১০:৫০ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

অবরোধ চলাকালীন নগরীতে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে সিএমপি

বিএনপি’র ডাকা দশম দফা অবরোধ চলাকালীন চট্টগ্রাম মহানগরীর গুরুত্বপূর্ণ এলাকা ওয়াাসা মোড়, কাজীর দেউরি, এনায়েত বাজার, নিউমার্কেট, কোতোয়ালি মোড়, ফিরিঙ্গি বাজার, নতুন ব্রিজ, বাকলিয়া এক্সেস রোড, সিরাজউদ্দৌলা রোড, চকবাজার, জামাল খান, চেরাগী পাহাড় মোড় ও আন্দরকিল্লা এলাকায় আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করেন চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) কমিশনার কৃষ্ণ পদ রায় বিপিএম (বার), পিপিএম (বার)।

৬ ডিসেম্বর (বুধবার) অবরোধের প্রথম দিন সকাল সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর পর্যন্ত হরতাল-অবরোধের নিয়মিত পরিদর্শনের অংশ হিসেবে তিনি এলাকাগুলো পর্যবেক্ষণ করেন। পর্যবেক্ষণকালে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে ডিউটিরত পুলিশ অফিসার ও ফোর্সদের সময়োপযোগী দিক-নির্দেশনা প্রদান করেন সিএমপি কমিশনার। একইসাথে শঙ্কামুক্ত ও আস্থার সাথে দৈনন্দিন কার্যক্রম সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে পরিচালনা করতে সাধারণ পথচারীদের সাথেও কথা বলেন তিনি।

সিএমপি’র অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (প্রশাসন ও অর্থ) এম এ মাসুদ, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) আব্দুল মান্নান মিয়া, উপ-পুলিশ কমিশনার (সদর) মোঃ আবদুল ওয়ারীশ, উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান, উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-উত্তর) মোঃ জয়নুল আবেদীন, উপ-পুলিশ-কমিশনার (সরবরাহ) মুহাম্মদ ফয়সাল আহমেদ, উপ-পুলিশ-কমিশনার (ট্রাফিক-দক্ষিণ) এন.এম নাসিরুদ্দিন, উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি-উত্তর) মোছাম্মৎ সাদিরা খাতুন, ও উপ-পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম এন্ড অবস) নিস্কৃতি চাকমাসহ সিএমপি’র সংশ্লিষ্ট থানাগুলোর অফিসার ইনচার্জ (ওসি), সংশ্লিষ্ট এলাকার ট্রাফিক ইন্সপেক্টর (টিআই) ও পুলিশ সদস্যবৃন্দ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

সাম্প্রতিক সময়ে বিএনপি ও অন্যান্য দল কর্তৃক ঘোষিত হরতাল-অবরোধের সময় প্রতিদিনই নগরীর আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে নিয়মিতভাবে বের হন সিএমপি কমিশনার কৃষ্ণ পদ রায়। ফোর্সের কল্যাণ, তাদের উদ্যোম ও মনোবল বৃদ্ধিতে নানামুখী উদ্যোগ গ্রহণ করেন তিনি। পুলিশ সদস্যদের আন্তরিকতা ও সতর্কতার কারণে হরতাল-অবরোধে চট্টগ্রাম মহানগরীতে এখনো পর্যন্ত বড় ধরনের কোন নাশকতামূলক ঘটনা সংঘটিত হয়নি বরং সড়কে চলাচলরত নগরবাসী শঙ্কামুক্ত ও আস্থার সাথে দৈনন্দিন কার্যক্রম সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে পরিচালনা করতে পারছে।

বিজনেস বাংলাদেশ/এমএইচটি

ট্যাগ :
জনপ্রিয়

অবরোধ চলাকালীন নগরীতে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে সিএমপি

প্রকাশিত : ০৮:৩৪:০৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ৬ ডিসেম্বর ২০২৩

বিএনপি’র ডাকা দশম দফা অবরোধ চলাকালীন চট্টগ্রাম মহানগরীর গুরুত্বপূর্ণ এলাকা ওয়াাসা মোড়, কাজীর দেউরি, এনায়েত বাজার, নিউমার্কেট, কোতোয়ালি মোড়, ফিরিঙ্গি বাজার, নতুন ব্রিজ, বাকলিয়া এক্সেস রোড, সিরাজউদ্দৌলা রোড, চকবাজার, জামাল খান, চেরাগী পাহাড় মোড় ও আন্দরকিল্লা এলাকায় আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করেন চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) কমিশনার কৃষ্ণ পদ রায় বিপিএম (বার), পিপিএম (বার)।

৬ ডিসেম্বর (বুধবার) অবরোধের প্রথম দিন সকাল সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর পর্যন্ত হরতাল-অবরোধের নিয়মিত পরিদর্শনের অংশ হিসেবে তিনি এলাকাগুলো পর্যবেক্ষণ করেন। পর্যবেক্ষণকালে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে ডিউটিরত পুলিশ অফিসার ও ফোর্সদের সময়োপযোগী দিক-নির্দেশনা প্রদান করেন সিএমপি কমিশনার। একইসাথে শঙ্কামুক্ত ও আস্থার সাথে দৈনন্দিন কার্যক্রম সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে পরিচালনা করতে সাধারণ পথচারীদের সাথেও কথা বলেন তিনি।

সিএমপি’র অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (প্রশাসন ও অর্থ) এম এ মাসুদ, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) আব্দুল মান্নান মিয়া, উপ-পুলিশ কমিশনার (সদর) মোঃ আবদুল ওয়ারীশ, উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান, উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-উত্তর) মোঃ জয়নুল আবেদীন, উপ-পুলিশ-কমিশনার (সরবরাহ) মুহাম্মদ ফয়সাল আহমেদ, উপ-পুলিশ-কমিশনার (ট্রাফিক-দক্ষিণ) এন.এম নাসিরুদ্দিন, উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি-উত্তর) মোছাম্মৎ সাদিরা খাতুন, ও উপ-পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম এন্ড অবস) নিস্কৃতি চাকমাসহ সিএমপি’র সংশ্লিষ্ট থানাগুলোর অফিসার ইনচার্জ (ওসি), সংশ্লিষ্ট এলাকার ট্রাফিক ইন্সপেক্টর (টিআই) ও পুলিশ সদস্যবৃন্দ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

সাম্প্রতিক সময়ে বিএনপি ও অন্যান্য দল কর্তৃক ঘোষিত হরতাল-অবরোধের সময় প্রতিদিনই নগরীর আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে নিয়মিতভাবে বের হন সিএমপি কমিশনার কৃষ্ণ পদ রায়। ফোর্সের কল্যাণ, তাদের উদ্যোম ও মনোবল বৃদ্ধিতে নানামুখী উদ্যোগ গ্রহণ করেন তিনি। পুলিশ সদস্যদের আন্তরিকতা ও সতর্কতার কারণে হরতাল-অবরোধে চট্টগ্রাম মহানগরীতে এখনো পর্যন্ত বড় ধরনের কোন নাশকতামূলক ঘটনা সংঘটিত হয়নি বরং সড়কে চলাচলরত নগরবাসী শঙ্কামুক্ত ও আস্থার সাথে দৈনন্দিন কার্যক্রম সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে পরিচালনা করতে পারছে।

বিজনেস বাংলাদেশ/এমএইচটি