ঢাকা রাত ৩:১২, মঙ্গলবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রাখাইনে যৌন সহিংসতার অভিযোগ তোলা হচ্ছে আদালতে

মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে প্রধানত-মুসলিম রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর সামরিক বাহিনীর চালানো যৌন সহিংসতা ঘটনা সম্পর্কে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতকে অবহিত করবেন জাতিসংঘের একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা।

যুদ্ধকালীন যৌন সহিংসতা সম্পর্কে জাতিসংঘের মহাসচিবের বিশেষ প্রতিনিধি প্রমীলা প্যাটেন অভিযোগ করেছেন, মিয়ানমারের সশস্ত্র বাহিনী একটি রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে যৌন সহিংসতাকে একটি পরিকল্পিত ত্রাস ছড়ানোর অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করছে। খবর বিবিসির।

তিনি আরো বলেন, এর লক্ষ্য হচ্ছে রোহিঙ্গাদের নিশ্চিহ্ন করা। বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গাদের শরণার্ধী শিবিরগুলোতে সফর করে বিভিন্ন বয়েসের নারীদের সঙ্গে কথা বলেন প্রমীলা প্যাটেন।

এর পর তিনি বলেন, গণহত্যার সময় ধর্ষণকে একটা অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করা হয়।

এর আগে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় শিবির পরিদর্শন করার পর মার্কিন কর্মকর্তারা বলছেন, রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়াই হবে এই সঙ্কটের সর্বোত্তম সমাধান এবং মায়ানমারের সরকারকেই এর দায়িত্ব নিতে হবে।

শনিবার ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে সফররত মার্কিন প্রতিনিধিদলের নেতা ভারপ্রাপ্ত সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাইমন হেনশ বলেন, মার্কিন প্রশাসনের সবোর্চ্চ স্তরে এখন রোহিঙ্গা ইস্যুটি গুরুত্ব পাচ্ছে।

অন্যদিকে মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলিম জনগোষ্ঠীর ওপর নির্যাতনের অবসান ঘটাতে দেশটির সামরিক বাহিনীর ওপর আরো কঠোর অবরোধ আরোপের একটি প্রস্তাব এনেছেন আমেরিকার ক্ষমতাসীন রিপাবলিকান ও বিরোধী ডেমোক্র্যাট দলের সিনেটরদের একটি গ্রুপ। সেই সাথে রোহিঙ্গাদের নিরাপদে রাখাইন রাজ্যে ফেরার জন্য সামরিক বাহিনীকে সুষ্ঠু পরিবেশে নিশ্চিত করতে হবে বলেও উল্লেখ করা হয়।

এ বিভাগের আরও সংবাদ