০৪:৫৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪

মুম্বাইয়ে ঝড়ে ভেঙে পড়ল বিলবোর্ড, নিহত বেড়ে ১৬

বিলবোর্ডের নিচে চাপা পড়েছে একটি গাড়ি। ছবি: সংগৃহীত

ভারতের মুম্বাইয়ে ভেঙে পড়া বিলবোর্ডের নিচে চাপা পড়া আরও দুটি মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এর আগে সোমবার দুর্ঘটনাস্থল থেকে ১৪ জনের মৃতদেহ উদ্ধার হয়েছিল।

বুধবার নতুন করে আরও দুটি মরদেহের খোঁজ মেলায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১৬।

জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, মঙ্গলবার রাতে উদ্ধার কাজ চলার সময় ওই দুটি মরদেহ নজরে আসে। কিন্তু তখন সেগুলো উদ্ধার করা যায়নি। বিলবোর্ডের নিচে আর কেউ চাপা পড়ে রয়েছেন কি না, তা দেখতে এখনও অভিযান চালাচ্ছেন জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর সদস্যেরা।

উল্লেখ্য, সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টা নাগাদ হঠাৎ আকাশ কালো করে ঝড় ওঠে মুম্বাইয়ে। কিছু বুঝে ওঠার আগেই শুরু হয় ৬০ ঘণ্টা প্রতি কিমি বেগে ধুলোঝড়। সঙ্গে মুষলধারে বৃষ্টিও। ঝড়ের ধাক্কায় ঘাটকোপর এলাকায় উপড়ে যায় বিজ্ঞাপনের বিশালাকার ধাতব বোর্ডটি। ভেঙে পড়া সেই বিলবোর্ডের নিচে চাপা পড়েন অনেকেই। ঘটনাস্থলের যে সমস্ত ভিডিও প্রকাশ্যে আসে, তাতে দেখা যায়, বিজ্ঞাপনী বোর্ডটি ভেঙে পড়ছে একটি পেট্রল পাম্পের ওপর। যার আঘাতে দুমড়ে গিয়ে নিচে নেমে আসে পেট্রল পাম্পের ছাদ। চাপা পড়ে পেট্রল পাম্পে দাঁড়িয়ে থাকা কিছু গাড়িও। বিলবোর্ডের ধাতব কাঠামো বহু গাড়ির ছাদ ফুঁড়ে ঢুকে যায়। সেই ঘটনাতেই এখনও পর্যন্ত ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহতের সংখ্যা প্রায় ৭৫।

স্থানীয়দের তরফে জানা গিয়েছে, ঝড়বৃষ্টির হাত থেকে বাঁচতে অনেকেই আশ্রয় নিয়েছিলেন পেট্রল পাম্পে। কেউ কেউ এসেছিলেন তেল ভরাতে। আর সেই সময়েই ঘটে যায় দুর্ঘটনা। মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী তথা শিবসেনা নেতা একনাথ শিন্ডে নিহতদের ৫ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা জানিয়েছেন। একই সঙ্গে মুম্বাই শহরের বিলবোর্ডগুলি নিয়ম মেনে লাগানো হচ্ছে কি না, তার তদন্ত করারও নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। রাজ্য প্রশাসনের তরফে বলা হয়েছে, এই বিলবোর্ডগুলি যে ধাতব কাঠামোর ওপরে লাগানো হয়, সেগুলির রক্ষণাবেক্ষণ হচ্ছে কি না, সে দিকে নজর দিতে হবে।

বিজনেস বাংলাদেশ/একে

মুম্বাইয়ে ঝড়ে ভেঙে পড়ল বিলবোর্ড, নিহত বেড়ে ১৬

প্রকাশিত : ০২:৪০:০২ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৫ মে ২০২৪

ভারতের মুম্বাইয়ে ভেঙে পড়া বিলবোর্ডের নিচে চাপা পড়া আরও দুটি মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এর আগে সোমবার দুর্ঘটনাস্থল থেকে ১৪ জনের মৃতদেহ উদ্ধার হয়েছিল।

বুধবার নতুন করে আরও দুটি মরদেহের খোঁজ মেলায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১৬।

জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, মঙ্গলবার রাতে উদ্ধার কাজ চলার সময় ওই দুটি মরদেহ নজরে আসে। কিন্তু তখন সেগুলো উদ্ধার করা যায়নি। বিলবোর্ডের নিচে আর কেউ চাপা পড়ে রয়েছেন কি না, তা দেখতে এখনও অভিযান চালাচ্ছেন জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর সদস্যেরা।

উল্লেখ্য, সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টা নাগাদ হঠাৎ আকাশ কালো করে ঝড় ওঠে মুম্বাইয়ে। কিছু বুঝে ওঠার আগেই শুরু হয় ৬০ ঘণ্টা প্রতি কিমি বেগে ধুলোঝড়। সঙ্গে মুষলধারে বৃষ্টিও। ঝড়ের ধাক্কায় ঘাটকোপর এলাকায় উপড়ে যায় বিজ্ঞাপনের বিশালাকার ধাতব বোর্ডটি। ভেঙে পড়া সেই বিলবোর্ডের নিচে চাপা পড়েন অনেকেই। ঘটনাস্থলের যে সমস্ত ভিডিও প্রকাশ্যে আসে, তাতে দেখা যায়, বিজ্ঞাপনী বোর্ডটি ভেঙে পড়ছে একটি পেট্রল পাম্পের ওপর। যার আঘাতে দুমড়ে গিয়ে নিচে নেমে আসে পেট্রল পাম্পের ছাদ। চাপা পড়ে পেট্রল পাম্পে দাঁড়িয়ে থাকা কিছু গাড়িও। বিলবোর্ডের ধাতব কাঠামো বহু গাড়ির ছাদ ফুঁড়ে ঢুকে যায়। সেই ঘটনাতেই এখনও পর্যন্ত ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহতের সংখ্যা প্রায় ৭৫।

স্থানীয়দের তরফে জানা গিয়েছে, ঝড়বৃষ্টির হাত থেকে বাঁচতে অনেকেই আশ্রয় নিয়েছিলেন পেট্রল পাম্পে। কেউ কেউ এসেছিলেন তেল ভরাতে। আর সেই সময়েই ঘটে যায় দুর্ঘটনা। মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী তথা শিবসেনা নেতা একনাথ শিন্ডে নিহতদের ৫ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা জানিয়েছেন। একই সঙ্গে মুম্বাই শহরের বিলবোর্ডগুলি নিয়ম মেনে লাগানো হচ্ছে কি না, তার তদন্ত করারও নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। রাজ্য প্রশাসনের তরফে বলা হয়েছে, এই বিলবোর্ডগুলি যে ধাতব কাঠামোর ওপরে লাগানো হয়, সেগুলির রক্ষণাবেক্ষণ হচ্ছে কি না, সে দিকে নজর দিতে হবে।

বিজনেস বাংলাদেশ/একে