০১:৫১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪

ভারতের বিপক্ষে হারের পর যে কারণে হতাশ তামিম

ভারতের বিপক্ষে সুপার এইটে গতকাল হেরেছে বাংলাদেশ দল। নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে ৫০ রানের ব্যবধানে হারের মুখ দেখেছে টাইগাররা। এমন হারের পর অবশ্য তামিম ইকবাল হতাশ হয়েছেন। বেশি হতাশ হয়েছেন দলের ব্যাটারদের ইনটেন্ট নিয়ে।

ইএসপিএন ক্রিকইনফোর ম্যাচ পরবর্তী লাইভ অনুষ্ঠানে হারের কারণ হিসেবে তামিম দায়ী করলেন ব্যাটারদের রান করতে না পারার ক্ষমতাকে, ‘আমার মনে হয় অ্যাপ্রোচের (দিক থেকে বাংলাদেশ ম্যাচ হেরেছে)। অবশ্যই কুলদীপ (যাদব) ভালো বল করেছে। কিন্তু বাংলাদেশের ব্যাটারদের অ্যাপ্রোচের কারণে সে লুপ, ফ্লাইট দিতে পেরেছে।’

বাংলাদেশ দলের মানসিকতা নিয়েই সন্দিহান ছিলেন তামিম ইকবাল, ‘শুরু থেকে আমার মনে হয়নি তারা রান তাড়া করছে। বাংলাদেশ হয়ত ১৪৬ রান করেছে। রিশাদের (হোসেন) ১০ বলে ২৪ রান হয়ত তাদের ১৪৬ রানে নিয়ে গেছে। আমার মনেই হয়নি বাংলাদেশ কোনো পয়েন্টে রানটা তাড়া করছিল।’

এমনকি বাংলাদেশের বিপক্ষে ভারতের ভালো বোলিংয়ের পেছনে বাংলাদেশের ব্যাটারদের ভুলকেই বড় করে দেখছেন সাবেক এই ওয়ানডে অধিনায়ক, ‘কোনো দল যদি এমন অ্যাপ্রোচে ব্যাট করে তাহলে এটা বোলারদের আরও আত্মবিশ্বাসী করে এবং ভিন্ন কিছু চেষ্টা করতে সাহস দেয়। দিনশেষে সব দারুণ লাগে। এজন্যই কুলদীপকে নিয়ে আমরা কথা বলছি। কোনো সন্দেহে নেই তার সামর্থ্য নিয়ে। দারুণ বোলার সে। তবে প্রতিপক্ষের অ্যাপ্রোচ তাকে আরও বেশি ভালো মনে করিয়েছে।’

তামিম আরও বলেন, ‘আসলে আমি বেশি খুশি হতাম বাংলাদেশ যদি ১৯০ রান তাড়া করতে চেয়ে ১০০ রানে অলআউট হত। তারা বরং কোনো ইন্টেন্ট ছাড়া ১৪৬ রান করেছে। সবার সেই ইন্টেন্ট থাকা দরকার ছিল। আমি তা দেখিনি।’

ভালো উইকেটে খেলার তাগিদ দিয়ে তামিম বলেন, ‘আসলে আমরা সবাই জানি বাংলাদেশ ব্যাটারদের জন্য খুব কঠিন উইকেটে ম্যাচ খেলে থাকে। বিষয়টা এমন না যে ভালো উইকেটে খেলালে তারা রান করা শুরু করে দিবে। ভালো উইকেটেও আপনাকে রান করার উপায় জানতে হবে। এমন না যে প্রথম দিন থেকেই আপনি ভারতীয় ব্যাটারদের মত শট খেলতে পারবেন। এটা নিয়ে দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা করা দরকার।’

তামিমের ভাষ্য, ‘বাংলাদেশ যদি ভালো উইকেটে খেলতে থাকে তাহলে তারা উন্নতি করতে পারবে। যেটা তারা মিরপুরের মত উইকেটে করতে পারে না। এই ব্যাপারটা আমি বলতে চাই। আপনি বছরের পর বছর ভালো উইকেটে না খেললে আইসিসির ইভেন্টে ভালো উইকেটে গিয়ে খেললে এর মানে এই নয় যে বাংলাদেশের ব্যাটাররা রান করতে শুরু করে দিবে। ভালো উইকেটেও আপনাকে জানতে হবে যে, কীভাবে রান করতে হয়।’

বিজনেস বাংলাদেশ/একে

মেঘনা ধনাগোদা সেচ প্রকল্প বেড়ীবাঁধ সড়কে আবারও ছোট বড় গর্তের সৃষ্টি

ভারতের বিপক্ষে হারের পর যে কারণে হতাশ তামিম

প্রকাশিত : ০২:২৫:৪৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪

ভারতের বিপক্ষে সুপার এইটে গতকাল হেরেছে বাংলাদেশ দল। নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে ৫০ রানের ব্যবধানে হারের মুখ দেখেছে টাইগাররা। এমন হারের পর অবশ্য তামিম ইকবাল হতাশ হয়েছেন। বেশি হতাশ হয়েছেন দলের ব্যাটারদের ইনটেন্ট নিয়ে।

ইএসপিএন ক্রিকইনফোর ম্যাচ পরবর্তী লাইভ অনুষ্ঠানে হারের কারণ হিসেবে তামিম দায়ী করলেন ব্যাটারদের রান করতে না পারার ক্ষমতাকে, ‘আমার মনে হয় অ্যাপ্রোচের (দিক থেকে বাংলাদেশ ম্যাচ হেরেছে)। অবশ্যই কুলদীপ (যাদব) ভালো বল করেছে। কিন্তু বাংলাদেশের ব্যাটারদের অ্যাপ্রোচের কারণে সে লুপ, ফ্লাইট দিতে পেরেছে।’

বাংলাদেশ দলের মানসিকতা নিয়েই সন্দিহান ছিলেন তামিম ইকবাল, ‘শুরু থেকে আমার মনে হয়নি তারা রান তাড়া করছে। বাংলাদেশ হয়ত ১৪৬ রান করেছে। রিশাদের (হোসেন) ১০ বলে ২৪ রান হয়ত তাদের ১৪৬ রানে নিয়ে গেছে। আমার মনেই হয়নি বাংলাদেশ কোনো পয়েন্টে রানটা তাড়া করছিল।’

এমনকি বাংলাদেশের বিপক্ষে ভারতের ভালো বোলিংয়ের পেছনে বাংলাদেশের ব্যাটারদের ভুলকেই বড় করে দেখছেন সাবেক এই ওয়ানডে অধিনায়ক, ‘কোনো দল যদি এমন অ্যাপ্রোচে ব্যাট করে তাহলে এটা বোলারদের আরও আত্মবিশ্বাসী করে এবং ভিন্ন কিছু চেষ্টা করতে সাহস দেয়। দিনশেষে সব দারুণ লাগে। এজন্যই কুলদীপকে নিয়ে আমরা কথা বলছি। কোনো সন্দেহে নেই তার সামর্থ্য নিয়ে। দারুণ বোলার সে। তবে প্রতিপক্ষের অ্যাপ্রোচ তাকে আরও বেশি ভালো মনে করিয়েছে।’

তামিম আরও বলেন, ‘আসলে আমি বেশি খুশি হতাম বাংলাদেশ যদি ১৯০ রান তাড়া করতে চেয়ে ১০০ রানে অলআউট হত। তারা বরং কোনো ইন্টেন্ট ছাড়া ১৪৬ রান করেছে। সবার সেই ইন্টেন্ট থাকা দরকার ছিল। আমি তা দেখিনি।’

ভালো উইকেটে খেলার তাগিদ দিয়ে তামিম বলেন, ‘আসলে আমরা সবাই জানি বাংলাদেশ ব্যাটারদের জন্য খুব কঠিন উইকেটে ম্যাচ খেলে থাকে। বিষয়টা এমন না যে ভালো উইকেটে খেলালে তারা রান করা শুরু করে দিবে। ভালো উইকেটেও আপনাকে রান করার উপায় জানতে হবে। এমন না যে প্রথম দিন থেকেই আপনি ভারতীয় ব্যাটারদের মত শট খেলতে পারবেন। এটা নিয়ে দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা করা দরকার।’

তামিমের ভাষ্য, ‘বাংলাদেশ যদি ভালো উইকেটে খেলতে থাকে তাহলে তারা উন্নতি করতে পারবে। যেটা তারা মিরপুরের মত উইকেটে করতে পারে না। এই ব্যাপারটা আমি বলতে চাই। আপনি বছরের পর বছর ভালো উইকেটে না খেললে আইসিসির ইভেন্টে ভালো উইকেটে গিয়ে খেললে এর মানে এই নয় যে বাংলাদেশের ব্যাটাররা রান করতে শুরু করে দিবে। ভালো উইকেটেও আপনাকে জানতে হবে যে, কীভাবে রান করতে হয়।’

বিজনেস বাংলাদেশ/একে