলমেন’ দিয়ে ওটিটি–দুনিয়ায় পা রাখেন। সেখানেও এই অভিনেত্রী সফল।
ফারিণ পরে কলকাতার সিনেমা ‘আরও এক পৃথিবী’তে নাম লিখিয়ে দুই বাংলার দর্শকের আলোচনায় আসেন। সিনেমাটিতে তিনি পরিচালক হিসেবে পেয়েছিলেন নন্দিত নির্মাতা অতনু ঘোষকে। ছবিতে তার সহশিল্পী ছিলেন কৌশিক গাঙ্গুলি, অনিন্দিতা বোসরা। সিনেমায় অভিনয় তাকে এ বছর এনে দিয়েছে ভারতের ফিল্মফেয়ারের পুরস্কার। সেখানে সেরা নবাগত অভিনেত্রীর পুরস্কার জয় করেন ফারিণ।

এজন্য ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে ফারিণকে। দর্শকের ভালোবাসা পাওয়ার পর থেকেই শিখতে হয়েছে ‘না’ বলা। তিনি চাননি গড়পড়তা কোনো কাজ করতে বা নিজের ইচ্ছার বিরুদ্ধে বাধ্য হয়ে কোনো কাজে নাম লেখাতে। যে কারণে নিজের সিদ্ধান্ত নিজেকেই বুঝেশুনে নিতে হয়েছে। এমনকি এজন্য দিনের পর দিন ধৈর্য ধরতে হয়েছে।

ফারিণ বলেন, ‘আমি অনেক ভেবেচিন্তে সিদ্ধান্ত নিই। চরিত্র ও গল্পে এমন কী নতুনত্ব আছে, যা আমার জন্য নতুন, আমার ক্যারিয়ারে কী প্রভাব ফেলবে, এসব লক্ষ করতে হয়।
অনেক সময় কোনো চিত্রনাট্য পছন্দ না হলে কাজটি করতে রাজি হন না ফারিণ। ঠিক তখন অনেকেই তাকে ভুল বোঝেন। এই ‘না’ নিয়ে কারও কারও সঙ্গে মনোমালিন্য হয়।

এ প্রসঙ্গে ফারিণ জানিয়েছেন, ‘না তো করতেই হবে। ‘হ্যাঁ’ বলার চেয়ে ‘না’ বেশি বলতে হয়। আমার কোনো প্রজেক্ট পছন্দ না হলে সেটা তাদের বলি। শিল্পী হিসেবে বলতে হয়। এটা নিয়ে আমি স্ট্রেট কাট। সরাসরি কথা বলার কারণে আমার শত্রু বেশি। কারণ, অনেকেই মন খারাপ করেন। কেউ কেউ মাঝে-মধ্যে অন্যভাবে নেন। এগুলো তো আমার ক্যারিয়ারের জন্য বলতে হয়। কিছু করার নেই।
ফারিণ আরও বলেন, আজ যদি আমার ক্যারিয়ার না থাকে, তখন তারা কেউ তো আমাকে ডাকবেন না। সেজন্য নিজেরটা নিজেকেই বুঝতে হবে।

 

বিজনেস বাংলাদেশ/বিএইচ